জগতের সকল প্রানী ডাক্তার হোক

সিনথিয়া খোন্দকার ২৫ এপ্রিল ২০১৪, শুক্রবার, ১২:২৫:৪০অপরাহ্ন বিবিধ ১৭ মন্তব্য

জীবনভর মোটা মোটা বই পুস্তক মুখস্ত করিতে জীবন যৌবন অপব্যায় করিয়া শেষে উপলব্ধি করিলাম, ডাক্তার একটি অতি মামুলি ও সহজলভ্য প্রানী। তাহার দুইটি হাত এবং দুটি পা তুটি চোখ আর দুটি কান আছে। তবে তাহার মুখ নাই, পেট নাই, তাহার শরীরে রক্ত মাংস নাই।
হাজার হাজার টাকা খরচা করিয়া এত টেস্ট ফেস্ট করানোর কি দরকার? পাশের বাসার ভাবীও কোন কোন তরকারিতে ক্যান্সারের দাওয়াই আছে তাহা বলিতে পারে। মাথাব্যাথা হইলে প্যারাসিটামল না দিয়া পরীক্ষা দেয় একমাত্র পাস করিয়া কসাই হওয়া ডাক্তারগুলো। তার চাইতে যে "ডাক্তার" হাসপাতাল এলাকায় বহুবছর ধরে চাপরাসীর কাজ ও দালালী করিয়া আসিতেছে তাহারাই সবচে অভিজ্ঞ হয় ও ভাল ব্যাভার করিয়া থাকে। তাহারা পাচশ হইতে সাতশ টাকা ফি ও নেয় না। তাহারা অতি সস্তায় ও সহজে সর্ব রোগের চিকিৎসা করিতে সক্ষম।
এক সুহৃদ বন্ধুর দাঁতে ভীষন ব্যাথা জানিতে পারিয়া তাহাকে কইহিলাম- উহা তুমি ফেলিয়া দাও। অযথা কেন কষ্ট করিতেছো। বন্ধু জানাইল তাহার এলাকার এক পরিচিত নাম না জানা ব্যাক্তি দাঁত তুলিয়া অক্কা পাইয়াছিল। দাঁত তুলিবার বছর তিনেক পর সে ক্যান্সারে মারা গিয়াছিল। আরো খোঁজ নিয়া জানা যায় সেই দন্ত উৎপাটক আসলে ছিল এক রাস্তার পাশে "দাঁত তুলিবার দোকান" সাজাইয়া বসা কোয়াক। এর পর থেকে বন্ধু প্রবরের সমস্ত ডাক্তারদের প্রতি অবিচল ক্ষোভ আর ভয়।
জনৈক গেয়ানী বালস্য বাল হরিদাস পাল বলিয়াছেন- "তোমরাও আমার ন্যায় নিজ নিজ ঘরের দরজা বন্ধ করিয়া খেমটা নাচ নাচিতে পারো।" তাহার ছ্যাচড়ামির প্রতিবাদ করিতে গেলে তিনি নিরুপায় হইয়া বলেন- "আমাকে জ্ঞান দিতে আসিও না। খোদা না করুক জ্ঞান পাইয়া আমার চক্ষু- কর্ণ খুলিয়া গেলে আমি আবোল তাবোল বকিয়া হিট খাইবো কেমন করিয়া"?
হরিদাসপাল কে প্রশ্ন করায় তিনি বলেন তাহার ৯৫ বছর বয়স্কা নানীজানকে ডাক্তারেরা তেইশ বছরের যুবতীর ন্যায় সুস্থ অবস্থায় ফিরাইয়া দিল না কেন? তাহার নানী বছর পাচেক হয় গত হাইয়াছেন। কিন্তু বর্তমানে ডাক্তার পিটানো এবং গাইল্যানোর মউসুম চলছে। গরমে খিস্তি খেউড় করিলে কিঞ্চিৎ আরাম ও বোধ হয়। তাই আজ হঠাত করিয়া তাহার মৃতা নানীর জন্য বুকের ভিতরখানি হাহাকার করিয়া উঠে।
হরিদাসপাল আরো বলেন "আমি কিন্তু কলা খাই না। আমি কখনো ডাক্তার হইতে চাহি নাই," তাহলে কি হইতে চাওহিয়াছিলেন জিজ্ঞাসিলে তিনি আগেবঘন কন্ঠে বলেন- "দেখুন এ জগতে কোনও পেশাই কোনটার চাইতে কম গুরুত্বপূর্ণ নহে, একজন মুচি মেথার কিংবা রিক্সাওালার অবদান ও এই সমাজে ডাক্তারের চাইতে কম নয়। তবে আমার এই "বালস্য বাল" উপাধীটি সবার চাইতে উপরে। তাহলে আপনার পুত্রকে কি মুচি বানাইবেন নাকি রিকশাচালক? - এই প্রশ্ন করিলে তিনি ক্ষিপ্ত হয়ে বলেন- "ভাগ এখান থেকে আমাকে একটু শান্তিতে স্বমেহন করিতে দে ব্যাটা কসাই, রাগের চোটে উলটা পালটা করিতে গিয়া পেনিস ফ্রাকচার হইলে আমাকে কে বাঁচাইবে? একহাতে দন্ডখানি চাপিয়া ধরিয়া আমাকে সেই ডাক্তারের কাছেই ত যাইতে হবে, নাকি?"

0 Shares

১৭টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

লেখকের সর্বশেষ মন্তব্য

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ