ছুটিপুর-১

শুন্য শুন্যালয় ১১ জুলাই ২০১৫, শনিবার, ০১:১৪:৩৭অপরাহ্ন একান্ত অনুভূতি ৬২ মন্তব্য

শিওরে অপূর্ব সুদর্শন, নীল রং এর একটি টি গায়ে সবুজ বিড়াল চোখে এক পলকে তাকিয়ে আছে। এ কে? এখানে এলো কি করে? নিজের চোখ নিয়ে অবিশ্বাসের প্রশ্নই নেই, এ চোখ অনেক অদেখা কিছু দেখে ফেলে আর এ যে জল অথবা পানি জ্যান্ত টম ক্রুজের গুরু। কে গো তুমি হিরো? উত্তর না দিয়েই বখাটের মতো বলে উঠলো, যেতে হবে। আরে বলা নেই কওয়া নেই, কথা নেই বার্তা নেই, চিনি না শুনি না, জানার তো কথাই না। যেন গান গাইছে “এই ফাগুনী পূর্নিমা রাতে চলো পলায়ে যাই “। কোথায় যাব ধমকের সুরে বলি, আর এই, তুমি কে?
তোমাকে নিয়ে যেতে এসেছি আমি “ছুটিপুর “। ধমকের আধখানা তখনও জিহ্বার ডগায় ছিল, মূহুর্তেই গিলে ফেলি। বুঝে নিতে চেস্টা করলাম এ কি সেই সে ছুটিপুর? যেথায় যেতে চাই খুব মন খারাপে, কিংবা অনেক বেশি টুকটুকে আনন্দে?
তুমি আজরাইল!! এবার উল্টো রেগে উঠি, রংঢং মাখা এপস পাঠানোর কি দরকার ছিল, যার ভেতরে ভাইরাস। সুদর্শন সবুজ চোখা সমুদ্র শান্ত মুখে বলে, বড় বেশি সময় নিচ্ছো, চলো।
কতো কম সময় টুকুই না দিলে এই জীবনে। হাজার হাজার বছর বাঁচিয়ে রাখো কত জীব জানোয়ার কে, যে বেঁচেই থাকলো স্বপ্ন দেখলোনা। আর আমাকে এক পাহাড় স্বপ্ন দিয়ে এক কানাও উঠতে দিলেনা!! তোমার চলচ্চিত্র তো শেষ বন্ধু, অন্তত শেষ কৃতজ্ঞতাটুকু জানিয়ে যেতে দাও। শিখে রাখা সব মায়া ছড়িয়ে দিলাম। একটু বশিভূত হয়েই গেলো গ্রীন গ্রীন আইস। লিস্ট শুরুর কাউন্টডাউন শুরু…
সবুজ চোখের ডাকপিয়ন তুমি তো জানোনা, এ কৃতজ্ঞতা, এ ক্ষমা, এ ভালোবাসার লিস্ট লিখতে দিয়ে তুমি পাবে অপেক্ষা, আমার আবার শুরু থেকে শেষ হওয়া আরেক জীবনের অপেক্ষা …

৩৪২জন ৩৪২জন
0 Shares

৬২টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

লেখকের সর্বশেষ মন্তব্য

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ