ঘুমভাঙা স্মৃতির পথ বেয়ে
———————————–
আমবাগানের শেষ মাথায় উঁচু কাশবন পেরিয়ে যে ধু ধু মাঠ, ওখান থেকে দূরে, সূর্য অস্ত যায় আকাশের শেষ সীমায়। টকটকে লালরঙের বিরাট থালার মতো সূর্যটাকে কেমন করে যেন ধীরে ধীরে গিলে ফেলে বহুদূরের কালো হয়ে আকাশের সাথে মিশে থাকা বৃক্ষের সারি। বিন্দুতে হারিয়ে যাওয়া পাখির ঝাঁক খুঁজে নেয় নীড়। ছিটেফোঁটা দিনের আলোটুকু একেবারে নিভে যাওয়ার পর আঁধারে ঢাকে ওই মাঠ, মাঠের এপারের গাঁ, গাঁয়ের প্রতিটি ঘর। পিদিমের শিখা দোল খায় মৃদু হাওয়ায়। সন্ধ্যাতারাটিকে ঘিরে একে একে জেগে ওঠে অজস্র তারা ওই আকাশের গায়ে। উঠোনের এককোণে সন্ধ্যামালতির ঝোপের ভেতর থেকে ভেসে আসে মাতাল করা সুবাস।

গভীরে…. হৃদয়ের নির্ধারিত একটি অংশে ঘুমিয়ে থাকে এমনই কিছু। মাঝে মাঝে সে ঘুম পাতলা হয়, জেগে উঠতে চায় পুরোপুরি আড়মোড়া ভেঙে। কখনও তোমার হাত ধরে হেঁটে যেতে চায়। আলতো করে, পরম মমতায় তোমার হাতের উষ্ণতাটুকু সঞ্চারিত হতে দাও।
হেঁটে যাও ঘুমভাঙা স্মৃতির পথ বেয়ে, দূরে বহুদূরে।
দেখবে, বেঁচে আছো…….ভীষণভাবে বেঁচে আছো।

৩৯৪জন ১৭৩জন
10 Shares

২০টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ

লেখকের সর্বশেষ মন্তব্য