গ্রামের নাম রোনিন পাড়া

কামাল উদ্দিন ২৭ ডিসেম্বর ২০১৯, শুক্রবার, ০৪:৪৮:৫২অপরাহ্ন ভ্রমণ ২৫ মন্তব্য

বান্দবানের পাহাড় চুড়া সিপ্পি বা আরসুয়াং জয় কিংবা বৃহৎ ঝর্ণা তিনাপ সাইতার ভ্রমণের বেস ক্যাম্প বলা চলে এই রোনিন / রনিন পাড়াকে। রোনিন পাড়ায় মূলত বম ও তঞ্চঙ্গ্যা জনগোষ্ঠীর মানুষের বসবাস।প্রকৃতির সন্তান এখানকার মানুষদের সাথে মিশলে যে কারো ভালো লাগবে এটা নিশ্চিৎ। বান্দরবান পৌঁছে বাস থেকে নেমে রোয়াংছড়ির বাসস্ট্যান্ড থেকে লোকাল বাসে যেতে হবে রোয়াংছড়ি। সেখান থেকে গাইড নিয়ে ২৩ কিমি পাহাড়ি পথ হেঁটে পাইক্ষ্যাং পাড়া হয়ে যেতে হবে রোনিন পাড়ায়। অন্য পথে গেলে বান্দরবান থেকে রুমা হয়ে মুন্নুয়াম পাড়া হয়ে রোনিন পাড়ায় যেতে হয়। মুন্নুয়াম পাড়ার পথটা অবশ্য দূরত্ব একটু বেশী হয়। তবে যেই পথেই যান না কেন মোটামুটি একটা দিন তো লেগেই যাবে। খুব ভালো ট্র্যাকার হলে হয়তো কিছুটা সময় বাঁচানো যাবে। আমার দুই পথেই যাওয়ার অভিজ্ঞতা রয়েছে। প্রথম বার গিয়েছিলাম সিপ্পি সামিটের জন্য, কিন্তু রোনিন পাড়া যাওয়ার আগেই আমার পায়ে সমস্যা হয়ে যাওয়ায় সিপ্পি পর্যন্ত পৌছতে পারিনি। তবে ভাগ্য ভালো যে, ওখান থেকে অনেক কষ্ট হলেও কারো সাহায্য ছাড়াই ফিরে আসতে পেরেছি। দ্বিতীয় বার গিয়েছিলাম বাংলাদেশের বৃহত্তম ঝর্ণা তিনাপ সাইতার দেখার উদ্দেশ্যে। পাহাড়ে এমন এ্যডভেঞ্চার ট্যুরগুলো সব সময়ই আমাকে রোমাঞ্চিত করে। কিন্তু প্রায় দুই বছর হতে চলল পাহাড়ের ডাকে সাড়া দিতে পারছি না। চলুন আমার ক্যামেরায় রোনিন পাড়াটা দেখে আসি………….


(২) দীর্ঘ পাহাড়ি পথ পাড়ি দিয়ে এক সময় রোনিন পাড়া আমাদের নজরের মধ্যে চলে এলো।


(৩) পাড়ায় ঢোকার মুখেই পেতে রাখা আছে বাঁশ কাঠ নির্মিত বসার বেঞ্চ, ক্লান্ত শরীরে বসার বেঞ্চে শুয়ে পড়ল অনেকে।


(৪) এই গ্রামের পাশেই রয়েছে আরো উঁচু পাহাড়, সেই পাহাড়ের ঝর্ণাতে লাগানো পাইপ দিয়ে সর্বক্ষণ ওরা পানির সরবরাহ পেয়ে থাকে। একটা বড় হাউজ বানিয়ে তার মাঝে ঝর্ণা থেকে লাগানো পাইপের খোলা মুখ সেট করে দেওয়া আছে। পাড়ার সবাই এখান থেকে সমস্ত গেরস্থালীর পানি পেয়ে থাকে। সেই পানির হাউজের সামনে ব্যস্ত কিছু আদিবাসি মহিলাদের দেখা যাচ্ছে।


(৫/৬) আমাদের থাকার জন্য বরাদ্ধ বাড়িটা আরো ভেতরের দিকে, তাই গ্রামের ভেতরের রাস্তা দিয়ে আরো এগিয়ে যেতে হয়।


(৭/৮) উৎসুক নয়নে আমাদের অনেকে দেখছিল।


(৯) এই বাড়িটা ছিল দুই রাত থাকার জন্য আমাদের রোনিন পাড়ার ঠিকানা।


(১০) গ্রামের ভেতরে একটা লাল মাটির পথ নেমে গেছে নিচের দিকে।


(১১) এটা একটা সেনা ছাউনি, রোনিন পাড়া থেকে কিছুটা নিচে এই সেনা ছাউনিটা।


(১২/১৩) ওখানে আমাদের সকালের নাস্তাটা ছিল এমন। ওদের মাচার উপরের ঘরগুলোতেই চুলায় সব রান্নাবান্না হয়ে থাকে।


(১৪/১৫) রোনিন পাড়ার মা ও শিশুরা যেমন।


(১৬/১৭) ওখানকার পরিশ্রমী মানুষেরা যেমন।


(১৮) এখানে এমন কিছু প্রাণী আছে যারা অতিথীদের সেবা দিতে সর্বদা প্রস্তুত।


(১৯) দুইদিন থাকার পর অন্য পথে যখন রোনিন পাড়া ত্যাগ করছিলাম।


(২০) ফেরার পথে সিঁদুরে কলমী ফুল গুলো যেন আমাদের টিমকে বলেছিলো আবার এসো, আমরা অপেক্ষায় থাকবো তোমাদের জন্য………

৫৩৬জন ৪০৯জন
20 Shares

২৫টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ

লেখকের সর্বশেষ মন্তব্য