গুচ্ছ কবিতা

মাহবুবুল আলম ২৮ অক্টোবর ২০১৯, সোমবার, ০৫:০৭:৩০অপরাহ্ন কবিতা ২২ মন্তব্য

মাহবুবুল আলম

ইচ্ছাপূরণ ||

সে কেবল চোখের ভেতরে হাঁটে
মনের ভেতরে থাকে, রাত হলে
ভাঙিয়ে ভাতঘুম স্বপনে সে আসে
সারারাত স্বপ্নবিহারে মেতে
ভাসিয়ে যায় জলে।
একদিন ক্যামেরার চোখে
একপলকের দেখা একা একা
কাশবনের পথ ধরে হেঁটে যাচ্ছিল সে
নরম দুর্বাঘাসে পায়ের
আলপনা পড়েছিল তার।
তবু যেনো কত দিনের চেনা
কতদিনের জানাশোনা পরিচয়
হৃদয়ের নায়িকা সুন্দরী অপ্সরা
সেই দিলরুবা।
আমি তাই সেই পথে বার বার যাই
যদি দেখা পাই দিলরুবা
ধরা যদি দেয় ক্যামেরার চোখে
এবার বাঁধিবো তারে ফ্রেমে
যতই সে মন্দ বলুক
অসৌজন্যতার দোষে করুক দোষি
আমায় কে আর থামায় ইচ্ছা পূরণে।

চাইনিতো অতকিছু ||

বেশি কিছু চাইনিতো আমি
চেয়েছিলাম একটুকুন ছায়া
সামান্যই শাক-ভাত
একপ্রস্ত আটপৌরে শাড়ি
এইটুকুন নিখাদ প্রণয়।
চাইনিতো অতকিছু
চাইনিতো বিলাসি জীবন,
হাতভরা চুড়ি, কন্ঠে সিতাহার
বিলতিশিপন চাইনি
চাইনিতো প্রাসাদ জীবন।
আমি চাই তুমি শুধু
ছায়া হয়ে থাকো, মায়া হয়ে
হৃদয়ে উষ্ণপরশ মাখো
এটুকু চাই শুধু এইটুকু দাবী
বিরহীর বিশুষ্ক হৃদয়
সুখে রাখো ঢাকি

ক্ষোভ ||
ব্যাংক থেকে ঋণ নিচ্ছে যারা
হাজার কোটি টাকা,
বারে বারে টাকা নিয়ে
ব্যাংক করেছে ফাঁকা।
তবু তাদের হয় না কিছু
দিব্যি ঘুরে বেড়ায়
কৃষিঋণের টাকার জন্য
ব্যাংক আমায় দৌড়ায়।
তার পরেও ব্যাংক দিয়ে দেয়
সার্টিফিকেট মামলা
টাকা আদায় করতে প্রায়ই
বাড়িতে দেয় হামলা।
রাঘববোয়াল পার পেয়ে যায়
শক্ত তাদের খু্ঁটি
ঋণের জালে আটকে থাকে
ক্ষুদ্র চুনোপুঁটি।
আমার বাড়ি পুলিশ আসে
পালিয়ে বেড়াই রোজ
সরকার আসে সরকার যায়
নেয় না আমার খোঁজ।

মুক্তি চাই প্রভু হে ||

…এসব কারণে আমি প্রতিনিয়তই
লজ্জায় নিমজ্জিত হই, তাই মাটিকে
বলি- হে মাটি তুমি বিদীর্ণ হও
তোমার অতলান্ত গহ্বরে ঢুকে
যতসব লজ্জা ও অপমান থেকে
মুক্তিলাভ করি।
আকাশকে বলি-
হে আকাশ! তুমি বজ্রআঘাত হেনে
গুড়িয়ে দাও সেসব মানুষের
লালাসা ও পাপাচারের লালাঝরানো
উদ্যত জিহ্বাটাকে।
পরম স্রষ্টাকে বলি- হে স্রষ্টা!
তুমি সর্বোত্তম মহিমায় ধ্বংস করে দাও
ওইসব পাপিষ্ঠদের, যাদের কারণে
সৃষ্টির সেরা জীব মানুষ আজ কলঙ্কিত।
একমাত্র তুমিই পারো যাবতীয় অন্তর্গত
যাতনা থেকে লজ্জিত ও অপমানিত
আমাকে মুক্ত করতে!

১১৪জন ২১জন
7 Shares

২২টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ

লেখকের সর্বশেষ মন্তব্য