“খোরাক”

রেজওয়ানা কবির ১২ অক্টোবর ২০২০, সোমবার, ১২:৪৭:০৮পূর্বাহ্ন একান্ত অনুভূতি ২৫ মন্তব্য

“খোরাক” শব্দটির সাথে  আমরা সবাই পরিচিত। একেকজনের খোরাক একেকরকম। কারো চোখের খোরাক কারো মনের খোরাক। এই খোরাক মেটানোও খুব কষ্টসাধ্য কেননা মানুষের চাহিদার শেষ নেই। মানুষ যা চায় তা যতক্ষন পর্যন্ত না পায় ততক্ষন পর্ষন্ত সেই চাওয়ার পিছনে ছুটতেই থাকে, ছুটতে ছুটতে একটা সময় ক্লান্ত হয়ে পড়ে,কিন্তু ছুটতেই থাকে,,,, খোরাক মেটানো বলে কথা। কিন্তু অনেকেই সেই সাধের খোরাকের দেখা আদৌ পায় না। আবার অনেকে এই দূর্লভ খোরাকের দেখা পেয়েও হারিয়ে ফেলে। মাঝে মাঝে ভাবতে অবাক লাগে, এতকিছু আছে কিন্তু মনে হয় কিছুই নেই । খোরাক এক আলাদিন এর আশ্চর্য প্রদীপ মনে হয়,যে প্রদীপের আলোতে আমরা দিশেহারা হয়ে যাই। কিন্তু সেই নিয়ন আলোর আলো ও যে দাউ দাউ করে জ্বলে ওঠে এক মুহূর্তে সব চুরমার করে দেয় তা কেউ বোঝে না। তখন তারা মেতে ওঠে খোরাক পুরনের উন্মাদনায় গা ভাসিয়ে দেয়। হায়রে খোরাক, কারো চোখের খোরাক,কারো মনের খোরাক আবার কারো দুটোরই খোরাক। এই দুই খোরাকই ভয়ানক। কারন যা চোখে বা সামনাসামনি  দেখতে ভালো লাগে তা প্রতিনিয়ত যদি চোখের সামনে না দেখতে পাওয়া যায় তবে ভয়ানক যন্ত্রনায়  মানুষ কাতরাতে থাকে। এ যেন অনেকটা গলা কাটা মুরগীর মত। মুরগী জবাই করলে প্রচুর রক্তক্ষরন হয় কিন্তু মানুষ ভেঙ্গেচুরে চুরমার হয়,খোরাকের দেখা পাওয়া ঢের দেরী। চোখের খোরাক হল,যেমন কাউকে আপনার ভালো লাগে, প্রতিদিন যদি তাকে কোন কারনে চোখের সামনে না দেখতে পারি,তখন চোখের খোরাক মেটাতে না পারার যন্ত্রনায় কাতরাতে থাকেন। এ কাতরানোর জ্বালা সেই বোঝে যে এই পরিস্থিতিতে পড়ে। আবার কারো ভালোবাসা বা ভালোলাগার খোরাক নেই আছে শুধু অর্থলোভের খোরাক,একে বলে অর্থলোভের খোরাক । টাকা  যত বেশী,আরও তত চাই।

এবার আসি মনের খোরাকের কথায়, সাধারণত চোখের খোরাকের মাধ্যমেই আসে  মনের খোরাক। কারন কাউকে ভালোলাগলে তাকে যখন দেখতে ইচ্ছে হয় তখন তা চোখের খোরাক, আর যখন তাকে শুধু দেখা না একেবারে নিজের করে পেতে ইচ্ছে করে তখন তা হয় মনের খোরাক। চোখের খোরাক না মিটলেও সেই না পাওয়াটা মানুষ ধীরে ধীরে ভুলে যায়। তবে মনের খোরাক না মিটলে মানুষ আর নিজের মধ্যে থাকে না, হিতাহিতজ্ঞান হারিয়ে ফেলে, অনেক ভুল করে,ভুল সিদ্ধান্ত নেয়, এমনকি এক নিমিষেই নিজের আমিটাকে এমনভাবে শেষ করে যে সেই শেষ থেকে শুরু করা আদৌ সহজ কাজ নয়।  শেষ থেকে যে আবার শুরু করে সেই। জয়ী হয় আর যে  শুরু করতে পারে না সে হারিয়ে ফেলে নিজের সত্ত্বাকে।নিজেই আর নিজেকে তখন চিনতে পারে না শুধু নিজেরই নিজেকে প্রশ্ন করে,,,,,,এই আমি  সেই আমি???? এই প্রশ্নে নিজেই নিজেকে জর্জরিত করে ফেলে। শুধুমাত্র  একটা শব্দ  “খোরাক “।

খোরাক মানুষের জীবনে থাকবেই, তাকে ঘীরে অনেক স্বপ্নও থাকবে কিন্তু সেই খোরাককে পাওয়ার আশা করা যাবে না। মনকে এমনভাবে কম্পিউটারের প্রোগ্রামিংএর  মত সেটিংং করতে হবে যে খোরাক সেটা মনের বা চোখেরই হোক সেটা নিজের মধ্যেই থাক,তার স্বকীয়তাও থাক, শুধুমাত্র নিজের মাঝে। যদি না মেটে খোরাক তাতে আফসোসের কিছু নেই। হয়ত সেটা আপনার ভাগ্যেেই নেই এই ভেবে নিজেকে নিয়ন্ত্রন করুন আর পৃথিবীতে কোন কিছু পাওয়ার আশাই করবেন না,তবেই সুখী হবেন। যখনই আশা করবেন তা যদি না পান তবে জীবনটা হবে জলে ভাসা পদ্মের মত,যেখানেও থাকবে ছলনা। 

তাই,,,,,, যা আপনার ছিল তা যতই  এই মুহূর্তে পরিস্থিতি বা যেকোনো প্রতিকূলতার প্রতারণায় কাছে  না থাকুক, তা যদি সত্যি আপনার হয় সেটা সকল বাঁধা পেড়িয়ে আপনার কাছে ফিরে আসবেই। আর যা আপনি শত চেষ্টা করেই ধরে রাখুন না কেন? তা  আর ফিরে আসবে না কেননা তা আপনার কখনোই ছিল না ,,,,, এটাই বাস্তবতা। আর খোরাক খোরাকের জায়গায় থাক,শুধু আমরা চিন্তাচেতনার পরিবর্তন করি,ভালো থাকি,শান্তিতে থাকি।

আজ এই পর্যন্ত,সবাই ভালো থাকবেন।।।     

 

 

৮১জন ২৫জন
0 Shares

২৫টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ

লেখকের সর্বশেষ মন্তব্য