খেয়ালী মেয়ের চিঠি-৩

খেয়ালী মেয়ে ২৪ অক্টোবর ২০১৪, শুক্রবার, ০৯:০৭:০০অপরাহ্ন একান্ত অনুভূতি ৩৬ মন্তব্য

ড্যামিশ—
তোমায় আবার লিখতে বসলাম—কেমন আছো তুমি?না তোমার কাছে এই প্রশ্নটা আমি রাখবো না, কারণ আমি জানি তুমি ভালো আছো,অনেক ভালো......

জানো ড্যামিশ, আজকাল মাথায় একটা গল্প ঘুরপাক খাচ্ছে—যে গল্পের নায়িকা আমি আর নায়ক তুমি—ভাবছি গল্পটা লিখব,বর্ণমালা দিয়ে শব্দজটে গল্পটাকে বাঁধবো—তারপর লিখা শেষ করে খুব বিশ্বস্ত একজনকে দিয়ে যাবো এই গল্প প্রকাশনার দায়িত্ব—যখন আমি থাকবো না এই পৃথিবীর কোথাও, তখন এই গল্প প্রকাশিত হবে—আর দেখো, এই গল্প প্রকাশিত হওয়ার পর এটিই পৃথিবীর শ্রেষ্ঠ প্রেমের গল্প হিসেবে স্বীকৃতি পাবে—তোমার আমার গল্প.......

কিন্তু জানো বুদ্ধু, যখনি আমি গল্পটা লিখবো বলে বসি, তখন আমি আর কিছুই লিখতে পারি না—বর্ণমালারা আমার সাথে ছলনায় মেতে উঠে—তোমায় নিয়ে ভেবে যাওয়া সুন্দর শব্দের সব বাক্য আমার কাছে অস্পষ্ট হয়ে উঠে—আমার মনের আকাশটা কালো মেঘে ঢেকে যায়—সেই আকাশের কোথাও তখন আমি আর তোমাকে খুঁজে পাই না—একটা দুঃস্বপ্ন পার করে নিজেকে তখন বড্ড একা মনে হয়—তারপর কোথায় থেকে একটা দীর্ঘশ্বাসের দানা বেঁধে সেটা আস্তে আস্তে বড় হতে শুরু করে—আমার আর গল্প লিখা হয়ে উঠে না—তোমার আমার গল্প........

আমি জানি না তোমায় নিয়ে আমার এই গল্প কখনো লিখা হবে কিনা, তাই বলে তুমি আবার ভেবে বসো না যে, আমি তোমায় নিয়ে ভাবতে পারি না বা আমার ছোট্ট পৃথিবীতে তুমি কোথাও নেই-এমনটি তুমি কখনো ভাবতে যেয়ো না—শুধু জেনে রেখো, উজ্জ্বল পরিষ্কার আকাশও এক সময় মেঘে ঢেকে যায়---উত্তাল সমুদ্রও একসময় খুব বেশী শান্ত হয়ে যায়—নিশুতি রাতের তারারাও একসময় অভিমানে দৃষ্টির বাইরে হারিয়ে যায়—নীড় হারা পাখিটাও একসময় নীড়ের খোঁজে সন্ন্যাসী হয়ে যায়—কতো কিছু যে হয়ে যায় অজান্তে—জানো ভোরের আলোর সাথে জেগে উঠে হৈ হুল্লোড়ে মেতে থাকা চারপাশটাও এক সময় ঘুমিয়ে পড়ে খুব নীরবে—প্রিয় শহরটাও একসময় ঘুমিয়ে পড়ে-ঘুমিয়ে পড়ে আপন মানুষগুলোও—একেবারে রাতের শেষ প্রহরে আমিও ঘুমিয়ে পড়ি—শুধু তুমি ঘুমাও না আমার মনে কখনো, তুমি আছো আমার পুরো পৃথিবী জুড়ে............

ভালো থেকো ড্যামিশ—অনেক অনেক অনেক ভালো থেকো..............

(খেয়ালী মেয়ের স্বপ্নীল চিঠি)

4 Shares

৩৬টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

লেখকের সর্বশেষ মন্তব্য

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ