খেজুর পাতার পাটি”

জি.মাওলা ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৩, বৃহস্পতিবার, ০৭:০০:৫১অপরাহ্ন বিবিধ ৪ মন্তব্য

“খেজুর পাতার পাটি”
@হারিয়ে যাচ্ছে যে সব প্রাচীন ঐতিহ্য https://www.facebook.com/golammaula.akas/posts/567071860027410

হাজার বছরের চলে আসা বাঙ্গালিদের কিছু ঐতিহ্যবাহী জিনিস যা আমরা সেই প্রাচীন কাল হতে বিভিন্ন কাজে ব্যবহার করে আসছি। এই ঐতিহ্যবাহী জিনিস গুলি হাজার বছরের বাংলার সংস্কৃতির এক একটি উপাদান। আজ এই আধুনিক যুগে আধুনিক পণ্যের কাছে , আধুনিক কলা কৌশলের নিকট মার খেয়ে আস্তে আস্তে বিলুপ্তির পথে। আসুন দেখি খেজুর পাতার পাটির সঙ্গে কে কে পরিচিত আছেন।
এক সময় ছিল যখন বিশেষ করে গ্রামবাংলায় খেজুর পাতার পাটির বিকল্প কোন চিন্তাই করা যেত না। তখন গ্রামবাংলার প্রতিটি বাড়ী- ঘরে ব্যবহার করা হতো গৃহস্থালি বিভিন্ন কাজে খেজুর পাতার পাটি । কিন্তু বর্তমানে আধুনিকতার ছেয়ায় তা আর কোন বাড়ীতে বলতে গেলে দেখাই যায়না।
আমাদের গ্রামের নিন্ম বিত্ত ও উচ্চ বিত্ত সব পরিবারের মহিলারা তাদের ঘরে শোবার জন্য বা বারান্দায় বিছানো বা আমাদের শহুরে বাড়ির অনুকরণে ঘরের কার্পেট এর পরিবর্তে সবচেয়ে জনপ্রিয় কমন জিনিসটি হল খেজুরের পাতার পাটি। এটি আর একটি গ্রামীণ ঐতিহ্যের অংশ। এই পাটি এ ছাড়াও ধান গম আটা রৌদ্রে শুকাতে দেবার কাজেও ব্যবহার করা হয়। এ ছাড়া হাজার রকম কাজে এটি ব্যবহার করা হয়। আগে মসজিদে দেখতাম খেজুর পাতার পাটি বিছিয়ে নামাজ আদায় করা হত। গ্রামের মহিলারা মসজিদের জন্য দান হিসেবে বানিয়ে দিতেন খেজুর পাতার পাটি ও জায়নামাজ। এই তো বছর ১০-১২ আগে আমার বাড়িতে আমার বোনরা বানাতেন সুদৃশ্য খেজুর পাতার পাটি। এই পাটিকে বলা গ্রামের শীতল পাটি।
@@ তৈরির প্রক্রিয়া: প্রথমে খেজুর গাছের ডাল কেটে রৌদ্রে উত্তম রূপে শুকাতে হবে। এর পর ডাল হতে পাতা গুলি ছিঁড়ে নিতে হবে। এর পর ঐ শুকনো পাতা গুলির গোঁড়ার দিকে বোটার অংশ এবং সামনের ছুঁচালো কাটার অংশ কেটে ফেলে দিতে হবে। এর পর পাতাকে দু ভাগে ভাগ করতে হবে। এই দুই ভাগ কে প্রয়োজন মত চিকন করে পাটি বুননের জন্য পাতা হিসেবে তৈরি করা হয়। এখন পাটির বুননে জন্য দক্ষ একজনের কাছ হতে এর প্রাথমিক নকশা বা শুরুর জাল তৈরি করে নিতে হয়। এর পর শুধু পাতার পর পাতা জোড়া দিয়ে এক একটা লম্বা ৪-৫ আঙ্গুল প্রস্থের সাপের মত লম্বা সীট তৈরি করা হয়।

কেও কেও এই সীটের মধ্যে লাল, নীল রঙ করা পাতা যুক্ত করে পাটি বুনেন। এর এজন্য যে পাতাকে যে রঙ এ রাঙ্গাতে চান তাকে প্রথমে বাজার হতে সস্তা রঙ কিনে এনে প্রথমে পানিতে মিশিয়ে আগুনে জ্বাল দিয়ে গরম করা হয়, এবার ঐ পানিতে প্রয়োজনীয় পাতা (এই দুই ভাগ কে প্রয়োজন মত চিকন করে পাটি বুননের জন্য তৈরি করা পাতা কে।) কে ডুবিয়ে একটু সিদ্ধ করে নিতে হবে। এতে রঙ গুলি ঐ পাতায় ঢুকে যাবে। এখন ঐ পাতাকে উত্তম রূপে রৌদ্রে শুকিয়ে নিতে হবে। এবার পাটির সীটের মাঝে মাঝে লাল বা সবুজ পাতা দিয়ে পাটি বুনানো হয়। এই পাটি গুলি দেখতে এত সুন্দর উন্নত মানের কার্পেট এর কাছে নস্যি। এই লম্বা সীট গুলি একটা পাটির মত তৈরি হলে এগুলিকে সাপের মত গোল করে জড়িয়ে রাখা হয়। লম্বা সীট হতে একটা একটা পার্ট কেটে নেওয়া হয়। যত লম্বা পাটি আপনি চান সেই মত দৈর্ঘ্যে এক একটি কেটে নিয়ে এই সীট পার্ট গুলি আবার একটার সঙ্গে একটা জুড়ে দেওয়া হয় পাতা দিয়ে। এই জোড়া গুলি এমন মসৃণ ভাবে দেওয়া হয় কি বলব। এ যেন একটা শিল্প। পার্ট পার্ট জোড়া দিয়ে এবার দৈর্ঘ্যের দিকে কাটা মাথা মুড়িয়ে নিচের দিকে সেলাই করা হয় সুতা দিয়ে। এভাবে তৈরি হয়ে গেল একটা পাটি। এবার কি কাজে ব্যবহার করবেন ঠিক করে ব্যবহার করুন প্রয়োজন মত।
তবে এখন খুব কম তৈরি হয় এই পাটি। গ্রামে গেলে মাঝে মাঝে দেখি।

গ্রামের মহিলারা অবসরে বুনিয়ে এক একটা পাটি তৈরি করতে সময় লাগে প্রায় ৪-৬ মাস। আগে এক একটা পাটি ৫০-২০০ টাকা পর্যন্ত বিক্রয় করতেন এ সব মহিলারা। এ ক্ষুদ্র আয় প্রচেষ্টা পরিবারকে দিতে চেষ্টা করতেন একটু সচ্ছলতা।
(ছবি দিতে চেষ্টা করেছিলাম , কিন্তু ছবি পাওয়া গেল না।বাড়িতে ঈদে গেলে তুলে এনে আপলোড করে সামনে কোন একদিন হয়তো হাজির হব)।
https://www.facebook.com/golammaula.akas/posts/582516445149618

৫৩০জন ৫৩০জন
0 Shares

৪টি মন্তব্য

  • প্রজন্ম ৭১

    আপনার এই লেখাটির বিভাগ নির্বাচন করেছেন ‘ রাজশাহী বিভাগ ‘ । কাহিনি কি ভাই ? লেখাটি রাজশাহী বিভাগের সাথে কিভাবে সম্পর্কযুক্ত একটু বলবেন ?
    দিনে এক্টির বেশী পোস্ট দেয়া জরুরী খুব ? আপনি নিজের নামে একটি ব্লগ ওপেন করে সেখানে লিখতে থাকুন , রোজ ১০০ পোস্ট দিন।
    আপনার ফেইসবুক আইডি দেখে তো আপনাকে রাজাকারদের পক্ষের মানুষ মনে হয়। আওয়ামী যুদ্ধাপরাধী খুজেন আপনি ? পাঁচ জন দেশ সেরা রাজাকারের নাম বলুনতো ভাই ।

  • খসড়া

    আজ আপনার তিনটি পোস্ট সমস্যা কি ভাই আপনার। শফীর চেলা হয়ে একটি পোস্ট করেছে। আপনি ইনিয়ে বিনিয়ে জবাব দিয়েছেন কিন্তু পোস্ট সরাননি।তারপরে আর একটি দিয়েছেন যা আগের পোস্ট কে জায়েজ করার জন্য। প্লিজএসব বন্ধ করুন।

  • জি.মাওলা

    জামাত ও আমার কিছু মতামাত

    জামাত ইসলাম সম্পর্কে আমার কিছু লিখা বিভিন্ন সময় বিভিন্ন পরিপেক্ষিতে লিখা। আজ এক করে দিলাম আপনাদের পড়ার জন্য। জামাতিরা উত্তর দিলে বাধিত থাকব ।
    ১। # জামাত দু দুবার ক্ষমতাই এসেছে কিন্তু কই একবার ও তো শুনলাম না তারা ইসলামি আইন চালুর জন্য চেষ্টা করেছে। আরে যে কোন বিষয়ে একটি ইসলামি আইন পাশের বা দাবি উত্থাপন কি ওরা করেছে। আইন পাশ না হক চেষ্টা তো করতে পারতো। একবারও কেও শুনছে বাংলাদেশে তারা এমন একটা প্রচেষ্টা নিয়েছে ,নেই নি? আর বলে তারা ইসলামি দল। জামাত শিবির ভাইরা… কি কিছু বলবেন? আপনাদের শুধু ক্ষমতার লোভ অন্ন কিছু না। ইসলাম আপনাদের হাতিয়ার…ক্ষমতা যাবার।ইসলাম শুধু বাইরে ভিতরে লোভ…ক্ষমতার।আপনারা কোন ইসলামি দল না। মউদুদি বই আপনাদের পথ নির্দেশক…যা হবার কথা কোরান ও হাদিস। এই আপনাদের আসল রূপ। আপনাদের নেতারা ৭১ এর খুনি। কি আর বলব …বলার কিছু নাই। আসুন ইসলামের সঠিক পথে, এখনো সময় আছে।

    ২। ইসলামে নারী নেতৃত্বর হারাম। আমরা তা সকলে জানি।অথচ জামাত শিবির দুই বার BNP এবং একবার আওয়ামীলীগ এর সঙ্গে জোট গঠন করেছে।বর্তমানে আঠারো দলে আছে,আঠারো দলের নেতা কে? বেগম খালেদা জিয়া। তাহলে জামাতের নেতা কে? তেমনি আওয়ামীলীগ এর সঙ্গে জোট এর সময় তাদের নেত্রী কে? তাহলে জামাত শিবির ভাই কি বলবেন ?
    মদ পান, সুদ,ঘুষ ইসলামে হারাম। হারাম কে হালাল মনে করে তা পালন বা তার সঙ্গ দান করা কি?
    উত্তর আপনারাই দিন।
    আর এই দুই নেত্রীর সঙ্গে গো আজম ও বর্তমান নিজামি ও সাইদি সাহেব এর লটর পটর এর ছবি যে কোন যায়গায় পাবেন।এ গুলি একটু দেখবেন কি?

    ৩। আচ্ছা জামাত যারা করে তারা কি একটু ভেবে দেখেননা তাদের নেতা গুলি ৭১ এ যে সব অপরাধ করেছে তা কি ক্ষমা যোগ্য ? এদের নেতা দের আইন জীবীরা কি একটু ভেবে দেখেননা … এটি যদি তাদের মেয়ে,মা,বোন, চাচি ,খালা,ফুপু(ধর্ষণ) বাবা,ভাই,ছেলে,মামা,দাদা,চাচা(হত্যা) দের সঙ্গে হত তারা কি করত?
    জামাতের আইন জীবীদের পরিবারের কাওকে ধর্ষণ করে তাকেই আইনজীবী হিসেবে ভাড়া করতে হবে।১০০% তারা রাজি হবে।তা না হলে তারা এখন কেমন করে জামাত নেতাদের আইন জীবী হিসেবে কাজ করছে। তারা তখন বুজবে ৭১ এর সে সব বাঙালি রমণীর জালা।আচ্ছা জামাতিদের মহিলারা তো ৭১ এর মহিলাদের ব্যথা বোঝার কথা ?
    কই একবারও কোন জামাতিদের বউ মেয়েরা তাদের বিরুদ্ধে কোন কথা বলেছে ? আজীব এদের অবস্থা এদের অবস্থান…………………।

    ৪। আলকাইদা ও জামাতের মধ্যে মিল কি?

    @ এরা দুই মনে করে এরা ইসলামের ধারক ও বাহক।
    @এরা দুই ইসলামের দল হিসেবে প্রচার করে।
    @দুই ইসলাম কে সামনে রেখে তাদের স্বার্থ হাসিল করে।
    @এরা দুই মানুষ খুন করে ইসলামের নাম ব্যবহার করে।
    @দুই এর প্রচুর মানি পাওয়ার ।
    @দুই এর প্রচুর অন্ধ ভক্ত ।
    @দুই দলই মানুষ কে দলে ভিড়াই মগজ ধোলাই করে ইসলামের জিহাদের বা আইন এর অপবেখ্যা করে।
    আরও অনেক আছে…। আপনারা খুঁজলেই পাবেন।

    এখন আপনারায় বিচার করুন।
    তবে হাছিনা সরকার যে ভাবে শিবিরদের মারছে। এর বিরুধিতা আমি করছি। আমি দেশের এক জন নাগরিকে বিনা বিচারে মারার বিরুধি।
    এমনি ভাবে জামাত শিবিরের সন্ত্রাসী আচরণ এবং তাদের দ্বারা সংঘটিত হত্যা এবং রগ কাটারও তীব্র প্রতিবাদ করছি।

মন্তব্য করুন

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ