ক থেকে চন্দ্রবিন্দু

তৌহিদ ১ জুন ২০১৯, শনিবার, ০৫:২৮:২৫অপরাহ্ন অন্যান্য ৩০ মন্তব্য

(ক-ঙ)
কুঞ্জলতার কুঞ্জে আলেয়া হয়ে ডেকেছিলো যে কুহক,
খেয়ালী মনের অবগাহনে নিজেকে আজ করেছে সমর্পন।
গড়েরমাঠে গোল্লাছুটে ছুঁয়ে দেয়া যুবকের সে হাত;
ঘরের মেঝেতে আঁচল বিছিয়ে,
ব্যাঙের কোলাহলে মাখামাখি একজোড়া কপোত-কপোতী।

(চ-ঞ)
চঞ্চল মনের কুহুডাকে সাড়া দিয়ে,
ছন্দে ছন্দে হৃদপিন্ডটা বারি খায় ধুকধুক শব্দে-
জন্ম যেন স্বার্থক হয়েছে এ ধরণীর বুকে।
ঝিমিয়ে পরা যৌবন প্রকম্পিত হয় বিদ্যুৎবেগে,
বঞ্চনা নয়; বেহুলার ঘরে ওৎ পেতেছে সূতানলী গোক্ষুর!

(ট-ণ)
টগবগে যুবতীর গালে মৃদু টোল পরে,
ঠনঠনে উঠোনে ঝুমুর বাজিয়ে মাতে উর্বশী নৃত্যে।
ড্যাবড্যাব নেত্রে চেয়ে থাকা যুবকের পাণে;
ঢাকা লাজলজ্জার সমস্ত বাঁধন হয় ছিন্ন,
ণত্ব-বিধানের নিয়ম ভেঙে শুরু করে রাসলীলা।

(ত-ন)
তারপর! তপ্ততার রেশ কেটে যায় যুবকের
থমকে ওঠা বিবেকের হাতছানি ডাক দেয়,
দগদগে গ্লানিতে হয় নিমজ্জিত।
ধুরন্ধর গোক্ষুরের ধোঁকাবাজিতে…
নুয়ে পরেছে সে অবলীলায়; অক্ষমতার আবডালে।

(প-ম)
পরাক্রান্ত যোদ্ধার আহাজারিতে বিদীর্ণ আকাশ
ফেণীল সমুদ্রের ঘোলা নোনাজলে-
বলীয়ান হয়েছিলো যে লজ্জাবতী শামুক,
ভয়কে জয় করে সে আজ বেড়িয়ে পরেছে খোলস ছেড়ে;
মৃত্যুঞ্জয়ী অবাধ্য প্রেমের বাউলা টানে।

(য-শ)
যবনিকা টানার সময় ঘনিয়ে আসে
রক্তাক্ত দাঁড় দুটি দিয়ে গন্ধ শোকে বাতাসে;
লালাঝড়া ঠোঁটে ঠোঁট মিলিয়ে করে শেষ চুম্বন।
বিহব্বলতায় আক্রান্ত পরিযায়ী কুহক ;
শব হয়ে লুটিয়ে পরে বালিয়াড়ির বুকে।

(ষ-র)
ষাট গম্বুজ অট্টালিকার কার্নিশে,
সম্মুখ প্রহরে মুখোমুখি সে আলিঙ্গনখানি-
হয়ে উঠেছে এক অসম প্রেমের উপাখ্যান।
চুড়ির মৃদু ঝনঝন শব্দ কর্ণকুহরে কম্পমান;
রুঢ় বক্ষে বাণ ডাকা কুঞ্জ নুয়ে পরে অবলীলায়।

(য়-চন্দ্রবিন্দু)
আয়নার প্রতিচ্ছবিতে আজ বিষাদের ছায়া
জগৎ সংসার ছেড়ে বৈরাগীবেশে;
ফড়িংয়ের রুপ ধরে ওড়ে শুধু এ ডালে সে ডালে।
নিঃশ্বাস থেমে আসছে লক্ষীন্দরের…
চাঁদের গায়ে বেহুলা নিজ হাতে আঁকছে কলঙ্কের কালো দাগ।

(ব্যঞ্জনবর্ণের ক্রমানুসারে ক খ গ ঘ ঙ এভাবে প্রতিটি অক্ষর দিয়ে প্রত্যেকটি লাইন শুরু হয়েছে। ব্যঞ্জনবর্ণ মনে রাখা তেমন কঠিন কিছু নয়। একটু চেষ্টা করলেই কিন্তু সম্ভব।)

৩৪৮জন ১৬৯জন
37 Shares

৩০টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ