আজ সন্ধ্যায় যখন থানা থেকে ৫০গজ দুরত্বে একে একে ৫টি শক্তিশালী ককটেল বিস্ফোরনে পুরো এলাকা প্রকম্পিত হলো, আমি ঠিক তখন তার ১০গজ আগে ফুটপাথ ধরে বাসায় ফেরার পথযাত্রী। পিছনে থানার দিকে তাকিয়ে দেখলাম স্ট্যাচুয়ের মত পুলিশদের ভাবলেশহীন মুখচ্ছবি। যেখানে কিছুদিন আগেও যে কোন ত্রাসসৃষ্টিকারী কর্মযজ্ঞের বিরূদ্ধে পুলিশ বাহিনীর কর্মতৎপরতা ইতিবাচক ছিল সেখানে তাদের এমন নির্লিপ্ততা দেখে নিজেকে কোন ভাবেই নিরাপদ করছি না। যে সরকার একান্ত নিজেদের প্রয়োজনে কৌশলগত কারনে পুলিশ বাহিনীকে নিয়ন্ত্রণ করে, আপাত দৃষ্টিতে আমার কাছে মনে হয় সে সরকার জনগণের নিরাপত্তা দিতে ব্যর্থ। এই ব্যর্থতার বিপরীতে বেড়ে উঠছে ত্রাস কিংবা সন্ত্রাসের বীজমূল। সম্ভবত সে কারনেই হরতালের দিনে ৪/৫ বছরের ছিন্নমূল ৩ ফুট উচ্চতার শিশু ৪ ফুট লম্বা লাঠি নিয়ে ইদানিং ভ্যান/রিক্সা/সাইকেল অবলিলায় ভাংচুর করতে দেখি, কাঁচামাল ভর্তি ভ্যানের চাকার বাতাস ছেড়ে দিয়ে মজা পেতে দেখি। ব্যক্তিগত ভাবে আমি যে কোন পার্টির ‘হরতাল’ নামের অপকর্মকান্ডকে ‘জনদুর্ভোগ’ নামে ডাকি কেননা দেশ ও জনগণকে উদ্ধারের নামে যারা পলিটিক্স করেন তাদের সিংহভাগকেই আমাদের মত খেটেখুটে/চাকরী-বাকরী/ব্যবসা-বাণিজ্য করে খেতে হয় না। যেকোন ক্ষমতালোভী পলিটিক্যাল পার্টির নেতা থেকে কর্মীকে সরাসরি কিছু না করলেও চলে, শ্রমজীবি/কর্মজীবি মানুষদের ঘাম ঝরানো পয়সার প্রকারান্তে বৈধ/অবৈধ পার্সেন্টেজে তাদের চা-পান-পানি-পানিয়/ ঘর-সংসার/ রাজনীতি চলে। রাজনীতির নিন্দুকেরা একে পেটনীতিও বলে। এই পেটনীতিই (আকারে/প্রকারে বিভিন্নতা সহ) গ্রাস করছে পুরো দেশ,সমাজ ও জাতিকে।
আপনি যে দলের সমর্থক/অন্ধসমর্থক হোন না কেন আপাতাত আপনার কাছে একটা অনুরোধ, একট মিনিট নিরবতা নিয়ে ভাবুন – আপনার দলের রাজনীতিতে কতটুকু নীতি আছে? আপনার দল নাগরিক হিসেবে আপনাকে (ক্ষমতায় থেকে এবং না থেকে) কী দিচ্ছে? কোথায় চলেছে প্রাণপ্রিয় শান্তির স্বদেশভূমি!!

১৭৭জন ১৭৭জন
0 Shares

৬টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ

লেখকের সর্বশেষ মন্তব্য

️️ 🍂️️ 💝 ️️ 🌟 🌺 💐 💥 🌻 🍄 🌹 💐 ⭐️ 🎉 🎊