কিন্তু…..!//

বন্যা লিপি ২২ অক্টোবর ২০২০, বৃহস্পতিবার, ১২:৪০:১১পূর্বাহ্ন অণুগল্প ৩৫ মন্তব্য

বাস ষ্টেসনে এসে অপেক্ষা করাটা ভীষণ বোরিং লাগে। বার বার ঘড়ি দেখা। কতক্ষন পরপর যাত্রী ছাউনীর ওপারে রাস্তায় নজর চলে যায়। এই বুঝি এলো পথের বাঁক ঘেসে চাকার কর্কশ শব্দ আর ভেঁপু বাজিয়ে। ১০ মিনিটের যাত্রাবিরতির ফাঁকে এই ষ্টেসনের জনা বিশেক যাত্রী নিয়ে বাস ছুটবে ঢাকা ছেড়ে দক্ষিনাচঞ্চলের পথে। এবার একাই যাচ্ছি বরিশাল। সঙ্গী সাথীরা আগেই চলে গেছে। এনজিওর কাজে মাঠ পর্যায়ের কাজে এবার যেতে হচ্ছে প্রত্যন্ত গ্রামে। একটা ছোটখাটো দুঃশ্চিন্তা  ছাড়া আর কোনো অস্বস্তিবোধ হচ্ছেনা এই একা যাত্রায়। পাশের সিটে  কোনো বিরক্তিকর যাত্রী না উঠলেই দীর্ঘ পথ নির্বিঘ্নে পার হওয়া যাবে। সাড়ে ন’টায় বাস এসে ৯:৫০এ যাত্রা শুরু । জানলার কাছেই সিট পাওয়াতে খুশিতে চনমন করে দুলাইন মনে মনে রবীন্দ্রনাথের গীত গেয়ে উঠলাম। আব্দুল্লাহ্পুর পর্যন্ত পাশের সিট খালি। ১০ মিনিটের যাত্রাবিরতি এখানেও। নেমে শুকনো কিছু খাবার আর কোল্ড ড্রিংকস নিয়ে নিলাম। বাস এবার বিরতিছাড়াই চলবে আরিচা পর্যন্ত। কানে হেডফোন গুঁজে চোখ বন্ধ করে গানে ডুবে গেলাম হইহট্টগোলের হাত থেকে কান শব্দ দূষনের  রক্ষার্থে। কিছুক্ষনের মধ্যে চলতে শুরু করলো বাস।

টের পাচ্ছি পাশের সিট কারো দখলদারিত্বে চলে গেছে। ভ্রুক্ষেপ ছাড়াই নির্বিকার রইছি।

হঠাৎ অকারনে অস্বস্তি ফিল করছি, কারন বুঝতে পারছি না।

চলতি পথে এরকম এর আগেও হয়েছে, একজোড়া চোখ যখন সেঁটে থাকে আমার দিকে, না তাকিয়েও বোঝা যায়- কেউ আমার দিকেই তাকিয়ে আছে। সেরকম অনুভূতি বন্ধ চোখে দেখতে পাচ্ছি। গানে আর মন নেই,

কান নেই। হেডফোনের বাটন চেপে অফ করে রাখলাম গান। মাথা পেছনের সিটে এলিয়ে দিয়ে চোখ বন্ধ করে আছি চুপচাপ নির্বিকার।

: আমি কিন্তু আপনাকে দেখতে পাচ্ছি…

– তো?

: আমরা সহযাত্রী

– তো? পরিচিত হবার কোনো দরকার দেখিনা।

: আপনি এখনো চোখ বন্ধ করেই কথা বলছেন।

– আপনিও চোখ বন্ধ রেখে গান শুনুন বা নিজের ভাবনায় ডুব দেন।

: আপনি কী এভাবেই কথা বলেন কোনো অপরিচিতের সাথে?

– আমিও আপনাকে একই প্রশ্ন করতে পারি!

: করো, চোখটা খুলে প্রশ্নটা করতে পারো কিনা দেখো!

আপনা থেকেই চোখ খুলে গেলো।

— কতটা সময় মাঝখান থেকে নাই হয়ে গেছে গুণে বলতে পারবে?

: তবুও নদী আজো নদীই রয়ে গেছে, যেমন বদলে যায়নি আকাশ!

— কিন্তু…..

: এবার মাঝখান থেকে সরে যাবার সময় হয়েছে এই ‘কিন্তু’ নামক যুক্তাক্ষরের।এসো তুমি- আমি দুজনেই সরিয়ে দেই এই ‘কিন্ত’ টাকে।

বাস ছুটছে একটা দীর্ঘ পথের শেষে গন্তব্যে পৌঁছুবে বলে…..।

৩৯০জন ৬৭জন
0 Shares

৩৫টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ

লেখকের সর্বশেষ মন্তব্য

সাম্প্রতিক মন্তব্যসমূহ