কিছু মেয়েরা নিজের স্বার্থে কত নিচে নামতে পারে জানেন? তবে শুনুন।

সেদিন আমার ইমার্জেন্সিতে বিকাল ডিউটি ছিলো।
হাসপাতালে একটা মেয়ে আসল ২০-২২ বছর বয়স হবে। দেখতে ভালোই। তার আবার শীলা কি জাওয়ানি। মানে নাম শীলা। সাথে দুটো মহিলা পুলিশ।

মেয়েটা কারও উপর Rape কেস করেছে আর তার সুবাদে টেস্ট করার জন্য হাসপাতালে পুলিশ সহ এসেছে। তার ভ্যাস দেখে আমিই টাসকিত! এমনভাবে বলছে যেন Raped হওয়াতে তার ভাল লাগছে।

গাইনি ম্যাডাম কিছু টেস্ট দিল। টেস্ট করার পর দেখা গেল মেয়েটা কুমারি(!!!)
ম্যাডাম আচ্ছা মত বাঁশ দিল। মেয়েটা শেষ পর্যন্ত ম্যাডামের পাঁ চেপে ধরল। এবার উঠে মেয়েটা বলল যে ঐ ছেলেটার পরিবারের সাথে এদের পরিবারের পুরোন পারিবারিক সমস্যা। তাদের ফাঁসানোর জন্যই এই কেস।

ম্যাডাম ভূয়া সার্টিফিকেট দেবেই না। মেয়েটা মোটা অংকের টাকা ঘুস দিতে চাইল। ম্যাডাম তাকে দুর দুর করে তাড়িয়ে দিল।

এই ঘুষটা নিলে ডাক্তার হত মহান। আর না নেওয়ায় ডাক্তার কষাই। বাহ্ রে জনগন!

তবে নিজের স্বার্থে মানুষ যে এত নিচে নামতে পারে আগে জানতাম না। অবাক হয়ে যাই, নিজের সম্মান বাঁচাতে মানুষ ঘুস দেয় আর এ নিজের সম্মান হারানোর জন্য দিতে এসেছে।।
ধিক্কার এসব মেয়েদের।।।

২০০জন ২০০জন
0 Shares

৬টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ