‘কিছু গল্পের নাম হয় না’

মাছুম হাবিবী ২৭ মে ২০১৯, সোমবার, ০২:২৯:৫৮অপরাহ্ন গল্প ১১ মন্তব্য

রাফি আজ রাতে বারোটার ফ্লাইটে সৌদি আরব চলে যাবে। এদিকে সারা বাড়ি জুড়ে আত্মীয়স্বজন, বন্ধু-বান্ধবদের হৈচৈ। কিন্তুু আজ সকাল থেকে রাফি’র মন বিষন্নতায় ভরপুর! রাফি লক্ষ করলো তার মা চোখ মুছতে মুছতে জিনিসপত্র গোছাচ্ছেন। বাবা বাজার থেকে নতুন শার্ট, প্যান্ট কিনে এনেছেন রাফির জন্য। ছেলে বিদেশ চলে যাবে, এর ফাঁকে যা যা দরকার সবকিছু রেডি করার চেষ্টা করেছেন বাবা। রাফির ছোট বোন তুলি পাগলি বোনটা সেই দুপুর থেকে মুখ বাঁকা করে বসে অাছে। রাফির কাছেও অাসছে না। সারা বাড়ি জুড়ে কেমন একটা থমথমে ভাব!!

সন্ধ্যা হয়ে এলো রাফি’র চোখদুটি লাল হয়ে অাসছে! আজই এই বাড়ি ছেড়ে অনেক দূর চলে যাবে রাফি! মা-বাবা, ভাই-বোন, বন্ধু-বান্ধব সবাইকে ছেড়ে থাকতে হবে একা একা। রাফি’র ইচ্ছে হচ্ছে চিৎকার করে কাঁদতে কিন্তুু পরিবার অার অভাবের কালো মিছিলে রাফির কাঁন্নাটা যেন কিছুই নাহ! রাফি চোখ মুছতে মুছতে মাকে জড়িয়ে ধরলো। মা হাউমাউ করে কাঁদতে লাগলো! রাফি মায়ের কাঁন্না দেখে জোড়ে জোড়ে ফুঁপাচ্ছে। তারপর যখন বাবাকে জড়িয়ে ধরলো। বাবার শক্ত শরীরটা নিমিষেই কেমন জানি শীতল হয়ে গেল! রাফির বাবা চোখ মুছছেন। কিছুতেই বুঝতে দিচ্ছেন নাহ উনারো কষ্ট হচ্ছে। ছোটবোন তুলিকে জড়িয়ে ধরলো রাফি, পাগলি বোনটা হাতে কামড় দিয়ে জোড়ে জোড়ে বলছে ‘ছাড় আমারে, তুই অামার ভাইয়া নাহ! তুই কথা কবিনা, যদি ভাইয়া হতি থ্যাইলে এভাবে চইল্লা যাইতি নাহ ছাড় কইছি, ছাড় অামারে! রাফি কাঁন্না করতে করতে বাসা থেকে বের হল। সারাটা পথ সে গুমড়ে গুড়মে কেঁদেছে, কাওকে বুঝতে দেয়নি সবাইকে ছেড়ে যেতে তার কতটা কষ্ট হচ্ছে।।

 

একটুপর রাফির ফ্লাইট। হয়তো অার কিচ্ছুক্ষণ পরই বিমানে উড়ে দেশ ছেড়ে বিদেশে চলে যাবে রাফি। এদিকে রাগি বাবাটা বিমানবন্দরের দরজার সামনে দাঁড়িয়ে চোখ টেনে টেনে কাঁদছে। রাফি কখনো তার বাবাকে এভাবে কাঁদতে দেখেনি! আজ কেন যে রাগি, পরিশ্রমী মানুষটা এভাবে কাঁদছে তা হয়তো পৃথিবীর সবাই জানে। রাফি অনেক্ষণ ওর বাবার দিকে তাকিয়ে অাছে। তারপর দৌঁড়ে গিয়ে অাবার জড়িয়ে ধরে কাঁন্না জুড়ে দেয়। সাথে আসা বন্ধুরা অনেক বুঝিয়ে রাফির কাঁন্না থামায়। তার কিচ্ছুক্ষণ পরই গুড বায় বাংলাদেশ বলে প্রিয়জনদের ছেড়ে জীবিকার তাড়নায় বিদেশ চলে যায় রাফি!!

৭৪৪জন ৬৩১জন
10 Shares

১১টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

লেখকের সর্বশেষ মন্তব্য

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ