কাসুন্দি ।

বায়রনিক শুভ্র ১৭ এপ্রিল ২০১৭, সোমবার, ০১:৪৭:৩৪অপরাহ্ন গল্প ১৬ মন্তব্য

আমি তো আজীবন খ্যাত । স্মার্ট মানুষজন এই কারণে একটু এড়ায় চলি । কারণ তাদের সাথে আমার ঠিক যায় না । কিন্তু এমুন কপাল শেষে কিনা প্রেমে পড়লাম লুতুপুতু শো পিস টাইপের এক আহ্লাদী মাইয়ার সাথে । আর্থিক বিচারে তারা আর আমরা প্রায় সমান সমান হলেও তার ব্যবহৃত একটি লিপিস্টিকের যা দাম সেই দামে এখনো একটা প্যান্ট আমি কিনতে পারি নাই । যাই হোক প্রথম প্রথম যখন তার সাথে আমার প্রেম শুরু হইল তখন ডেটে যাওয়ার আগে একটু ফিটফাট হয়ে যাওয়ার চেষ্টা করতাম । যেমন ধরেন ঘাম ও বিড়ির দুর্গন্ধ মুক্ত টি-শার্ট পরতাম , শার্ট পরলে তার ভাজ ঠিক আছে কিনা খেয়াল রাখতাম । রঙ ওঠা প্যান্ট না পরে একটু কম পুরানো প্যান্ট পরতাম , ইত্যাদি ইত্যাদি । ভদ্রলোক নাকি চেনা যায় জুতায় । আর আমার জুতা আজীবন হয় ছেড়া থাকবে না হলে ধুলায় মলিন থাকবে । একদিন তো ওই বালিকা খোলাখুলি বলেই দিল “আপনার পা দেখলে মনে হয় ধান কাটার কিষাণ” । যাই হোক এই বানী শোনার পর থেকে স্যান্ডেল সব সময়ে পরিষ্কার করে তার সাথে দেখা করতে যেতাম ।

প্রথম অবস্থায় উক্ত লুতুপুতুকে যথেষ্ট ভয় পেতাম । কি পছন্দ করে না করে সে ব্যাপার সব সময়ে হুশিয়ার থাকতাম । আর এই সময়ে আমার ধূমপান পুরোপুরি নিষিদ্ধ ছিল । যদিও সময়ের সাথে সাথে উক্ত বালিকা নিজেই আমাকে সিগারেট কিনে দিয়েছে , তবে প্রথম দিক দিয়ে সে আমার সিগারেট একদমই সহ্য করতে পারত না । আর আমিও তার সাথে দেখা করার কমপক্ষে ২ ঘন্টা আগে থেকে ধূমপান বর্জন করতাম,ভয়ে । তখনো আমাদের প্রেম ওই হাত ধরা পর্যন্তই সীমাবদ্ধ ছিল ।

একদিন ঠিক হল আমরা দুজন রিকশায় ঘুরব । কিন্তু কেন জানি না সেদিন খুব টেনশন হচ্ছিল আমার । হাত পা কাপতেছিল । বুকের মধ্যে খুব বেশি ঢিপ ঢিপ করছিল । আর এই টেনশনের গুতোয় বালিকা আসার মাত্র এক ঘন্টা ধুম করে একটা সিগারেট ধরিয়ে ফেললাম । এতে টেনশন তো কমলই না , উল্ট বিড়ির ঘ্রাণ পাইলে কি থেকে কি হয় তাই ভেবেই ঘেমে উঠছিলাম বার বার । ফলাফলে চুইংগাম,চকোলেট সব এক সাথে মুখের মধ্যে নিয়ে চর্বন করতে থাকলাম । আমার অবস্থা দেখে বন্ধু মঙ্গল কইল “পান খা,পুলিশ হইলেও ঘেরান পাবে না” । এই শুনে দোকানে পান কিনতে যাবো ঠিক সেই সময়ে বালিকার ফোন “হ্যালো,আমি বটতলায়,ছায়ারানীর মেসের সামনে রিকশায়” । পান কেনা আর হইল না । ছুটলাম বালিকার উদ্দেশ্যে ।

রিকশায় উঠলাম । হুড তোলা রিকশায় । কারণ আমাদের হাতের তালুর মত শহরের প্রতিটি অলিগলিতে পরিচিত মানুষে ছয়লাব । আর প্রেম বাংলাদেশে কোন মধুর বিষয় না , এটা সম্পুর্ন একটি অপরাধ । যাই হোক পরিচিত জনের চোখ বাঁচিয়ে হাই ওয়েতে গেলাম । রিকশায় এই মাথা থেকে ওই মাথায় চক্কর দিচ্ছিল । আর আমরা স্বল্প সাউন্ডে সমানে কিচির মিচির করছিলাম ।

সময়টা এরকমই গ্রিষ্মের সকাল । ফাঁকা হাই-ওয়েতে উথাল পাথাল মাতাল হাওয়া । চকচকে রোদ,মসৃণ পিচ-কোটেড রাস্তায় দূরে মরীচিকা দেখা যায় । এক পাশে চেচানিয়াকান্দির হালকা হলুদ হয়ে আসা বিল আর নিচুপাড়ার ওই সাইডটা তখন বাড়িঘর দখল করতে পারে নি । এর মধ্যে আমি হঠাত করে বালিকার ঠোঁটে একটি চুমো দিয়ে দিলাম , তারপরে আরেকটা,তারপরে আরেকটা । ঠোঁট দুইটি বালিকার ঠোঁটে গুজে দিলাম । আকস্মিক এই দুর্যগে বালিকা নিজেকে ছাড়িয়ে নিল । না, সিনেমার নায়িকার মত চড় মারল না । শুধু ধ্যাত বলে মুখটা অন্যদিকে ঘুরিয়ে নিল । মনে হচ্ছিল আমার হার্ট কাঁচা বাঁশের খাচা ভেঙে বেরিয়ে আসবে । এদিকে নিজেকে অপরাধী মনে হচ্ছিল । কাজটা ঠিক করলাম না মনে হচ্ছিল । বালিকা মুখ ফিরিয়ে রেখেছে আবার কথাও বলছে না । মানে শিওর সে রাগ করেছে । আমার প্রেমটা বুঝি এইবার ভেঙ্গেই গেলো । আক্ষরিক অর্থেই কাঁদো কাঁদো ভয়েসে বালিকাকে বললাম “সরি,ভুল হয়ে গেছে । আই কান্ট কন্ট্রোল মাই-সেলফ” । কথাটার মধ্যে একটুও মিথ্যা ছিল না । এর আগেও আমি বহুবার বালিকার সাথে নির্জনে সময় কাটিয়েছি । বাট এরকম আচমকা চুমো বালিকাকে এই প্রথম এবং কাউকে চুমো খাওয়াও আমার জীবনে এই প্রথম ।

বালিকা আমাকে ক্ষমা করবে কিনা বুঝতে পারছিলাম না । আর এইভাবে রাস্তায় বসে চুমো খাওয়াটা নিশ্চয়ই অসভ্যতা । ইত্যাদি ইত্যাদি ভেবে আমার অবস্থা আরও কাঁদো কাঁদো হচ্ছিল । এই অবস্থায় বালিকা মুখ ঘুরিয়ে আমার অপ্রস্তুত মুখে উল্ট আরেকটা চুমো একে দিল । জাস্ট ভ্যাবাচ্যাকা খেয়ে গেলাম । কি হল !!! রাগ হইল আবার চুম্মা দিল !!! ক্যান ? ক্যান ? ক্যান ? আমার ভ্যাবাচ্যাকা অবস্থা কাটার আগেই বলল “এভাবে কেউ করে ? কেউ যদি দেখে ফেলত?আজকে আর না , ঠিক আছে?

উপসংহারঃ রিকশা থেকে নামার আগে আমাকে বলল “আপনি সিগারেট খাইছেন,তাই না?” “সাবধান এরপরে সিগারেট খেয়ে আর আমার কাছে আসবেন না” ।

মোরাল অব দি স্টরিঃ মা,বোন,বৌ,প্রেমিকাদের নাক খুব সেন্সেটিভ । ফোনে কথা বলার সময়েও এরা সিগারেটের গন্ধ পায় ।

(এটা একটি গল্প,এর সাথে জীবিত কারো কোন সম্পর্ক নেই)

২৮৭জন ২৮৫জন
0 Shares

১৬টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ

লেখকের সর্বশেষ মন্তব্য