কাঁকনবালার হাট

রেহানা বীথি ১৯ জুলাই ২০১৯, শুক্রবার, ১০:১৭:১৫পূর্বাহ্ন একান্ত অনুভূতি ১৮ মন্তব্য

কাঁকনবালার হাট
***********************
ভেলা ভাসায়নি নইমুদ্দী দিনকয়।
মনের মধ্যে আকুলিবিকুলি, মনে পড়ে জোনাকিবাড়ির ঘাট।
চারিদিক শুনশান, মাটির মালশায় পান্তার সুবাস         নিঃশ্বাসের সাথে ভেলার ঢেউয়ে বাতাসে ছড়ায়।
ভেলা সোজা চলে, দূরে, নজরে আসে কাঁকনবালার হাট।
হাটের মুখে জোনাকির বাড়ি, ভীষণ ছিমছাম।
মাটির ঢিবিতে চাঁপা ফোটে, সন্ধ্যামালতীও।
নিকোনো উঠোন, উঠোনে পাতিলেবু, তারপাশে নিম।
বৃক্ষের নিচে গতর জুড়ায়, হালকা আঁচল বাতাসে ওড়ায়।
উদাস চাহনি কী যেন খোঁজে ওই সুদূরে!
ভেলা ভেসে এলে চোখে হারানোর বেদনা বোঝায়।
নইমুদ্দী বোকার হদ্দ হদিস জানে না মনের
ভাবে, কী এমন হলো, গত সেদিনের সেই হাসিমুখের?
জোনাকির আলো নিভে গেছে যেন ক’দিনের অদেখায়!
এনেছিলো একআঁটি সজনে ডাঁটা জোনাকিকে দেবে বলে।
মুখ ভার দেখে সাহস হয় না, ফেরত নেবে কি তবে?
এই ভাবনায় ডুবে আছে যখন, হঠাৎ হাতটি ধরে
জোনাকি বলে, এত দেরি, কোথায় ছিলা? মনে পড়েনিকো একবারও?
তুমি বড় বাজে, ভালোবাসো না এই আমারে একটুও।
শুনে দিশাহারা নইমুদ্দী, যার এমন রূপের বাহার
সেই জোনাকি এ কী কথা বলে, স্বপ্ন নয় তো তার!
মনের গভীরে কোথাও একটা গোপন কথা এতদিন
পুষে রেখেছিলো, বলেনি, সে যে একেবারে চালচুলোহীন।
জোনাকির বাবা বেশ স্বচ্ছল, মেয়ে দেবে কেন তাকে?
জোনাকিরই বা কী দায় পড়েছে, শ্রীহীন নইমুদ্দীকে ভালোবাসে?
সব হিসেব চলে না সোজা, বেঁকে যায় মাঝে মাঝে।
তাই তো জোনাকি অচেনা ভেলায় ভাসমান নইমুদ্দীকে
ভালোবেসে ফেলে, মনে মনে সেও, স্বপ্নকে পুষে রাখে।

২১৯জন ৮১জন
35 Shares

১৮টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ

লেখকের সর্বশেষ মন্তব্য