সোনেলা দিগন্তে জলসিড়ির ধারে

কবিতা লেকতে পারো?// ১

বন্যা লিপি ২৯ মার্চ ২০১৯, শুক্রবার, ১২:৫৯:১৪পূর্বাহ্ন একান্ত অনুভূতি ১৯ মন্তব্য

গাছের পাতা ছিঁড়ে রান্না বাটি খেলা দিনগুলো পার করে, হঠাৎই একদিন মনে করিয়ে দ্যায়, পাড়া প্রতিবেশী বা আত্মীয় স্বজন —-মাইয়া বড় হইয়া গ্যাছে, এহন আর বাইরে, মাঠে, বাগানে খেলতে দিওনা “।

বাসার সামনের মাঠ কিংবা একটু দুরে সহকারি পুলিশ সুপারের অফিস মাঠ, কোনোটাতে আর পাড়ার মেয়েরা দল বেঁধে গোল্লাছুট, দাঁড়িয়া বান্দা, ছি-বুড়ি,কানামাছি খেলতে আসেনা। গার্লস স্কুলের প্রাচীর ঘেরা আঙিনায় আপত্তি নেই। তবুও অনুমতি পেতে কাঠখড় পোড়াতে হয় অনেক। এখন ঘরে বসে লুডু, কেরাম,  পাঁচগুটি, খাতায় ছক কেটে চোর পুলিশ খেলা চলতে পারে। বাইরে মাঠে ময়দানে ড্যাং ড্যাং করা যাবেনা।

বিকেলটা এলেই সদর গেটটা ধরে শুন্য মাঠটার দিকে তাকিয়ে, কৃষ্ণচূড়া গাছটার নীচে দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে বন্ধুদের খোঁজা। —ওরা কই? বনা আর লাভলী’কে দেখা যাচ্ছে….. ওরা উল্টো দিকে কই যায়? পাশাপাশি বাসা বনা’র রাস্তার উল্টোদিকে লাভলী’র বাসা। দক্ষিন দিকের রাস্তা ধরে হাঁটছে একসাথে। দৌঁড়ে ছুটে গিয়ে ওদের সঙ্গে সঙ্গে হাঁটতে হাঁটতে প্রশ্ন করা ——- তোমরা কই যাও ওদিকে? —-“আমরা বই পড়তে যাই। =বই পড়তে মানে? কোথায় কি বই? == গল্পের বই, পাবলিক লাইব্রেরী’তে। == এইটা কোথায় কতদুর?? = ওইতো টাউন হলের নীচে!! যেন বিকেলটা কাটাবার মোক্ষম এক উপায় হাতের নাগালে পেয়ে যাওয়া। ছোটবেলা থেকেই ক্লাশের বই থেকে, আগ্রহ বেশি ছোটদের গল্পের বই, রুপকথা, কল্পকাহিনী’র প্রতি। খুশিতে চনমনিয়ে ওঠা চোখে জিজ্ঞেস করা = আমাকে নেবে? বনা=আসতে পারো। ওখানে সবাই যেতে পারে। =কোনো নিয়ম আছে নাকি? বনা=সদস্য হতে হয় আগে।=সেটা কিভাবে? বনা=আগে চলো! গেলেই বুঝতে পারবে।

কথা বলতে বলতে, গোপাল কাকা’র দোকান, মনি’দের বাসা পেরিয়ে ছোট্ট খালের পাড় হয়ে আদর্শ (পৌরসভা মাধমিক বিদ্যালয়)স্কুল, থানা কলোনী পার। বাঁয়ে মোড় নিয়ে টাউনহলের একেবারে শেষ পশ্চিম কোনার নিচ তলায় পাবলিক গ্রহন্থাগার। টাউন হলের পেছনেই খাল। খালের ওপাড়ে বাড়িঘরের ওপাশেই পৌরসভা ভবন দেখা যায়। লাইব্রেরির ভেতরে প্রবেশ করতেই তাপসদা’র উচ্চারন তাপস দাদা== এ কেডা?  নতুন সদস্য?  দে আগে পাঁচ টাকা দে, তারপর খাতায় নাম লেখ, তারপর বই নিয়া পড়তে বস্। ==রাত্রে প্রেসক্লাবে যাবেননা টেলিভিশন দেখতে?  তখন আব্বা’র কাছ থেকে নিয়েন। তাপস’দা = এইতো!!  দিলিতো ফাঁসাইয়া!!!  টাউন হলের দোতলায় দক্ষিন দিকের কোনায় প্রেসক্লাব। সেখানে রোজ তাপস’দা টিভি দেখতে যায়। মাঝে মাজে যাওয়া হয় চাচা’দের সাথে। সেজন্যই তাপস’দাকে চেনা। তাপস’দা রোজ বাসার সামনে থেকেই আসাযাওয়া করেন।

কিছুদিন যাওয়া, বই পড়া চলার পর তাও বন্ধ হয়ে গেলো। মেয়ে আরো বড় হয়ে গেছে। ছেলে ছোকরারা এখানে সেখানে আড্ডা দেয়। টাউন হলে নানান সাংস্কৃতিক সঙ্ঘটন আছে। ওখানে অনেক স্কুল কলেজের ছেলে ছোকরাদের আনাগোনা। আর যাওয়া যাবেনা।

 

চলবে ——–

৫৭৯জন ৪৪৪জন
0 Shares

১৯টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ

লেখকের সর্বশেষ মন্তব্য