কবিতা ভালোবাসি!

কবির প্রতি ও অগাধ অনুরক্তি!

আমি মনে করি কবি মানে ‘বিশুদ্ধ আত্মা’।

বিশুদ্ধতার দর্পণ প্রথমত কবিতা,

দ্বিতীয়ত কবিতা,

শেষ পর্যন্ত কবিতা!

ছোট বেলায় লোকে জানতে চাইতো, বড় হয়ে কি হতে চাও?

আমার খুব ইচ্ছে করতো বলি, ” কবিতা হতে চাই “।

না বলতে পারিনি ; এমন খামখেয়ালি চাওয়া লোকের হাসির খোরাক হবে।

তবে আক্ষেপটা রয়েই গেছে সংগোপনে,

একজীবনে গাধা, ঘোড়া আরো কতকিছুর সদৃশ্য হলাম,

কবিতা হতে পারলামনা!

হয়তো ব্যাপারটা অত সহজ ও নয়।

আজকাল একলা লাগার রোগ হয়েছে খুব!

যদি ও চারিদিকে ঘিরে আছে সহস্র জনপদ।

ভরসা এটুকুই,

খুব নিরালে পেলেই পাশে এসে বসেন ‘শামসুর রহমান’।

শুনিয়ে যান ‘ফিনিক্সের গান’।

আরও খানিকটা দূরে দাঁড়িয়ে রবী ঠাকুর গেয়ে উঠেন,

“যদি তোর ডাক শুনে কেউ না আসে…

একলা চলরে….”

একাকীত্ব হয়ে ওঠে নন্দনকানন!

নেপথ্য গুনগুন স্বরটাতো কাদম্বরী দেবীরই!

ক্রমশঃ তার পায়ের আওয়াজ ঘন হয়ে আসে, তিনি চুপিসারে সই পাতাতে চান।

আর কী লাগে?

ওহো!

জীবনানন্দের কথা না বললে ঘোর অন্যায় হবে।

তিনি হচ্ছেন সুশ্রী শ্রাবস্তীর একলার জন!

আমার মতো কাঠখোট্টার জন্য একটু বেশিই ঠেঁকে!

ছেলে বেলায় মাথায় ঝেঁকে বসা ক্ষুদিরাম আর কৈশোরের সুকান্ত গেঁথে থাকলে,

স্বদেশভূমির রুপের চেয়ে ক্ষুব্ধতাই বেশি চোখে পড়ে!

“জল পড়ে, পাতা নড়ে ” শব্দগুলো হয়ে উঠে বিদ্ঘুটে!

জীবনানন্দও কিছুটা বিলাসিতাই বটে!

বুক সেলফে তাকে যত্নে সাজিয়ে রাখি,

মনে মনে বনলতার পোট্রের্ট আঁকি!

আহা!

যদি অমন কোমল নরম কবিতা হতে পারতাম!

১৮২জন ৫৯জন
0 Shares

৬টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

লেখকের সর্বশেষ মন্তব্য

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ