এ রেশ কাটবে না সহজে

রেহানা বীথি ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২০, মঙ্গলবার, ১২:৩০:০৬অপরাহ্ন একান্ত অনুভূতি ২৮ মন্তব্য

পৌঁছে যেতে হবে দুপুর একটার মধ্যেই, এই লক্ষ্য সামনে নিয়ে বেরোলাম ঢাকার উত্তরা থেকে। যানজট পেরিয়ে সময়মতো পৌঁছাতে পারবো তো? মনে ভয় ছিল। নাহ্, অপছন্দের শহর ঢাকা সেদিন আমাকে নিরাশ করেনি। নির্ধারিত সময়ে পৌঁছে গেলাম আমাদের মিলনমেলায়। পৌঁছেই পেয়ে গেলাম সুপায়ন বড়ুয়া দাদা এবং মাহবুবুল আলম ভাইকে। আমরা মিয়া-বিবি তাঁদের সাথে কুশল বিনিময় করে বসে পড়লাম। তখনও অন্যান্যরা আসেননি। অতএব অপেক্ষা। কিছুক্ষণ পর একে একে আসতে শুরু করলেন সবাই। তবু যেন নিষ্প্রাণ। একপর্যায়ে জিসান ভাইয়া, ছাইরাছ হেলাল ভাইয়া, মমি ভাই, ইঞ্জা ভাইয়া এলেন। হঠাৎ করেই যেন কিছুটা প্রাণ সঞ্চার হল মিলনমেলায়। কিন্তু আমি বাদে ব্লগের লেখিকাগণ তখনও অনুপস্থিত। আরে বাবা, যে কোনও জায়গায়, যে কোনও অনুষ্ঠানে কি রমণীকূল ছাড়া পুরোপুরি প্রাণসঞ্চার হয়? হয়ওনি। অবশেষে যখন বন্যা আপু, সুরাইয়া পারভীন আপু, সুপর্ণা ফাল্গুনী আপুসহ অন্যান্য আপুদের আগমন ঘটল, যেন ষোলকলা পূর্ণ হল। কিন্তু আমাদের আরও যে আপু এবং ভাইয়ারা আসতে পারেননি নানা জটিলতায়, তাদের জন্য মনের ভেতর খচখচানিটা রয়েই গেল।

যাইহোক, পরিচিত হলাম সকলেই। লেখা পড়ে আর ছবি দেখেই যাদেরকে চিনি, সামনাসামনি তাদের সাথে আলাপ হয়ে ভালো লাগলো ভীষণ। আলাপ-আলোচনা জমে ওঠার পরপরই আমরা কেউ কেউ পুরস্কৃতও হলাম। সোনেলা তার পরিবারের সদস্যদের সাথে ভাগ করে নিল আগামীর কর্মপরিকল্পনা। সবশেষে মুখরোচক খাবারের স্বাদ গ্রহন করে শেষ হল মিলনমেলা। মিলনমেলা শেষে সবাই মিলে বইমেলায় গিয়ে সদস্যদের প্রকাশিত বইগুলো ছুঁয়ে দেখার মাধ্যমে যেন পূর্ণতা পেল এ মিলনযজ্ঞ। ভালোলাগাটুকু সঙ্গী করে ফিরে এলাম। এ ভালোলাগার রেশ কাটবে না সহজে। ভালো থেকো সোনেলা, ভালো থাকুক তোমাকে ভালোবাসার মানুষেরা।

২১২জন ২৫জন
20 Shares

২৮টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ

লেখকের সর্বশেষ মন্তব্য