এক প্রকারের নিরীশ্বর অভিযোগ

দেবজ্যোতি কাজল ১০ জানুয়ারী ২০২০, শুক্রবার, ০৪:৫০:০১অপরাহ্ন সাহিত্য ১৩ মন্তব্য

 

ভাদর এসেছে , কুকুরদের মেলা খেলা দেখে আন্দাজ করা যায় | কি চরম সুখ আটকে আছে তল পেটে | দু-দিক থেকে টানাটানি ছায়াতুর মোহ | স্নেহপ্রতিম ঢেউ ,ক্ষতের লোভ | তবুও টানা হেঁচড়া , সমূহ ডুবে যাচ্ছে বুঝা যায় না | হ্যাঁ , যায় না …যায় না ; ভাদর থেকে ভাদর | পাঁচ থেকে পাঁচ বছর | ধর্ষক থেকে ধর্ষিতা | খুনি থেকে রক্ত | এভাবে পালক প্রাণ ছিঁড়ে পড়া| সকালবেলা উষ্ণ শীতে জানান দেয় ; এখন আমরা বসন্ত মুঠোভর্তি মৃদুভাষী  | বুকের মধ্যে কেঁদে ওঠা আমাদের মরণুত্তর প্রশ্ন । ঈশ্বর কি মৃত মস্তিষ্কের বিশ্বাস ? ভাদর আসে , ভারদ যায় । এক আকাশ বীর্য্য মেঘ নিয়ে । আমাদের ভাদর , কুকুরপাল চক্রান্ত খোঁজে | খোঁজে আশালতার লালায়িত অব্যক্ত আশা । ওরা এখন অনেক কিছুই বলে বটে |কিন্তু বিচার করে কিছু বলে না । মুখোশি চামড়া রোদে শুকিয়ে ,দো’পায়াদের মত | ওরা এখন অনেক পথ হেঁটে চলে | ভাদর আসে ভাদর যায় , তল পেটের সভ্যতায় । স্ববিরোধী বাদামি দেওয়াল ; ওপাশে দরজা খোঁজে | ওখানে কে ! কে ওখানে !!  বলে চিৎকার করে । মধ্যাহ্ন মেঘ অন্ধকারে| ইসস্তত | কর্কটক্রান্তি | তবুও দু’পায়ে দাঁড়িয়ে বুদ্ধি খুঁজি | গোপনতর বাদামি বুদ্ধি | বেশ । কান পাতো ! দেখো শুনতে পাও-কি-না | সমাজ কেমন আছে । সামনে হলুদ পোকার বেলয়াড়ী মঞ্চ | ভাওতা দিচ্ছো … আরে ভাওতা বার্তা দিচ্ছে | তখন তো সবি ভুল ছিল | এখন ভুলের ভুল | পারও বটে | তখনকার সব , এখনকার গা ঝাড়া দেওয়ালের ড্রাই-ওয়াশ | অনাদর দু’চোখ শঙ্খিনী | অঢেল ক্লান্ত | তবু মানুষ বদলে দুবেলা নাটক দেখে | ত্রিশঙ্কূর | ওদের চোখ পোড়া মাটি হয়ে গেছে | প্রিজম |. ঝিনুকের মত বন্ধ | বিপন্নতার ব্যাখ্যা দিতে পারে না |. পোড়া ঠোঁট ঘুমটার ফাঁকে অন্ধ শব্দে ভাষা হারায় – ক্যাসিওপিয়ার আকাশে | চলো , আমরা মোমে মোড়া ঘুমন্ত শিশুর চোখে চুমু খায় | বাঁধাহীন তন্দ্রা , হিজল সমাজ , যেখানে ভাদর- কুকুর নেই , নেই টানাটানির মলিন বিষ | ওই পাহাড় ,বন্দি হয়ে থাক কংক্রিট জেলখানায় |

১৯৪জন ৬৮জন
19 Shares

১৩টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ

লেখকের সর্বশেষ মন্তব্য