এক কৌটো ভালোবাসা।

শিরিন হক ১৭ জুলাই ২০১৯, বুধবার, ০১:৫৮:০১অপরাহ্ন একান্ত অনুভূতি ২৮ মন্তব্য

টক, ঝাল,মিষ্টি শুনলেই জিভে জল মানে আচার।
কেউ আবার ভালোবাসার মধ্যে টক ঝাল মিষ্টি খোঁজে তা নাইবা বললাম। আচারকে ঘিরে ভালোবাসা প্রতিটি বাঙালি মনে, খেয়ে বা খাইয়ে।

ছোট বেলায় মায়ের হাতের আচার আজো জিভে পানি এনে দেয়। এখনো মা আচার বানিয়ে পাঠান ঠিকই, স্বামী আর সন্তানদের জন্য সে আচার ভাগে জোটে না, তবুও ভালোবাসার স্বাদ ঠিকই পাই।

সংসার জীবনে এসে আত্মীয় স্বজন পরিবার কে আচার বানিয়ে খাওয়াতে ক্লান্তি নেই কারণ কাউকে কিছু বানিয়ে খাওয়াতে ও একটা সুখ আছে।

মেয়েদের কমবেশি এ সুখ সবার ই আছে। তবে পুরুষের মধ্যে একটু কমই আছে। কিছু মানুষ ব্যাতিক্রম যারা মানুষের খুশিতে নিজে খুশি হন। তেমনি এক কৌটো আচার পাঠিয়ে ছাত্রী কে চমকে দিতে কম মানুষই পারে।

আজ সকালে আমার শ্রদ্ধেয় শিক্ষক আমাকে তেমনি সারপ্রাইজ দিলেন যা ভাবতে পারিনি কোনোদিন। অনেক দিন যোগাযোগ নেই স্যারের সাথে। আজ হঠাৎ একটা ফোন, আপা একটা পার্সেল আছে নিয়ে যান। ভাবলাম কে পাঠালো? প্যাকেট খুলতেই দেখি আচার। হঠাৎ মনে পড়লো কোনো একদিন বলেছিলাম, স্যার আচার বানালে যেনো পাই। যে কথা সেই কাজ।
স্যারের হাতের আচার! এ যেন আচার নয় পরম আদর স্নেহ ভালোবাসা ভরা একটা কৌটো। আলোকিত মানুষ গুলো সত্যি এতো ভালো হয় আজ বুঝলাম।

আজ নিজেকে সত্যি ভাগ্যবান মনে হচ্ছে। আনন্দটুকু ধরে না রাখতে পেরে চোখে পানি এসে গেলো। স্যারের এ ভালোবাসা কোনদিন ভোলার নয়।

২৪৯জন ৬০জন
4 Shares

২৮টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

লেখকের সর্বশেষ মন্তব্য