একা মানুষ মানুষ নয়, সম্মিলিত মানুষই মানুষ।

বিশ্বব্যাপী করোনা ভাইরাস আজ মানুষে মানুষে একে অপর থেকে দুই ফিট দূরত্বে দাঁড় করিয়ে দিয়েছে। কাছাকাছি, পাশাপাশি হলেই মরণকামড়। এই দুই ফিট দূরত্বে দাঁড়িয়েও কী আপনি নিশ্চিত হতে পারছেন যে আপনি নিরাপদ?

আপনারা হাতে হাত রেখে হাঁটতে পারেননি, ক্রমশ বিচ্ছিন্ন হতে হতে এতোটাই আত্মকেন্দ্রিক হয়ে ওঠেছিলেন যে, কেবলই নিজে বাঁচতে চেয়েছিলেন। ভোগবাদী বিশ্বে আপনাদের কেবল নিজের জন্যই চাই, চাই আর চাই। কে কারটা দখলে নিয়ে নিজে সুখি হবেন সেই চিন্তায় ব্যতিব্যস্ত। সুখের নেশায় এতোটাই অন্ধ হয়ে ওঠেছিলেন আপনারা, পাশের মানুষটিরও যে অধিকার আছে তা ভুলেই গিয়েছিলেন। পারলে পাশের মানুষটির নায্য অধিকারটাও কেড়ে নিয়ে নিজের ভাণ্ডার পূর্ণ করে ভবিষ্যত সুখের নিশ্চয়তা নিশ্চিত করতে চেয়েছিলেন। করোনা আপনাদের সে নিশ্চয়তায় অনিশ্চয়তা নিয়ে এসেছে। করোনা সকলকে আরও বিচ্ছিন্ন করে দিয়েই জানান দিচ্ছে, বিচ্ছিন্ন হয়ে মানুষ আসলে ভাল থাকতে পারেনা। মানুষ বাঁচে সম্মিলতভাবেই। অথচ আত্মকেন্দ্রিকতা আমাদের ক্রমশ বিচ্ছিন্ন করে ফেলছিল।

পৃথিবীর বড় বড় নগর আজ একেকটা ভূতুড়ে পল্লী। জনমানবহীন রাস্তাঘাটে নেমে এসেছে কবরের নিস্তব্ধতা। এ পরিস্থিতিতে মানুষ বদ্ধঘরের বেলকনি/বারান্দায় দাঁড়িয়ে একে অপরকে জানান দিচ্ছে, ‘আছি হে মানুষ, আমরা একে অপরের পাশেই আছি।’ এ কিসের বার্তা? এ বার্তা, ‘সম্মিলিত মানুষই যে মানুষ’ এ বার্তা।
বিশ্বময় করোনা ভাইরাসের আক্রমন ঠেকাতেই আমাদের আজ পরস্পর থেকে এমন বিচ্ছিন্ন হওয়া। বিচ্ছিন্ন হওয়া থেকেই আমরা উপলব্ধি করছি, সম্মিলিত চলার প্রয়োজনীয়তা। করোনা আমাদের জানিয়ে যাচ্ছে একা বাঁচা যায়না। হাতে হাত ধরেই বাঁচতে হয়। ‘সকলের তরে সকলে আমরা প্রত্যেক আমরা পরের তরে।’

আপনি বিত্তবান। অঢেল ধনসম্পদ, গাড়ি-বাড়ির মালিক। হাঁক দিলেই আপনার সেবায় লোক চলে আসে। নিজের অজান্তেই তাকে আপনি হুকুম তামিলকারী হিসাবে দেখতে শুরু করেছেন। এ দেখায় একসময় অবজ্ঞা এসেছে, হীনতা এসেছে। ধন সম্পত্তির অহংবোধ ক্রমশ আপনাদের অমানুষ করে তুলছিল। আপনাদের কেউকেউ এদেরকে মানুষই ভাবতেন না। অথচ এরা না হলে আপনার আয়েশি জীবন যাপন করা সম্ভবপর হতনা। আপনারা ধরেই নিয়েছিলেন টাকা হলেই সব সম্ভব, সব। এমনটা ভাবতে ভাবতে একসময় আপনাদের কারো কারো মধ্যে টাকা ছড়িয়ে মানুষ টানার প্রবণতাও জেগে ওঠেছে! আপনাদের অন্তর্গত এই ইচ্ছার চকচকে চোখ দেখলে বড্ড করুণা হয়। আহ! দুদিনের দুনিয়া!! কখনোকখনো ঘেন্নাও হয়। আজ ওই হুকুম তামিল করা লোকটিই কিন্তু আপনার জন্য বিপজ্জনক। ওই নিজস্ব ড্রাইভারটিই আপনার জন্য বিপজ্জনক। চাইলেই আপনি তাকে এড়িয়ে চলতে পারছেন না। আপনার অঢেল সম্পদ আছে, কিন্তু আজ একা চলায় আপনি খোড়া। আপনার পক্ষে কিছুতেই একা চলা সম্ভব নয়। আপনি রাস্তার মানুষজন, ফকির মিসকিন এড়িয়ে চলেন। গাড়িতে করে যান, গাড়ি করে ফিরেন। আপনি নিশ্চিত অই ধুলোময়লা মানুষজনের সংস্পর্শ আপনি এড়িয়ে চলতে পারছেন। কিন্তু আজ এমন এক সময়ে এসে দাঁড়িয়েছেন যে, একা একাও আপনি নিরাপদ নন, যদি নিজেকে বন্দি না করেন। ধরুন, আপনি ড্রাইভার না নিয়ে একাই গাড়ি নিয়ে বের হয়ে কাজ সেরে আবার বাড়ি চলে আসলেন।
কী ভাবছেন? আপনি নিরাপদ? মোটেই না। কেউ একজন আপনার গাড়িটা সুন্দর দেখে একটু ছোঁয়ে দেখেছিল, ব্যস। ওতেই আপনি এফেক্টেড। করোনা চলে এসেছে আপনার ডেরায়।
করোনার আগমন চোখে আঙুল দিয়ে সত্যটাকেই দেখিয়ে দিল। করোনা ভাইরাস হয়তো একদিন চলেই যাবে। আমরাও হয়তো কেউকেউ তার সাথে চলে যাবো। কিন্তু যারা বেঁচে থাকব, আমরা দেখব করোনা ভাইরাস পূর্ববর্তী পৃথিবী আর পরবর্তী পৃথিবীর মাঝে এক বিরাট পরিবর্তন।
করোনা মানব জীবনে ক্ষতর পাশাপাশি রেখে যাবে অনেকগুলো প্রশ্ন❓
এই উত্তর খুঁজে নিয়েই হয়তো একদিন আবার শুরু হবে সম্মিলিত মানুষের যাত্রা। গড়ে ওঠবে এক মানবিক পৃথিবী।

১১৯জন ৩জন
20 Shares

১৯টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ

লেখকের সর্বশেষ মন্তব্য