একটি ‘সে’ বিতং

ছাইরাছ হেলাল ১৩ নভেম্বর ২০১৮, মঙ্গলবার, ০৮:৩৬:১৯অপরাহ্ন একান্ত অনুভূতি ২২ মন্তব্য

নক্ষত্রের বুকে/কোলে মাথা রেখে
শুয়ে আছি অনন্ত কাল অনন্তের কাল,
লবেজান হয়ে নয়;
চেতন/অচেতন অবচেতনের কাছাকাছি
সেই আদি থেকে অনন্তকাল অবধি,
আড়মোড় ভেঙ্গে ভাবছি ভাবছি
ফিরে যাব কী যাব-না একটু খেলতে কানামাছি;

বুনো মাটির গন্ধ মেখে পথের বাঁকে
গেঁথে থাকবো জগদ্দল পাথর হয়ে,
ধাঁ ধাঁ লাগা অন্ধচোখে
সোঁদা মাটির গন্ধ শুঁকে-শুঁকে শুষে
ভরে নেব আজন্ম খালি হয়ে থাকা এ বুক;

ভাবছি পর্বতশৃংগে নীলকুরিঞ্জি হবো
উহ্‌, সে তো বার বছরে একবার মাত্র
গন্ধ বিলোয়, প্রতি মুহুর্তের গন্ধ-ফুল
হয়ে জড়িয়ে থাকবো/রাখবো ঐ নীলাকাশ
গন্ধ ডানা মেলে গা ঘেসে উড়ে বেড়াবো সারাক্ষণ।

চাঁদ বুড়ি সেও ডাকছে সারাক্ষণ,
ফোকলা দাঁতে পান চিবুতে চিবুতে
আকাশ ছড়ানো নীলাকাশে।

ভাবছে এবার রুদ্ধ নিশ্বাস-প্রশ্বাসে
কোথাও এবার যাবেই যাবে, সে,
হতে পারে তা
ভিড়াক্রান্ত কোন এক স্বপ্ন শহরে।

৩০৩জন ৩০৩জন
0 Shares

২২টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

লেখকের সর্বশেষ মন্তব্য

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ