একটা নিতান্তই অর্থহীন গল্প

আগুন রঙের শিমুল ২১ জুলাই ২০১৪, সোমবার, ০৮:৫৪:৪১অপরাহ্ন গল্প ১৮ মন্তব্য

ছেলেটি বারান্দায় দাড়িয়ে সিগারেট খাচ্ছিলো, মেয়েটি বসেছিলো উঠোনে। বিয়ে বাড়ির কনে বিদায়ের বিষন্নতার মাঝে ডুবে। মেয়েটির চোখে এক পৃথিবী বিষাদ, শেষ গোধূলির আলোয় ইতস্তত ছড়ানো চেয়ার টেবিল আর নিস্তব্ধ তরূণী। কেমন অপার্থিব লাগে সবকিছু।

 

– আপনার মন খারাপ ভালো করে দিতে পারি এক মিনিটে, দেবো?

– আপনি ম্যাজিক জানেন?

– হু, তবে এটা কেবল আপনার ক্ষেত্রেই কাজ করবে।

– তাই? আচ্ছা দেখি তো?

– মন ভালো করে দিলে কি দেবেন?

– কি চান?

– আপনাকে একবার ছুয়ে দেখতে চাই।

– হু, কিন্ত মন ভালো হলে তবেই

– আচ্ছা, আকাশের দিকে দেখেন ঐযে তারাটা দেখেছেন ওটা

– হু

– এবার চোখ বন্ধ করে উল্টো করে ১০০ থেকে এক গুনতে থাকেন, তাকাবেন না। আমি আসছি।

– গাধা বানাচ্ছেন?

– না, বিলিভ মি এটা একটা ম্যাজিক। কিন্ত তাকালেই ম্যাজিক আর কাজ করবেনা।

– হু

 

মেয়েটা গুনতে থাকে ৯৯, ৯৮, ৯৭………..

ছেলেটা এক দৌড়ে মুঠোয় করে কিছু একটা নিয়ে আসে।

 

 

– আপনার হাতটা দিন

– উহুঁ, এখনো ম্যাজিক দেখাননি

– দেখাবো বলেই তো…..

– হু

– নিন, এবার মুঠো বন্ধ করুন। হাতটা চোখের সামনে নিয়ে একসঙ্গে মুঠো আর চোখ খুলুন, দেখুন যে তারাটাকে দেখে চোখ বন্ধ করেছিলেন, সেটা আপনার হাতে। থ্রি, টু ওয়ান …. খুলুন

 

 

– ইয়াল্লাআআআআআআ সত্যিই তারাআআআ

– হাহাহাহাহা, বোকা মেয়ে ওটা জোনাকি 

– ইশশ, আমি ভাবলাম সত্যিই তারা। আমার মন ভালো হয়েছে। থ্যাঙ্কস, নিন আমার হাতটা ধরুন। ছুঁয়ে দেখেন আমাকে, মন ভালো করার পুরষ্কার।

 

 

ছেলেটি একবার চোখ তুলে দেখে।

আরেকটা সিগারেট ধরিয়ে হেটে চলে যায় …….. একবারও পিছনে না তাকিয়ে।

৪৫৭জন ৪৫৭জন
0 Shares

১৮টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

লেখকের সর্বশেষ মন্তব্য

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ