একজন বিপ্লবীর সংক্ষিপ্ত জীবন কথা

রুম্পা রুমানা ২৭ সেপ্টেম্বর ২০১৬, মঙ্গলবার, ১১:৫৭:১২পূর্বাহ্ন বিবিধ ১৫ মন্তব্য

চট্টগ্রামের ধলঘাট গ্রাম । মধ্যবিত্ত এক পরিবারে ১৯১১ সালের ৫ মে জন্মগ্রহণ করেন রাণী। মায়ের দেয়া ডাক নাম।পিতা ছিলেন পেশায় একজন কেরানী। শান্ত স্বভাবের রাণী পড়াশুনার ফাঁকে ফাঁকে মাকে ঘরের যাবতীয় কাজেই সাহায্য করতেন। তার আরও একটা ছদ্মনাম ছিলো ।ফুলতার ।
১৯১৮ সালে তিনি ডাঃখাস্তগীর বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে ভর্তি হয়।একেবারে তৃতীয় শ্রেণীতে। প্রাথমিকের পড়াশোনা শুরু হয়। অষ্টম শ্রেণীতে বৃত্তি লাভ করে ১৯২৭ সালে এই স্কুল থেকেই বেশ কয়েকটি বিষয়ে লেটার মার্কসসহ মাধ্যমিকে প্রথম স্থান অধিকার করেন। এ সময় বিয়ের প্রস্তাব আসায় তিনি প্রবল আপত্তি জানান। তারপর তাঁর ইচ্ছাতেই ইডেন কলেজে ভর্তি করিয়ে দেন পিতা। ১৯২৯ সালে উচ্চমাধ্যমিকে মেয়েদের মধ্যে প্রথম ষ্ট্যাণ্ড করেন ও বোর্ডে পঞ্চম স্থান লাভ করেন। কৃতিত্বের এই ফলাফলের জন্য তাঁকে মাসিক ২০ টাকার বৃত্তি প্রদান করা হয়। তিনি পড়াশুনা করতে যান কলকাতার বেথুন কলেজে।সেখান থেকে ডিস্টিংশনসহ বিএ পাশ করেন। স্নাতকের ফল স্থগিত থাকায় চট্টগ্রামের নন্দন কানন অর্পণাচরণ ইংরেজী স্কুলের প্রধান শিক্ষিকা হিসেবে যোগ দেন ।কেননা ব্রিটিশ বিরোধী আন্দোলনে যুক্ত থাকায় তাঁর এবং বীণাদাশ গুপ্তের ফলাফল স্থগিত রাখে ব্রিটিশ সরকার। ২০১২ সালের ২২ শে মার্চ বেথুন কলেজের সমাবর্তনে তাঁকে মরণোত্তর স্নাতক হিসেবে সম্মান দেয়া হয়।
.
শিল্প - সাহিত্য এবং দর্শনের প্রতি ছিলো তাঁর প্রবল আগ্রহ। সাংস্কৃতিক নানান কর্মকাণ্ডে তিনি অংশগ্রহণ করতেন। সেই সাথে ব্যাডমিন্টন খেলায় ছিলেন পারদর্শী। আরও একটা গুণ ছিলো , দারুণ বাঁশি বাজাতেন। এই মেধাবী শিক্ষক মহলে তো বটেই , সহপাঠীদের কাছেও ছিলেন জনপ্রিয়।স্কুলের ইতিহাসের শিক্ষিকা উষাদি , তাঁকে শুনাতেন ইতিহাসের ঝাঁসীর রানী লক্ষ্মীবাঈ এর বীরত্বের কথা।মূলত সেই সময় থেকেই বিপ্লবের বীজ রোপিত হয় অন্তরে। তারই ঘনিষ্ঠ বান্ধবী কল্পনা দত্ত (পরবর্তীতে বিপ্লবী) বলেন ,
"কোন কোন সময় আমরা স্বপ্ন দেখতাম বড় বিজ্ঞানী হব। সেই সময়ে ঝাঁসীর রানী আমাদের চেতনাকে উদ্দীপ্ত করে। নিজেদেরকে আমরা অকুতোভয় বিপ্লবী হিসাবে দেখা শুরু করলাম। "
বলছিলাম প্রীতিলতা ওয়াদ্দেদার - এর প্রাতিষ্ঠানিক নানান কৃতিত্বের কথা। ব্রিটিশ বিরোধী আন্দোলনের অন্যতম একজন বিপ্লবী ।
ইডেন কলেজের ছাত্রী নিবাসে থাকাকালীন সময়ে তিনি বিপ্লবী লীলা নাগের সংস্পর্শে আসেন ।লীলা নাগ ছিলেন দিপালী সংঘের প্রধান বিপ্লবী।দিপালী সংঘ ছিলো শ্রীসংঘের নারী শাখা। তারপর প্রীতিলতাও সদস্য হন এই সংঘের। দেশের জন্য কাজ শুরু করেন।
এর আগে দিপালী সংঘের সদস্য ফর্মটি প্রীতিলতা তাঁর দাদাকে দেখিয়ে নিজের ইচ্ছের কথা প্রকাশ করেন। দাদা পূর্ণেন্দু ছিলেন কংগ্রেস নেতা মাস্টার দ্য সূর্যসেনের
অনুগত। তিনি এই ফর্মটি বিপ্লবী সূর্যসেনকে দেখালে তিনি প্রীতিলতাকে বিপ্লবী দলের সদস্য করে নেন। ১৯৩২ সালের ১৩ জুন প্রীতিলতা বিপ্লবী সূর্যসেনের সাথে দেখা করতে যান ধলঘাটের বিপ্লবীদের আস্তানায়। এসময় বিপ্লবী নির্মল সেনও উপস্থিত ছিলেন। তাঁদের এই গোপন বৈঠকের কথা জেনে যায় ব্রিটিশ পুলিশ বাহিনী। এর আগে মে মাসেই সূর্যসেন ও নির্মল সেনকে জীবিত অথবা মৃত ধরিয়ে দিতে পারলে ১০ হাজার টাকা পুরস্কার ঘোষণা করে পুলিশ বিভাগ । ঐদিন সূর্যদেন ও প্রীতিলতা পালিয়ে যেতে পারলেও পুলিশের গুলিতে নিহত হন নির্মল সেন।
বিপ্লবী সূর্যসেন একবার প্রীতিলতাকে দায়িত্ব দেন চট্টগ্রাম অস্রাগার লুণ্ঠনের জন্য বোমা তৈরীর সরঞ্জাম পৌঁছে দেয়ার। তিনি সেই দায়িত্ব ভালো ভাবেই পালন করেন।
১৯৩২ সালের ২৩ সেপ্টেম্বর। ইংরেজদের ইউরোপিয়ান ক্লাব আক্রমনের সিদ্ধান্ত নেন চট্টগ্রামের বিপ্লবীগণ। সূর্যসেন আক্রমণের নেতৃত্বের দায়িত্ব দেন প্রীতিলতাকে। তিনি সফলভাবে সেই অভিযান শেষ করে ফেরার সময় এক ইংরেজ তরুণের গুলিতে আহত হন। জীবিত অবস্থায় ধরা পড়বার চে' মৃত্যুকে বরণ করাই শ্রেয় মনে করে খেয়ে নিলেন পটাশিয়াম সানাইড।জীবন দিয়ে অত্যাচারী ব্রিটিশদের বিরুদ্ধে বিদ্রোহের কথা এভাবেই ইতিহাসের পাতায় লিখে যান বিপ্লবী প্রীতিলতা ওয়াদ্দেদার ।
গত ২৪ শে সেপ্টেম্বর ছিলো মহান এই বিপ্লবীর আত্মাহুতি দিবস । বিনম্র শ্রদ্ধা রইলো প্রীতিলতা ওয়াদ্দেদারের

0 Shares

১৫টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

লেখকের সর্বশেষ মন্তব্য

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ

Thumbnails managed by ThumbPress