গণমাধ্যমে খবর- “করোনা প্রতিরোধের অংশ হিসেবে দেশে সিগারেট বিক্রিতে নিষেধাজ্ঞা জারির জন্য সরকারের কাছে ধুমপান বিরোধী বিভিন্ন সংস্থার আবেদন।”

মাননীয় ধর্মাবতার, একজন ধূমপায়ী হিসেবে লজ্জাশরমের মাথা খেয়ে আমি এর তীব্র প্রতিবাদ জানাচ্ছি। যৌক্তিক কারণ হিসেবে নিম্নে আমার যুক্তি উপস্থাপন করলাম-

১. করোনায় যেহেতু সবাই ঘরবন্দী তাই সিগারেট দু’জন তিনজন মিলে ভাগবাটোয়ারা করে গলাধঃকরণ করার সুযোগ বর্তমানে নেই। ফলে ধূমপানের কারনে করোনা ছড়ানোর সুযোগ নেই বললেই চলে। দু’একজন ব্যতিক্রমী হাড় বজ্জাতের কারনেই আসলে বিরোধীদল এসব প্রোপাগান্ডা ছড়াচ্ছে যা দেশের আপামর ভদ্র ধূমপায়ী জনগোষ্ঠীকে বদনাম করার পায়তারা বলেই মনে করি।

২. “এক ধূমপায়ী এক শলাকা সিগারেট” এই নীতির ফলাফল স্বরুপ আমাদের একেকজনের কল্পনাতীত অর্থব্যয় হচ্ছে যা বেকার এবং স্বল্প আয়ের মানুষদের পকেটমানির নুন আনতে পান্তা ফুড়ায় অবস্থার তৈরি করেছে।

৩. লকডাউন সময়ে সিগারেট বিক্রি বন্ধ হলে যারা পান সিগারেট বিক্রির মত ছোট ব্যবসার সাথে জড়িত তারা না খেয়ে থাকবে।

৪. সিগারেট বিক্রি না হলে দেশের তামাক চাষীরা চরম ক্ষতির সম্মুখীন হবেন। তাই তাদের জন্য সরকারি প্রণোদনার ২ শতাংশ বরাদ্দ করার দাবী জানাচ্ছি।

৫. এদেশে তামাক বাবদ ৪৫ শতাংশ এবং ভ্যাট বাবদ ১৫ শতাংশ অর্থাৎ সিগারেট বাবদ মোট ৬০ শতাংশ কর দিতে হয়। তাহলে হিসেবমত ১০০ টাকার সিগারেট খেলে সরকারকে ৬০ টাকা কর দিচ্ছি আমরা। দেশের লক্ষ লক্ষ মানুষ নিত্যদিন সিগারেট কিনে এই টাকা সরকারী কোষাগারে জমা দিচ্ছে। হিসেব করলে দেখা যায় ২ বছরে প্রাপ্ত এই টাকা থেকে আরও একটা পদ্মা সেতু করা সম্ভব!

৬. সেই হিসেবে প্রত্যেক ধূমপায়ীই একেকজন নীরব দেশপ্রেমিক। অথচ এর বিনিময়ে ধূমপায়ীরা অবজ্ঞা ছাড়া আর কিছুই পায়না। সবাই খারাপ চোখে দ্যাখে, উফ! কি দুর্গন্ধ! যা দূরে যা! এসব কটুবাক্যে নিজেদের উপহাসের পাত্র হতে হচ্ছে সবার কাছে। যার ফলে একজন ধূমপায়ীর মানবাধিকার লঙ্ঘিত হচ্ছে সর্বদাই।

ধর্মাবতার, তাই দেশের উন্নয়নের স্বার্থে আমি তামাক বিরোধী সংগঠনগুলোর এমন আবেদনের কঠোর বিরোধীতা করছি। সেই সাথে প্রতিটি ধূমপায়ীর বাড়িতে বাড়িতে একমাসের জন্য ত্রাণস্বরুপ এক কার্টুন সিগারেট দেবার বিনীত আবেদন জানাচ্ছি।

নিবেদক-

দেশের আপামর ধূমপায়ীর পক্ষে,

একজন নগন্য টোব্যাকো ট্যাক্স প্রদেয় যোদ্ধা।

সংবিধিবদ্ধ সতর্কীকরণঃ ধূমপান স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর। প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষ ধুমপান আপনার এবং প্রিয়জনের মৃত্যুর কারণ হতে পারে। দয়াকরে ধূমপান থেকে বিরত থাকুন।

৩২৫জন ৩২৫জন
11 Shares

৪৯টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ