ঋতূর ঢং

এস.জেড বাবু ১৭ ফেব্রুয়ারী ২০২০, সোমবার, ০৬:৫৮:৫৩অপরাহ্ন কবিতা ২৯ মন্তব্য

দুর্বা ঘাসের ডগায় ডগায়
শিশির হলে পারতি,
দমকা হাওয়ায় ছিটকে পড়া
একবিন্দু জল।
কাঁঠাল মুচি, আম্রকলির
সুবাস হলেও পারতি,
লাল সবুজে রাজ্য জুড়ে
মধুমাসের ফল।

ছন্নছড়া মেঘ বৃষ্টিতে
ঝর্না হলে পারতি,
তালগাছের ঐ বাবুই বাসায়
মিষ্টি হাওয়ার দোল।
ইশান কোনে রৌদ্র মেঘে
তিতাস হলেও পারতি,
রংধনু আর সবুজ সাদায়
উড়ন্ত কাশফুল।

রাগলে কভূ, ভাদ্রমাসী
খরা হলে পারতি,
দু’গাল বেয়ে চিবুক তলে
লোনা ঘামের ফোটা।
আশ্বিনের ঐ বিলে ঝিলে
পদ্ম হলেও পারতি,
দেশটা জুড়ে নদী খালে,
ভাটার পরে ভাটা।

মাঠে মাঠে পাতা জলে
শালুক হলে পারতি,
মাঁচা ভর্তি লোনা পুঁটি
সোধা গন্ধে হাওয়া।
নবান্নে তুই গোলা ভরা
ফসল হলেও পারতি,
পিঠা পুলির দাওয়াত নিয়ে,
ব্যাস্ত আসা যাওয়া।

খেঁজুর গাছে ঝুলে দুলে
কলশি হলে পারতি,
কুমড়ো ফুলে লাউয়ের ডগায়
মাঁচা ভরা হাসি।
ভাঁপা পিঠায় চিটাগুড়ের
মিষ্টি হলেও পারতি,
সকাল সন্ধ্যা আমি কি আর
একলা ভালোবাসি।

আমড়া গাছের শক্ত ডালে
কোকিল হলেও পারতি,
বেলকনি আর ছাদ ভর্তি
নীলচে গোলাপ কলি।
উঠান কোনে কৃষ্ণচূড়ায়
রাঙা হলেও পারতি,
রোজ সকালে দরজা খুলে
দেখতাম দু’চোখ মেলি।

নিত্য ভোরে ঘুম ভাঙ্গানী
পায়রা হলেও পারতি,
টোল পড়া গাল, বাঁকা ঠোঁটে
ষড়-ঋতূর হাসি।
তুই হৃদয়ের স্বপ্ন মেলায়
বন্ধু হলে পারতি,
ছয়টি ঢংয়ে, ঋতূর রংয়ে
রানী বারোমাসী____॥

-০-

২৪৮জন ১০২জন
30 Shares

২৯টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ

লেখকের সর্বশেষ মন্তব্য