উপেক্ষিত

শফিক নহোর ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯, বৃহস্পতিবার, ০৬:৪৯:০২অপরাহ্ন গল্প ১৪ মন্তব্য

 

আমি  মাধ্যমিক পরীক্ষা দিয়ে ঢাকায় চলে আসি , আমার চাচা তো ভাইয়ের সঙ্গে । তিন মাস মৌসুমী গার্মেন্টস এ কর্মরত ছিলাম সহকারী অপারেটর হিসাবে । অনেক মেয়ে আমার সঙ্গে সস্তা প্রেমের আবদার করত , আমি এসব বুঝি না বলে এড়িয়ে চলতাম । কেউ-কেউ আমাকে একটু ভিন্ন নজরে দেখতো । অনেক-ই সন্দেহ করতো আমি তৃতীয় লিঙ্গের কেউ কি—না আমি প্রচণ্ড লজ্জা পেতাম। পরের মাসে আমার রেজাল্ট হল আমি রাজশাহী বিভাগে ১১তম । সারা বাড়িতে আনন্দের ঢেউ । আবেগ আপ্লুত হই , আনন্দে আমার চোখ ভিজে ওঠে ।

 

আমি আগামী দিনের স্বপ্নের বীজ বপন করি , কিন্তু তা থেকে যায় আমার কল্পনার ভিন্ন জগতে । তবুও স্বপ্ন দেখি । একদিন এ সমাজে মাথা উঁচু করে বাঁচব । বুকের ভিতর স্বপ্ন নিয়ে আমার পথচলা । শহরের কলেজে আমার ভর্তি হওয়া  অদৃঢ় । পারিবারিক অনাটনের কারণে । গ্রামের কলেজের সবার চাইতে আমার রেজাল্ট ভাল । মজিদ স্যার আমাকে বিভিন্ন সময় , বিভিন্ন ভাবে সাহায্য করে । আমি তখন কলেজে পড়ি । কিন্তু আমার কোন জুতা ছিলনা । কলেজে সবাই জুতা পড়ে আসত । স্যার ও বলতো ক্লাসে জুতা পড়ে আসতে হবে ? কিন্তু আমার পড়ে আসা হত না । স্যার ও অনুমান করতো , স্যারকে বলে ছিলাম ” স্যার আমাকে একটা টিউশনি দিন আমি পারব ” কি করে সম্ভব ! তুমি কলেজে পড়ে তোমার সহপাঠীকে পড়াবে ? আমি সব সময় বলতাম স্যার আমি পারব ”  আমার হাত খরচের টাকা চলে আসত । কলেজ লাইফটা এত কষ্টের ছিল তা ভাষাহীন । সবার কাছ থেকে এত পরিমাণ অবহেলা পেয়েছি ; যা প্রকাশ করবার মত নয় ।

 

ফাইনাল পরীক্ষার আগে ছোট মামার বিয়ে  ,আমার তখন জলবসন্ত । মা, সঙ্গে নিলেন না । জেসিকে রেখে গেল আমার সেবার জন্য । সে নিজেই সন্ধ্যা হলে ভূতের ভয়ে মরে । মা বাবা বিয়ের বড় যাত্রী , বউ নিয়ে আসবার পথে প্রচণ্ড ঝড়, নৌকা ডুবে যায় । দু’দিন পরে মায়ের লাশ পেলাম । বাবার লাশ নদীতে খোজা-খুঁজি করে পাওয়া গেল না । আমি বাবার জন্য  এখনও নদীর তীরে অপেক্ষা করি , হয়তো বাবা ফিরে আসবে । মাকে যে জায়গায় কবর , দিয়ে ছিলাম । আজ তা নদী গর্ভে-বিলীন ।  মায়ের কবরের চিহ্ন পর্যন্ত আজ নেই ! আমি মনে মনে ঠিক ভেবে নেই এখানেই মায়ের কবর ছিল ।

 

 

পরের বছর আমি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি হই । অনেক কষ্ট করে আমার লেখা পড়ার খরচ চালিয়ে নিতে হচ্ছে । কিছুদিন পরে একটা টিউশনি পেলাম । মেয়েটি ক্লাস সেভেনে পড়ে, বাবা-মা দু’জন-ই সরকারি চাকরি করেন । সন্ধ্যার পরে বাসায় গিয়ে পড়াতে হয় ।”আমার অন্য বন্ধু রা গল্প করে” , দোস্ত আজ রাতে খেয়ে এসেছি । ওদের মত কপাল আমার হয়নি, তবে মাঝে মধ্যে চা, নাস্তা দেয় । আমি তা খেয়েই থাকি । মেসে রাতের মিল বন্ধ থাকে।

 

বেশিরভাগ সেমিস্টার গুলোতে আমার পরীক্ষার ফলাফল অনেক খারাপ আসতে লাগল ! আমার টিউশনি করাতে আর মন সায় দিল না । কিছুদিন পরে আমাকে ফোন দিয়েছে  লিনার ‘‘ মা ’’ আমি মিথ্যে বলে দিলাম আমার শরীর খারাপ , কোন ভাবেই ছাড়তে পারলাম না টিউশনি;যদিও আমার খুব প্রয়োজন ছিল তখন । লিনার প্রিয় তার বিড়াল ,নাম দিয়েছে ক্যাটি। আমি নাম শুনে মনে-মনে হাসি ।” বড়লোক দের কি বিচিত্র সখ ” পড়া শেষে আমার জন্য টেবিল ভর্তি খাবার । আমি তো দেখেই বেহুঁশ । এত খাবার তাও আমার আমার জন্য । পেট ভরে খেলাম । মনে হচ্ছে তিন’চারদিন আর কিছুই খেতে হবে না ।পরের দিন পড়াতে গিয়ে লীনাকে কৌতূহল বসত প্রশ্ন করলাম ?

-আমার জন্য এতকিছু রান্না করেছিল তোমার মা ?

লীনা মুচকি হেসে বলল,

-না স্যার ।

গতকাল তো, বাবা মায়ের ম্যারেজ-ডে ছিল । খাবার গুলোতে আমার  ক্যাটি মুখ দিয়েছে বলে । কেউ খায়নি । তাই সব খাবার আপনাকে দিয়েছিল ।আমার বমি চলে আসল , বেসিনে বমি করে বের হলাম ।

আমার চোখ দিয়ে অশ্রু গড়িয়ে পড়ল । আমি লীনাদের বাসা হতে দ্রুত প্রস্থান করি ।

 

সহজ সরল জীবনের সমীকরণের কাছে শত বার হেরে গিয়েছি আমি। তবুও স্বপ্ন গুলোকে কখনো ব্যথা পেতে দেয়নি , অনেক চেষ্টার পর একটি টিউশনি পেলাম । শুভ ক্লাস নাইনে পড়ে । আগামী মাসের এক তারিখ হতে পড়াতে হবে । প্রথম দিন পড়াতে যাবার পর । আমার ইন্টারভিউ নেওয়া শুরু করল ।

 

আমার তো নাজেহাল অবস্থা। কিছুদিন যাবার পর থেকে সে আমার জন্য নাস্তা তৈরি করে । অথচ -বেচারি আমার জন্য অনেক কিছু তৈরি করলেও  আমি একদিন ও তা খায়নি ।  আগেই শুভ এর বাবাকে বলে ছিলাম । আমি আপনার ছেলেকে পড়াতে পাড়ি কিন্তু ? “কোন প্রকার নাস্তা আমাকে দিবেন না “। ভদ্রলোক আপত্তি জানিয়েছিল । তবে আমি খুব করে বলাতে তিনি রাজি হয়েছিলেন ।

 

শোভা কারণে-অকারণে যখন পড়াতাম, তখন রুমে ঢুকে বলতো-

-স্যার আপনাকে নাস্তা দেই ?

আমি মিষ্টি করে হেসে বলতাম ,

আজ দুপুরে এত বেশি খেয়েছি –মনে হয় তিন-চারদিন কিছুই খেতে হবে না ।

হা হা হি হি ।

-চা খাবেন ?’

আমি খুব ভাল চা বানাতে পারি,কথাটা অবশ্য বাবা বলে থাকেন ।

ধন্যবাদ শোভা ,অন্যদিন চা খাবো। আজ আমার একটু তাড়া আছে ; তাই যেতে হচ্ছে । আমি শোভাকে এড়িয়ে চলতে লাগলাম । আমি জানি শোভা আমাকে  ভীষণ পছন্দ করে, ভালবাসে । তার অনেক প্রমাণ আছে । সব প্রমাণ, সব সময় দেখাতে নেই । তাতে হিতে বিপরীত হবার সম্ভাবনা থাকে বহু গুণ।

 

আমি শোভাকে দিনে-দিনে ক্ষণে-ক্ষণে শোভাকে আপন করে নিবার নিপুণ স্বপ্নে মগ্ন।শোভা আমাকে নিয়ে স্বপ্ন দেখতে শুরু করেছে ,আমাদের সংসার হবে । কি বিচিত্র ওঁর স্বপ্ন । আমার খুব হাসি পায় । একটা সময় আসে দু’জন আলাদা থাকা সদ্ভাব হয় না । আমি শোভার মাকে আমাদের সম্পর্কের কথাটা বলি । ওর বাবা পরের দিন। আমাকে দু’মাসের টাকা অগ্রিম দিয়ে বললো-

মেহেদি , আমরা তো সামনের মাসে টাঙ্গাইল চলে যাচ্ছি । হঠাৎ করে তোমাকে না করলে তুমি হয়তো বিব্রত বোধ করবে তাই …!

-সরি মেহেদি তুমি কিছু মনে করোনা ।

-চাচা একটা কথা বলতে চেয়েছিলাম ।

-আবার কী কথা ?’

-দু’মাসের অগ্রিম টাকা তো দিয়েই দিয়েছি ।

শোভার বাবার ব্যবহার দেখে মনে হলো আমি তার অপরিচিত  । সময় খারাপ হলে মানুষ হয়তো এমন ব্যবহার-ই করে মানুষের সঙ্গে । একটি প্যাকেজ নাটকের চিত্র নাট্য এর মত মনে হল আমার কাছে সবকিছু । অব্যক্ত থেকে গেল আমার একান্ত কিছু কথা । প্রকাশিত হলো শুধু তাঁদের কথা , আমার বেকাত্ব নিয়ে কথা হয়েছিল । আমি অযোগ্য ছিলাম কোন ভাবেই অনুরূপ ছিলাম না শোভার জীবন সঙ্গী হিসাবে ।

 

শোভা মানসিক ভাবে প্রচণ্ড ভেঙে পড়েছিল । আমার সঙ্গে সব ধরণের যোগাযোগ বন্ধ করে দেয় । শোভার খুব ঘনিষ্ঠ বান্ধবী পুতুলের কাছ থেকে অনেক কিছু জেনেছি । শোভা ভাল আছে জেনে , আমিও সেচ্ছায় যোগাযোগ করিনি । শোভা সংসার নিয়ে ব্যস্ত, নতুন অতিথি এসেছে শোভার কোলজুড়ে। শুনেছি , খুব সুখে আছে ।আমি এখন বেসরকারি একটি ব্যাংকে কর্মরত আছি । এবার শেষ চেষ্টা চলছে বিসিএস ।তার  কিছুদিন পরে রেজাল্ট হল । আমি ক্যাডার হিসাবে নিয়োগপ্রাপ্ত হলাম । এক’বছর পর আমার কর্মস্থান টাঙ্গাইলে । শোভার বাবা, আমার কলিগ ! আমি তার স্যার ।

 

পৃথিবীতে আমার আপন বলতে তেমন কেউ নেই । ছোট বেলায় ,খালার কাছে মানুষ হয়েছি ঠিকই  সেখানে ভালবাসা বলে কিছু ছিলনা । খালা অসুস্থ আমার এখানে নিয়ে আসতে চেয়েছি অনেক বার, কিন্তু খালার শর্ত ছিল । রিক্তাকে বিয়ে করতে হবে । তাহলে সে আমার বাসায় আসবে । উঠতে বসতে খোঁটা দিত ।এত বড় হয়ে গেছি তবুও অপমান করতো , খালাকে মুখ ফুটে কিছু বলতে ও পারতাম না । নিমক খেয়ে নিমকহারামি করতে পারবো না । আমার গল্পটা ঠিক এমন ছিল  ছাত্র জীবনে ।

 

১৬৫জন ২৯জন
8 Shares

১৪টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ

লেখকের সর্বশেষ মন্তব্য