উত্তরণ

জিসান শা ইকরাম ২০ জুলাই ২০২১, মঙ্গলবার, ০৯:৫৮:২৪অপরাহ্ন শুভেচ্ছা ৪৬ মন্তব্য

২০ জুলাই ২০১৮ তার পদার্পন এই সোনেলার উঠোনে। দীর্ঘ দিন তিনি এখানে বিচরন করেছেন একজন পাঠক হিসেবে। তার পরিবারের একজন যে আমার অত্যন্ত শ্নেহেরও  তার সম্পর্কে বলেছিলো ‘ আপুর পড়ার নেশা খুব। নিয়মিত বই কেনেন নতুন পুরাতন। নীলক্ষেতের পুরাতন বই এর দোকান থেকে দুষ্প্রাপ্য বই সংগ্রহের জন্য একাধিকার যান সেখানে। এমনকি বাজারের কাগজের ঠোঙায়ও যদি কোনো কিছু লেখা থাকে, তিনি তা ফেলে দেয়ার আগে পড়ে নিবেন।’
প্রথমে কিছুটা অবিশ্বাস করলেও সোনেলায় সবার লেখা পড়ে লেখা অনুযায়ি বিস্তারিত এবং বিশাল বিশাল মন্তব্য দিয়ে প্রমাণ করে দিয়েছিলেন যে পড়ার জন্য তার অসীম ক্ষুধা এবং পড়ার তৃষ্ণা তীব্র।

এমন একজন নিবিষ্ট পাঠকের আগমনে অত্যন্ত খুশী হয়েছিলাম। কারণ তিনি সবার লেখা খুঁটিয়ে খুঁটিয়ে পড়েন। লেখা অনুযায়ী মন্তব্য করেন। এমনি উপস্থিত ভাবে ব্লগের রত্ন ছাইরাছ হেলালের কবিতায়ও কবিতার মাধ্যমে মন্তব্য করেন। সে সব মন্তব্য আলাদা আলাদা পোষ্ট হওয়ার যোগ্য।
তবে এতে আতংকিতও হয়েছিলাম সাথে সাথে। আমার লেখায় প্রচুর বানান ভুল হয়। যদি তিনি আমার বানান ভুলে ভরা লেখা পড়েন, তাহলে প্রেস্টিজ পাংচার হয়ে যাবে। মন্তব্যে কিছু না বললেও আমার যে একটা বিশাল ভাব তা তো শেষ হয়ে যাবে তার কাছে। এরপর খুব শতর্ক হয়ে গেলাম। বানান যতটা সম্ভব শুদ্ধ করার চেষ্টা করলাম। লেখার প্রতি মনোযোগ দিলাম আগের তুলনায় বেশী।

আর একটা বিষয়ে উনি সোনেলার ফাঁকিবাজ মন্তব্যকারীদের সারে তেরোটা বাজিয়ে দিলেন। কত সুন্দর এবং আরামে সবার পোষ্টে সবাই মন্তব্য করতাম এভাবেঃ
* অনুভূতির চমৎকার বহিঃপ্রকাশ।
* খুব ভালো লিখেছেন।
* মুগ্ধ পাঠ।
* দিন দিন লেখায় হাত পেকে যাচ্ছে আপনার।
* এমন ভালো লেখা শীঘ্র পড়িনি।
* শব্দের বুননে এক নিশ্বাসে পোষ্ট পড়া শেষ করলাম।

ইতাদি আরো কিছু ফাঁকিবাজি মন্তব্য করতাম তিনি আসার পূর্বে। আমি একা নয়, প্রায় সবাই ই।
তিনি এসেই আমাদের সবাইকে ধরা খাইয়ে দিলেন। এত সহজ মন্তব্য বাদ দিয়ে আমাদের সবাইকে তার মত বিস্তারিত মন্তব্যের দিকে যেতে হলো। আমাদের এই কষ্টের জন্য তিনিই দায়ী। বিচার দিলাম এজন্য সোনেলার আদালতে।

তার বিভিন্ন মন্তব্যের জবাবে আমি সহ অনেকেই তাঁকে ব্লগে লেখার জন্য অনুরোধ করি। আমাদের অনুরোধে সারা দিয়ে তিনি সোনেলায় আসার ৭৫ দিন পরে ৪ অক্টোবর ২০১৮ তারিখে প্রথম পোস্ট দেন। নিজেকে দুই ধাপ উত্তরণ ঘটানঃ পাঠক, মন্তব্যকারী হতে পোষ্ট প্রদানকারী।

সোনেলা অন্ত প্রাণ তার। তাই ব্লগিং, ব্লগার, এবং সোনেলাকে নিয়ে তিনি বেশ কিছু লেখা লিখেছেন। এর মাঝে তিনটি উল্লেখযোগ্য।

সোনেলা ব্লগে কেন লিখবেন

আমি ও আমার নির্বাক রুদ্ধতা ( শুভ জন্মদিন সোনেলা )

বাংলা ব্লগ ও সোনেলা ( ম্যাগাজিন )

আজ এই শুভ সময়ে তার কিছু গোপন কাজের কথা জানাচ্ছি সবাইকে।
ব্যক্তিগত কাজের চাপে তিনি দিনে তেমন একটা সময় পাননা ব্লগে আসার। মধ্যরাতের পরেই আসেন। তাঁকে কিছু বলে দিতে হয়নি, নিজে দায়িত্ব নিয়ে রাত জেগে যদি কোনো অস্বাভাবিক আইডি নজরে আসে, উনি তার স্ক্রিন শট দিয়ে দেন সোনেলার মেইলে। এই স্ক্রিন শটের সূত্র ধরে বহু স্প্যামার সনাক্ত করে তাদের রিমুভ করা হয়েছে সোনেলা হতে। যেহেতু নিবিড় ভাবে তিনি পর্যবেক্ষন করেন, তার কাছ থেকেই সোনেলা ব্লগ টীম জেনে যায় ব্লগের সিস্টেমের বিভিন্ন সমস্যার কথা এবং সে আনুযায়ী তার সমাধান করা হয়। এই যে দায়িত্ব উনি স্ব ইচ্ছেয় নিয়েছেন, তা উনি না নিলেও পারতেন। কেউ কি বলে দিয়েছেন যে ওনাকে এসব করতে হবে?
নিজে দায়িত্ব নিয়ে সোনেলার হয়ে শ্রম দেয়া তার অস্তিত্বে মিসে গিয়েছে। সাম্প্রতিক ব্লগার্স প্রফাইল পোষ্ট দেয়া নিয়ে সোনেলার ফেসবুক গ্রুপে ওনার বিভিন্ন পোষ্ট সর্বশেষ উদাহরন। উনি প্রমাণ করেছেন যে ইচ্ছেই যথেষ্ঠ, পোষ্ট এবং পদবী নয়।

তিনি যা লিখছেন তা আমরা প্রায় সবাই পড়েছি। কবিতা, গল্প, রম্য, সমসাময়িক বিষয়, প্রবন্ধ সব কিছুতেই তিনি আছেন। তার লেখার উদাহরণে অনেক লেখার লিংক এসে যাবে, তাই সেদিকে আর গেলাম না।
কবিতাকে উনি অ-কবিতা নাম দিয়েছেন। ইদানিং তিনি আর কবিতা লিখছেন না। হয়ত কবিতা না লেখার কারণ নারী ব্লগার তিনি। এটি আমার ধারনা অবশ্য। নারী লেখকদের ইন্টারনেটে প্রচুর বাঁধার সম্মুখীন হতে হয়। প্রেমের কবিতা লিখলে পুরুষ ভাবে নিশ্চয়ই নারী প্রেমে পড়েছেন। অর্থাৎ নারীরা যাই ই লিখুক – পুরুষ ভাববে এটি নারী লেখকের জীবন কাহিনী। এই সমস্যা পুরুষের নেই।
তার কবিতায় প্রেম আসলে হয়ত তার আত্মীয় স্বজন ভাবতে পারেন, তিনি প্রেমে পড়েছেন। তিনি যদি খুনি হিসেবে একটি গল্প বা কবিতা লেখেন তবে কি তাঁকে খুনি ভাবা হবে? তাঁকে সমস্ত সংকোচ দূরে ফেলে দিয়ে মনের ভাব প্রকাশ করার জন্য অনুরোধ করছি। কবিতা আমি তেমন না বুঝলেও আমি চাই তিনি অ-কবিতার মাঝে তার লেখা আবার প্রকাশ করুণ।

একজন পারফেক্ট ব্লগার হিসেবে দিন দিন তার উত্তরণ ঘটছে। তিনি কি  সর্বোচচ ধাপে উন্নীত হয়েছেন? আমার মনে হয়না তিনি তার সামর্থ্যের সব টুকু প্রকাশ করতে পেরেছেন। তাঁকে উঠতে হবে আরো অনেক ধাপ। তাঁর সক্ষমতা আছে আছে সিঁড়ির ধাপগুলো একে একে অতিক্রম করার। আমরা সবাই অধীর আগ্রহে অপেক্ষায় আছি তাঁর  পরিপূর্ণ বিকাশের জন্য।

সোনেলায় আজ তাঁর তিন বছর পূর্ন হলো।


তিন বছর পূর্তিতে অনেক অনেক শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন ব্লগার  সাবিনা ইয়াসমিন

ছবিঃ
ফিচার ছবি নেট থেকে নেয়া,
ফুলের ছবি আমার বাগানের।

 

৫১২জন ১৬১জন
0 Shares

৪৬টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ

লেখকের সর্বশেষ মন্তব্য