বিদ্রোহী রাতগুলোতে আমার অবয়ব নির্জন-একাকি ছাদে যাপন করতে উঠে যায় । থাকুক একটা প্রেমময় কাব্যিক চাঁদ । না হয় বীভৎস চাঁদ মনে মনে বীভৎসতা দূরীকরণে অগ্রসর হোক । না হয় থাকুক কেবল এক কাল্পনিক অবয়ব । সৌন্দর্যের পরিমাপ হবে কল্পনায় । দুটি চোখের অক্ষিকোটরে কেবল প্রতিফলিত আলো-আঁধারি আর অদৃশ্য ইচ্ছেগুলো । মোমের মত ডানা মেলে ইচ্ছেগুলো এলোমেলো নৃত্যে অবিরাম মগ্ন হয়ে থাকে । সেই ইচ্ছেদের ঘিরে থাকা করুন আলো কেবলই অন্ধকার স্পষ্ট করে দেয় ।

ঠায় দাঁড়িয়ে থাকা অজানা গাছটা বোবা কান্নায় মুখরিত করে চারপাশ । আর মাঝে মাঝে সেই কান্না ছাপিয়ে শোনা যায় শেয়ালটার ডাক । রেলিং ধরে দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে কেবল অপেক্ষার অসুখে পেয়ে বসে ।

এ যেন এক অজানা সমাপ্তির পথ । যে পথের সমাপ্তি হয়ত কোনো এক নদী তীরে । কোনো সাদা কাশফুলের আনন্দ যেখানে ঢেউ খেলে ওঠে । অথবা এক ফলের মত ফুলের কদম বৃষ্টির মাঝে , যে বৃষ্টি কেবল ভেজাবে । ধুয়ে নেবে না কিছু । নয়ত সেখানে যেখানে পথের শুরু !

আমি বৃষ্টিতে ভিজব , গায়ে জোছনা মাখব । বিরতিহীন কান্নায় আনন্দ ছড়াব । আর আমার ইচ্ছেগুলো পূরণ করব না । পূরণ হবে আমার ইচ্ছেগুলো । খুঁজে পাবে পথ । নিজেকে স্বার্থপর মনে হয় বোবা কান্নার মাঝে শাব্দিক হাসি হাসতে । আসলেই তো খুব স্বার্থপর আমি !
কত ইচ্ছেদের সাথে সখ্য গড়ে ওঠে । মায়া পড়ে যায় । মায়া বড়ই বেদনাময় । হৃদয়ের গভীরে পাক খেতে খেতে কত ইচ্ছেরা প্রস্থান করে আর কেবল রেখে যায় মায়া । মায়াতে মায়াতে আবার তারা নতুন আঙ্গিকে ফিরে আসে । কত কাব্য-মহাকাব্য অপার্থিব দ্রুততায় আড়ালে আড়ালে সৃষ্টি হয় । একসময় হারিয়ে যায় । এক কাপ চায়ের শেষ চুমুকের মত । প্রত্যাবর্তন হয় বাঁধাধরা গদ্যে । আবার কখনও গদ্যও বাধ্য হয় হারিয়ে যেতে ।

আমি তাকিয়ে থাকি । দেখি না ।
যখন আমার একফোঁটা অশ্রুজল ছাদ থেকে মাটিতে পতিত হবে । তখন হয়ত ভোর হবে না । কিন্তু আমার কবিতার সমাপ্তি ঘটবে ।

0 Shares

১০টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

লেখকের সর্বশেষ মন্তব্য

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ