আয়শার সংসার – ২

মুক্তা মৃণালিনী ২৯ অক্টোবর ২০১৯, মঙ্গলবার, ১১:৪৯:৫৩পূর্বাহ্ন গল্প ১০ মন্তব্য
  • নওশাদ সাহেব পেশায় একজন পাবলিক ইউনিভার্সিটির শিক্ষক । আয়শা সেই একই ইউনিভার্সিটির ইংরেজি অনার্স প্রথম বর্ষের ছাত্রী ছিলেন ।  আয়শাদের প্রথম সেমিস্টারে অবশ্য নওশাদ সাহেব কোন ক্লাস পান নি । তিনি ক্লাস পেলেন তাদের তৃতীয় সেমিস্টার থেকে । তবে আয়শার নওশাদ সাহেবের সাথে ইউনিভার্সিটির ওরিয়েন্টেশন এর দিন সামান্য আলাপ পরিচয় হয়েছিল । সুদর্শন এই নওশাদ স্যার সদা হাস্যোজ্বল স্বভাবের ছিলেন বলে এই ইউনিভার্সিটির ইংলিশ ডিপার্টমেন্টের প্রতিটা ছাত্র-ছাত্রীর কাছেই তিনি ছিলেন দেবতুল্য । কিন্ত একমাত্র আয়শাই যে কিনা কখনো অন্যান্য ছাত্র- ছাত্রীদের মতন এই নওশাদ স্যারকে দেবতুল্য ভাবা তো বহু দূরের কথা তাকে কখনো টিচার হিসাবে কাউন্টও করতেন না । যতটা সম্ভব আয়শা তাকে সযত্নে ইগনর করতেন । নওশাদ সাহেব ভাল উপস্থাপনা করতে পারতেন । সেই সাথে ভাল কবিতা আবৃত্তি ও ভাল গান করতেন । লেখালেখিতে তার হাত ছিল এক্কেবারে পরিপক্ক লেখকদের মতনই । নওশাদ সাহেব বিচিত্রমুখী এত প্রতিভার অধিকারী বলেই আয়শা তাকে প্রচণ্ডরকম হিংসা করতেন । তৃতীয় সেমিস্টারে যখন নওশাদ সাহেব আয়শাদের ক্লাস নেয়া শুরু করলেন তখন অস্থির স্বভাবের এই আয়শা রীতিমত অস্বস্তি ফিল করতেন তার ক্লাস করতে । নওশাদ সাহেবের সুস্পষ্ট বাচনভঙ্গি , পাঠ বোঝানোর দক্ষতা , আর তার অসাধারন যাদুকরি কন্ঠস্বরে ধীরে ধীরে বিমোহিত হয়ে উঠেছিলেন আয়শা । হঠাৎ একদিন নওশাদ সাহেব ক্লাসে আসলেন না । খোঁজ নিয়ে জানা গেল তার ১০২° জ্বর আসছে । সেদিন মনে প্রথম আঘাত পেলেন আয়শা । মনে হল তার কলিজার ভেতরটাতে কেউ একজন বসে বসে ধারাল নখ দিয়ে তার কলিজাটাকে টেনে ছিড়ে রক্তাক্ত করছে । তার বুকের ভেতরে একটা নতুন কষ্টের সন্ধান পেলেন আয়শা । এই কষ্টের কোন নাম তার জানা নেই। এ এক অদ্ভুত অপরিচিত কষ্ট । অপরিচিত বেদনা । আয়শা কোনরকম সেদিন দাঁতে দাঁত চেপে ক্লাসটা শেষ করলেন । আয়শা যখন ইউনিভার্সিটির সিঁড়ি বেয়ে নীচে নামছিলেন ঠিক তখন সে স্পষ্ট অনুভব করলেন নওশাদ স্যারের গায়ের ঘ্রাণ । বাতাসে যেন স্যারের গায়ের ঘ্রাণ এদিক ওদিক ভেসে বেড়াচ্ছে । যে ঘ্রাণ সে আগে কোনদিন অনুভব করেন নি । মুহুর্তেই আয়শার টগবগে রক্ত গরম শরীরটা হঠাৎ কাঁপুনি দিয়ে ঝাড়া মেরে উঠল । আয়শা খুব তড়িঘড়ি করে বাড়ি গিয়ে নিজের রুমের দরজা বন্ধ করে হাওমাও করে বিলাপ করা শুরু করে দিলেন । সারাদিন মুখে কিছু দিলেন না । নিজের রুম থেকে একটিবারের জন্যে বেরও হলেন না সেদিন আর ।
৫৩৬জন ৩৪৩জন
64 Shares

১০টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ

লেখকের সর্বশেষ মন্তব্য