আয়নাবিদ্ধ বিকেল

ছাইরাছ হেলাল ১৭ সেপ্টেম্বর ২০১৫, বৃহস্পতিবার, ০৪:০৯:২৩অপরাহ্ন একান্ত অনুভূতি ৩৩ মন্তব্য

বিঘত আনন্দে নাচছে প্রজাপতি কথারা, এ ফুল থেকে ও ফুলে
ফুলেদের কপালে টিপ পড়াতে পড়াতে ত্রস্ত হাতে পরম মমতায়
শরীরের নকশীকাঁথা।

মাঝে মধ্যে আমিও লিপ্ত হই লিপ্ত থাকি বেশুমার আনন্দ চিত্তে;
হাওয়ায় দোলে সুরভিত বনফুল, অলীক সুরভি কিনা ভেবে দেখিনি
নৈমিত্তিক কাজ ফেলে মেঘেরাও সঙ্গ দিয়েছে দিনান্তের বার-বেলায়
স্বজন বন্ধু সাথে থাকে সাথে রাখে ব্যক্তিগত পোশাকে।

সময়ের গ্রীবায় ধুলো জমে, ধূসর অস্পষ্টতা খুঁটে খুঁটে খায়
সঞ্চয়ের মনি-মুক্তো, সোমত্ত সুন্দর এড়িয়ে।

সোনা বিকেলে একা হতে চাই, গাছেদের ছায়ার রগড়,
বিশ্বস্ত নটীর দীঘল দিগন্ত মাড়িয়ে একাই একা হতে চাই।
প্রাতরাশ সাজিয়েছে সকাল ধোঁয়া ওঠা কফির সুগন্ধ ছড়িয়ে,
স্ট্রবেরির তাজা সুবাতাস টানে না আর।

প্রাণপ্রতিশোধক নির্যাসে, প্রতি মুহূর্তের আয়নাবিদ্ধ চুপিচাপি আত্মহত্যায়,
প্রতি মুহূর্তের বিশ্বাস-অবিশ্বাস নির্বিশেষে রাত্রি তোমাকেই চাই
এই সোনা রং বিকেলেই।

হে নিশ্চুপ স্মৃতির মানমন্দির,
ওঁষ্ঠে তোমার ওষ্ঠ ছুঁইয়ে বলি ভ্রূণ হত্যা যদি পাপ হয়,
উষ্ণ সলজ্জ ইচ্ছে হত্যার দায় তো নিতেই হবে, হে দেবী।

সিদ্ধার্থ ঘর ছেড়েছিল এক দারুণ পূর্ণিমায়,
কত শত মহা-পূর্ণিমা এলো গেলো, ঘর তো ছাড়া হল না,

৩৬১জন ৩৬১জন
0 Shares

৩৩টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

লেখকের সর্বশেষ মন্তব্য

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ