আশার গুড়েবালি

তৌহিদ ১০ মে ২০২০, রবিবার, ১২:১২:৫১অপরাহ্ন গল্প ২৫ মন্তব্য

আজগরের সব জমি নদী ভাঙ্গনের শিকার। সহায় সম্বল আর কিচ্ছু নেই। শেষ একজোড়া গাভী ছিলো সেটা বিক্রি করেই একখন্ড ধানি জমি বর্গা নিয়েছিলো দু’ মাস আগে। অনেক কষ্ট করে গতর খাটিয়ে সে জমি চাষ করে, সেচ দিয়ে এবারে ধান ফলিয়েছে।

ফসলের দিকে তাকিয়ে আজগরের মুখে মৃদু হাসি ফোটে। সমস্যা হলো ফসল কাটার কামলা পাচ্ছেনা করোনার এই দুর্যোগের সময়। সবাই ঘরবন্দী এখন। কি যে হবে! তবে শেষমেশ মানুষ না পেলে সে একাই ধান কাটবে মনস্থ করলো। প্রতিদিন একটু একটু করে কাটলেও তিনদিনে কাটা হবে। এরপরে সুযোগ বুঝে মাড়াই করা যাবে।

আজগরের মনে দুঃখ একটাই ফসলের অর্ধেকটাই চলে যাবে জমির মালিকের কাছে। তা হোক, অন্তত কিছুদিন চলার মত ধান ঘরে উঠবে এটাই সান্ত্বনা। বউকে এবার দুটো শাড়ি, আর বাচ্চাদুটোকে নতুন জামাকাপড় দিতেই হবে। নিজের জন্য একখানা লুঙী আর একটা ফতুয়াও কেনার চিন্তা ঘুরপাক খাচ্ছে। গত একবছর কাউকে কিছু দিতে পারেনি সে। এসব পরিকল্পনা মাথায় নিয়ে আজগর বাড়ির দিকে পা চালালো।

আজ আজগরের কাছে কিছু পাতি নেতা এসেছে। তাদের বড় নেতা নাকি কৃষকদের সহায়তার জন্য ধান কাটার শ্রমিক নিয়ে আসবে অন্যজেলা থেকে। এই কাজের উদ্বোধন করতে আজগরের ফসলি জমিই পছন্দ হয়েছে তাদের। কারন মুল রাস্তার পাশেই তার জমিটি হওয়ায় নেতার দামী গাড়িটি সহজেই আসতে পারবে সেখানে। সাথে পুলিশ প্রশাসন সাংবাদিক সহ এলাকার আপামর জনগনও সেখানে থাকবে। সে এক বিরাট এলাহি কান্ড!

এসব শুনে আজগরের মন খুশিতে ভরে উঠলো। এতবড় নেতা আসবে তার জমিতে! সেই যে দুই বছর আগে নির্বাচনের সময় ভোট চাইতে এসেছিলো নেতা এরপরে আর দেখেনি তাকে আজগর। একসময় তার কঠিন বিপদে সাহায্য চাইতে একবার দেখা করতে গিয়েছিল সে, কিন্তু এই পাতিনেতাদের হম্বিতম্বিতে দেখাটাও করতে পারেনি নেতার সাথে। যাক এবারে কিছু একটা হবে তাহলে।

অবশেষে সে মাহেন্দ্রক্ষণ চলে এলো। আজ গ্রামে সাজসাজ রব। আজগর পাতি নেতাদের কথামত ধানাকাটার কিছু কাস্তে যোগার করে রেখেছে। তার আর চিন্তা নেই। নেতা সাথে করে ধানকাটার কামলা নিয়ে আসবে। তাদের পারিশ্রমিকের টাকাও নাকি সরকার দেবে! এর চেয়ে খুশির খবর এই সময় আর কি হতে পারে? এসব ভেবে মনে চাঙা ভাব নিয়ে সে তার ক্ষেতের দিকে রওনা দিলো।

কিন্তু জমিতে পৌঁছে তার চক্ষু চড়কগাছ! রাস্তায় অনেক গাড়ি দাঁড়ানো। পুরো ক্ষেতে লোকে লোকারন্য। মাঝাখানে কে একজন ধান কাটছে আর চারপাশে মানুষ গিজগিজ করছে। একি দেখছে সে! তার ধানক্ষেত আর চেনাই যাচ্ছেনা। মানুষের পায়ের চাপায় সব গাছে মাটিতে লুটিয়ে পড়ার যোগাড়। পাকা ধানগুলি যে সব ঝুরঝুর করে মাটিতে পড়ে যাচ্ছে এটা কেউ খেয়াল করছেনা কেন? সবাই নেতার ধানকাটার ছবি তুলতেই ব্যস্ত। ধানক্ষেতের চিন্তা কেউ করছে না! আচ্ছা নেতা কাস্তে পেলো কোথায়? ছবি তোলার জন্য নিজেই সাথে করে নিয়ে এসেছে নাকি!

রাগে দুঃখে চিৎকার করে উঠলো আজগর। কিন্তু কে শোনে তার কথা! দূরে কিছু শ্রমিক কাস্তে হাতে দাঁড়িয়ে আছে। নেতার ছবি তোলার লঙ্কা কম্মটি শেষ হওয়ার পরেই ধানক্ষেতে যাবে তারা। তাদের উসখুস মুখ দেখে আজগরের মনেও কু-ডাক দিয়ে উঠল। তাহলে কি আর ধান পাবেনা সে এবারেও? এত কস্টের ফসল সব নষ্ট হয়ে গেলো তার! চাপা কান্নায় বুকটা মুচড়িয়ে উঠছে বারবার।

অবশেষে সকাল গড়িয়ে দুপুর হলো। নেতারা সব চলে গিয়েছে। আজগর মাথায় হাত দিয়ে ক্ষেতের দিকে তাকিয়ে শ্রমিকদের ধানকাটা দেখছে। আসলে ধানক্ষেতের যে ক্ষতি হয়েছে সেখান থেকে কতটুকু ধান আসবে আর সে ধান মালিককে দিয়ে তার ভাগে কতটুকু থাকবে এটা ভেবেই সে অস্থির এখন। কত স্বপ্ন! কত আশা সব গুড়েবালি মনে হচ্ছে। সব সহ্য করা যায় কিন্তু পেটের ক্ষুধার জ্বালা মেটাবে কি করে?

গাছের ছায়ায় বিষণ্ণ মনে আজগর বসে আছে। তার পাশ দিয়ে কে যেন সাইকেলে চেপে রেডিওতে খুব পরিচিত একটি গান শুনতে শুনতে যাচ্ছে। আজগরের কানে বাজলো সে গানের সুর। তবে নানাবিধ দুঃশ্চিন্তায় সে ঠিক মনে করতে পারছেনা গানের কথাগুলো। বিষণ্ণতা দূর করতে আজগর এখন নিজেই বিড়বিড় করে গান গাইছে-

“এখনতো সময় ধান কাটার
এখনতো সময় ছবি ওঠার….”

১৪৩জন ১৬জন
0 Shares

২৫টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ

লেখকের সর্বশেষ মন্তব্য

সাম্প্রতিক মন্তব্যসমূহ