আমি সেই ফিনিক্স

নীলাঞ্জনা নীলা ১৪ সেপ্টেম্বর ২০১৫, সোমবার, ০৯:৫৪:৪৩পূর্বাহ্ন অন্যান্য, কবিতা, বিবিধ ৬৬ মন্তব্য

 

আমি সেই ফিনিক্স
আমি সেই ফিনিক্স

ঐশ্বর্য রেখার আশেপাশে আসুরিকী কিছু মোহের বাস ওরা ভালোবাসতে জানেনা,
ভাবতে জানেনা এখনও উদারতা-নি:স্বার্থপরতা আছে।
চাই শুধুই চাই, যে কোনোকিছুর বিনিময়ে–
নয়তো ছিনিয়ে নিয়ে হলেও পেতে চাই।

কুকুরের জিহ্বার মতো লকলকিয়ে থাকে কতোগুলো প্রতিবাদ এবং আন্দোলন। একটি সত্যিকে মিথ্যে ভেবে, মিথ্যেকে সত্যি ভেবে কচকচে জীবনকে কামড়ে ধরি। পঞ্চ-ইন্দ্রিয়ের বাঁধনটা নড়বড়ে হয়ে পায়ের কাছে বসে চাটতে থাকে উচ্ছিষ্ট। সে রেখে যায়, কিন্তু তার হিসেব বড্ড পাকা। তিনি যে আলোর দূত, মহামানব। তার কাছে র‍্যাঁবো, গ্যাটো নান্দনিক, রবীন্দ্রনাথ-জীবনানন্দ জীবনের সত্ত্বা। আর সাধারণের জন্যে হিসেব করা সময়, তার কাছে মুখোমুখি বসে থেকে বে-হিসেবী গল্প মনেই মৃত্যু। তাই আমি শুকিয়ে যাওয়া ফুলের সাথে, ম্লান হয়ে যাওয়া বৈষ্ণবপদাবলীর ছেঁড়া পাতায় অসীম-অনন্তকে মাখাই ঝালমুড়ির মতো। গ্লাস ভরে এলকোহলে ডুবিয়ে রাখি। তবুও আমি মাতাল হতে পারিনা। মেঘ-বৃষ্টি-রাতের সাথে সখ্যতায় প্রেত অমাবস্যাতিথিতে একলা বসে থাকে আমার দূষিত রক্তধারা। ওদিকে নিঃস্পৃহ আর নির্লিপ্ততায় সঙ্গ খুঁজে পেয়ে, একুশ শতকের ‘ডোন্ট কেয়ার’ ঘাড়ের উপর চাপিয়ে নিয়ে উনি বাজারে যান। হিসেব কষে মাছ-মুরগী-সব্জী কিনে নিয়ে আসেন চটের ব্যাগ ভর্তি করে। তারপর স্টাডি রুমে অপারেশন থিয়েটার পাতিয়ে ব্যবচ্ছেদ করা হয় সখ্যতার নিঃসঙ্গতা। লাঞ্চে চট ব্যাগ ভর্তি বাজারের মাছ-সব্জী চেটেপুটে খান। ওদিকে কবিতা পেয়ে আনন্দিত হন। আচ্ছা পুস্তকে যদি ক্ষিদে নিবারণ হয়, তাহলে উনুনে পোড়া খাদ্য কেন?

উনি জানেন না, এদিকে আজ আমার যাত্রা শুরু হতে যাচ্ছে, বলেছে হাতের পাতায় শুয়ে থাকা ওই ভাগ্য রেখা। যে মোহের সাথে আসুরিক ভাবনা যুক্ত হয়েছিলো, সে পথ দিয়ে হেঁটে আসার সময় এক অধরামৃত পান করেছিলাম আমি, মহামানব জানেন না। আমিও বদলাই, কারো কারো কাছে; দূর্গন্ধের অলি-গলি পার করে, মরুভূমির উত্তপ্ত বালুতে পা ফেলে আত্মবিসর্জন দিতে আসেনি ‘আমি’। এক আভিজাত্য বিভার ঐশ্বর্যে আলো ছড়িয়ে জানিয়ে দিচ্ছি, এই যে শুনুন; আমি সেই ফিনিক্স, যে আগুণে পুড়ে ছাই হয়ে বৃষ্টির জলে জেগে উঠি। যে জলে ভিঁজে যায় আপনার অক্ষর, আর “মহামানব” এবং “পন্ডিত” উপাধিতে সজ্জ্বিত হয় আপনার মেঘ-রাত্রির কবিতা।

হ্যামিল্টন, কানাডা
১৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৫ ইং।

**লেখাটির সাথে ভিডিওটি কোনোই মিল নেই। তবুও দিলাম। শুন্য শুন্যালয় আপুর জন্যে। আপুটা বারবার বলে, কিন্তু দেয়া হয়ে ওঠেনা। এখন হঠাৎ এই গানটি পেয়ে গেলাম একটা ফাইলে। শুন্য আপু তুমি যে গানটা গাইতে বলেছো, সেটা গাইবো আরেকদিন।

৪৯১জন ৪৯১জন
0 Shares

৬৬টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

লেখকের সর্বশেষ মন্তব্য

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ