অনেকদিন থেকে বন্ধুদের জন্য কনে দেখছি। পাত্র পক্ষের হয়ে কনে পক্ষের সাথে অনেক বিষয়ে কথা বলছি। আলাদা ভাবে কনেদের সাথেও কথা বলছি । আজ আপনাদের কাছে যা বলছি সেখানে আমি নিজেই পাত্র । আসুন শুরু করা যাক প্রথম থেকে ঃ

আমার বন্ধুদের প্রায় সবার বিয়ে করা শেষ আমরা দুই থেকে তিন জন এখন বাকি আছি । তো কথায় কথায় এক বন্ধু বলল চল তোকে একটা মেয়ে দেখাই তোর পছন্দ হলে পরে কথা বলা যাবে । প্রথম দিন তেমন একটা আগ্রহ দেখালাম না । বললাম পরে যাব এভাবে কয়েকদিন গেলো । সম্ভবত গত ১১ ই নভেম্বর এর ঘটনা দোস্ত আমার ফোন দিয়ে বলল আজ আমরা যাচ্ছি । এখানে বলে রাখা দরকার মেয়েটি আমার বন্ধুর মামা শ্বশুরের মেয়ে । যাহোক , হাতে ওইদিন অনেক কাজ ছিল তাঁর পরে আবার আবহাওয়া ভাল ছিলনা । আমার যতদূর মনে পড়ে অনেক শীত আর নিম্নচাপ ছিল । দোস্ত আমার বলল আমরা ৪ জন যাব । তোর ভাবী আমি তুই আর ছোট ভাই, মামি অনেক দিন থেকেই যেতে বলছিল চল এই সুযোগে কাজ টাও হয়ে যাবে । আমি প্রথমে রাজি না হলে ও শেষ পর্যন্ত বন্ধুর কথায় গেলাম । মনে একটা ভয় ছিল বাড়িতে জানলে সবাই অনেক কষ্ট পাবে । আমি একাই মেয়ে দেখতে যাচ্ছি ?

যাহোক , আমরা বাসে উঠলাম সন্ধায় নাটোর থেকে রনবাঘা গেলাম ঘড়ি দেখি নাই সম্ভবত ৭ টা বেজেছিল । রনবাঘা নামার পরে একটা সিএনজি ভাড়া করে কিছু দূর যাবার পরে একটা রাস্তার মাথায় নামায় দিল । ভেতরে একটা অনুভূতি কাজ করতেছিল আপনাদের কাছে ব্যাখ্যা করার মত ভাষা আপাদত আমার জানা নাই । এবার আর কোন গাড়ি নাই হাঁটতে হবে, শুরু করলাম হাটা গ্রামের দিকে হাঁটছিলাম আর হাঁটছিলাম মাঝে মাঝে দু একটা মোটর সাইকেল পার হয়ে যাচ্ছিলো । ঠাণ্ডায় জড়সড় হয়ে বাড়ি গেলাম তখন প্রায় রাত ১০ বাজে ।

বাড়িতে ঢুকার পরে গেস্ট রুমে বসলাম , ভাবী আর ছোট ভাই ভেতরে গেলো । একটু পরে দেখি একজন দু জন করে আসে আর যায় আমি ভাবছিলাম হয়তো এমনিতেই , কিন্তু উদ্দেশ্য যে আমি বুঝতে খুব বেশি একটা সময় লাগলো না । নাস্তা আসলো কয়েক রকমের যা দেখে আমার অবস্থা খারাপ তিন দিনেও এত খাবার শেষ করা আমার পক্ষে সম্ভব ছিল না । আমি ভাব নিলেও ভেতরে আরেকটা ভয় কাজ করতে লাগলো আল্লাহ্‌ এই রাতে আসলাম পাত্রী দেখতে যদি এখন আমার বাসায় খবর দেয় বা বিয়ে দিয়ে দেয় ? আমি শেষ এলাকায় ঢুকা অসম্ভব । আবার মনে সাহস পেলাম বন্ধু আমার পাশে আছে । তাদের  ভাগ্নি তো আমার এলাকায় আছে তা ভেবে হয়তো তেমন কিছু করবে না । আর উল্টা পাল্টা কিছু করলে নাটোর ঢুকলে সুদে আসলে শোধ দিব । আবার মনে হল ধুর কি ভাবছি আসছি ঘুরেফিরে যাই । মনের ভেতর এইসব চলতে ছিল । যাহোক নাস্তা গুলির বেশি দোস্ত রে দিয়ে শেষ করালাম।

রাত তখন প্রায় ১১ টা । রাতের খাবারের আয়োজন । আমি অবাক হলাম তারা এত রকমের খাবার তৈরিতে কত না জানি সময় লাগাইছেন । আমি গুনে রাখছিলাম প্রায় ১৭ রকমের খাবার ছিল পানি ছাড়া । আমি খাইতে পারলাম না বেশি একটা দোস্ত আমার খাইতেছিল কোন রকম বিবেচনা ছাড়া । আর খাবেই বা না কেন ? তাঁর তো মামা শ্বশুর বাড়ি । খাবার শেষ করে আমি একটা কম্বল গায়ে দিয়ে বিছানার এক পাশে বসে টিভি দেখা শুরু করলাম । এর মাঝে অনেকেই আমার রুমে আসছেন , মেয়ের দাদি, চাচা, চাচি, ছোট ভাই, দাদা আরও অনেকেই ।

রাত প্রায় বারটার কাছাকাছি মেয়ে (পাত্রী) আমার রুমে আসলো , বন্ধু সোফায় বসতে বলল । মেয়েটা সামনা সামনি বসলো । দোস্ত, আমার কেমন আছ ? কি অবস্থা ছোট ছোট কয়েকটা প্রশ্ন করলো । আমি কি বলবো ভেবে পাচ্ছিলাম না দোস্ত আমার বার বার বলতে ছিল কিছু জানতে চাইলে জিজ্ঞেস কর । আমি বিভিন্ন প্রোজেক্ট এর কাজে বিভিন্ন স্কুল , কলেজ এ প্রোগ্রাম করেছি, একসময় নিজের একটা কোচিং ছিল, মেয়ে কলিগ ছিল, এবং বন্ধু দের বিয়ের অনেক পাত্রী দেখতে গিয়েছিলাম। সব মিলিয়ে মেয়েদের সাথে আমার অনেক মেশার সুযোগ হয়েছে । কিন্তু এই মেয়ে দেখতে গিয়ে বুঝলাম আমি অনেক অপরিপক্ক । আমি তেমন কিছুই জিজ্ঞেস করতে পারলাম না । মাত্র কয়েকটি প্রশ্ন করেছিলাম । আপনাদের বলি হাসবেন না কিন্তু !!!

# তুমি লেখা পড়া করছ কোথায় ?

-একটি মহিলা কলেজে।

# লেখা পড়া শেষ করে নিজে কিছু করবো বা হব ? এমন স্বপ্ন দেখো ?

– মেয়েটি মনে হয় আমার এই প্রশ্নের জন্য প্রস্তুত ছিল না ।

# বিয়ের জন্য বড়রা বলছে জন্য না নিজের ও সম্মতি আছে ?

– কোন উত্তর দেয় নি ।

# তোমার যদি এখন বিয়ে হয়ে যায় । লেখা পড়া শেষ করবা না ?

– বড়রা যা বলবে তাই করবো ।

# তোমার বাবা কি করেন ?

– একটি গ্যাস ফিল্ডে চাকরী করেন । সেখানেই থাকেন ।

আমি যখন এই প্রশ্ন গুলী করছিলাম আপনারা বিশ্বাস করবেন কিনা জানিনা প্রথম থেকে শেষ পর্যন্ত মেয়েটির দিকে একবার তাকিয়েছিলাম মাত্র । অনেক রাত হয়ে গেছে বললাম ঠিক আছে তুমি যাও ।

মেয়েটি যাবার কিছুক্ষণ পরে মেয়েটির মা আসলেন ছালাম দিলাম। পাশের সোফায় বসলেন । অনেক সময় আমার দিকে তাকিয়ে ছিলেন । কিছুই জানতে চাইলেন না । কোন প্রশ্নও করলেন না । আমি আসলে বুঝতে পারছিলাম না আমার কি করা উচিত । তাঁর পরেই জানতে চাইলাম কেমন আছেন ? উত্তর দিয়েই জানতে চাইলেন আসার সময় কষ্ট হয়েছে কিনা ? আর এখন কিছু লাগবে কিনা ?

আমি না সুচক উত্তর দিলাম ।

আর মনে মনে পাঁশে বসে থাকা বন্ধুরে গালি দিতেছিলাম । শালা কোন বিপদে আমারে ফালাইল টেনশন এ তো এখন ঘুমও আসবে না । প্রায় রাত একটা বাজলো । গ্রাম পুরাই সুনসান নিরব । আমরা ঘুমের প্রস্তুতি নিলাম । আর মনে মনে ভাবতে ছিলাম ভোর বেলা এই এলাকা ছাড়তে হবে না হলে । গ্রামের মানুষ আমারে দেখতে আসবে :v  😛 দোস্ত রে বুঝাইলাম দেখ সকালে আমার অনেক কাজ ৮ তাঁর মাঝেই নাটোর যেতে হবে । তুই কালকে থাক আর বাড়ি আসলে আমরা একসাথে বসে সব ব্যাপারে কথা বলবো ।  যাহোক দোস্ত মানেজ করলো আমি সকালেই বের হচ্চি । আমি ঘুম থেকে উঠলাম অনেক ভোরে । উঠেই রেডি হলাম । ও বাবা একি সকাল ৭ তাঁর মাঝেই হরেক রকমের নাস্তা, পিঠা , মিষ্টি  আর কত কি ? ভাবলাম আল্লাহ্‌ এইকি জামাই আদর ? রাতে দুই বারে যা দিছে আর এখন যা দিল আমি নিশ্চিত ৭ দিন খাইতে পারব !!

তাহলে কি একেই জামাই আদর বলে ??????

আমি কোন রকম হালকা খেয়েই সবার কাছে বিদায় নিয়ে বের হলাম । কপাল মন্দ গ্রামে কোন গাড়ি পাইলাম না । বন্ধু মেইন রাস্তা পর্যন্ত আগাইয়া দিল । রাস্তায় এসে বাসে উঠার পরে মনে হল আমি স্বাধীন ! আমারে আর কে ধরে ? ভেতর থেকে ভয় গুলী কেটে গেলো । নাটোর এসে হাঁসপাতালে উঠলাম কিছু কাজ ছিল শেষ করে বাড়ি গিয়া গত রাতের ঘুম কভার করলাম ।

এর মাঝে বন্ধু আমার অনেক বার ফোন দিছে । ধরি নাই , তাঁর দুদিন পরে বন্ধু আমার বাড়ি ফিরে আমারে ফোন দিতেছে  আমি আর দেখা ও করি না ফোন ও ধরি না । আসলে আমি কি জবাব দিব ? আমি সেখানে যাবার আগেই বলছিলাম দেখ আমি কিন্তু এখন বিয়ে করবো না । আমার আর কিছু সময় লাগবে ।

এর পরে মনে হয় ৫ দিন পরে বন্ধুর প্রতিষ্ঠানে গেলাম । কথায় কথায় আমারে বলল মামি তো তোর মতামত জানতে চাইছে । ভাল মন্দ কিছু তো বললি না । আমি তাকে আগের কথাই বললাম ।

ও মেয়েটির কথা আপনাদের বলা হয়নি । মেয়েটি একটু শ্যামলা বর্ণের ছিল । হয়তো তারা ভেবেছিলেন আমি সে জন্য আর সামনে আগাইনাই । আসলে আমার কালো ধলায় কোন সমস্যা নাই । আমি একজন মানুষ চাই । যার আলাদা পার্সোনালিটি আছে । যে অন্যায় কে অন্যায় বলবে তাঁর কাছে অন্যায়ের বা মিথ্যার প্রশ্রয় থাকবে না । যে আমার সাথে বন্ধুর মত মিশবে । জিবনের উত্থান পতনের সম অংশীদার হবে । যে আমার কাছে বা তাঁর পরবর্তীদের কাছে একটি প্রতিষ্ঠান হিসেবে গণ্য হবে । এই গুলী কেন চাইব না বলেন ? আমি এসএসসি পাসের পরে  একবার বিচ্ছিন্ন ভাবে একটি মেয়ের সাথে সম্পর্কে জড়িয়েছিলাম অনেক স্বপ্ন ছিল যাহোক মেয়েটি জানিনা কি কারণে চলে গেছে , তাঁর পরে তাঁর সে দিকে জড়াই নাই ভেবে রাখছিলাম প্রেম করবো বিয়ের পরে । দেখবো কিভাবে কোন দিকে আমার প্রেম পরাজিত হয় ।

জিবনের ২৮ বসন্তে এসে আজ ও সে বিশ্বাসে আছি। দেখা যা সামনে কি হয় ……………………………….

উপরে আমি যা লিখেছি তা হুবুহ বর্ণনা করেছি মাত্র । তাই হয়তো পেশাদার লেখকদের লেখার মত রস খুঁজে পাবে না । আসলে কল্পনা না মেশালে লেখায় কেমন জানি অপূর্ণতা থাকে আমার মত । কিন্তু এই জাগায় আমি খুবই দুর্বল , ভালো থাকবেন সবাই ।

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

৭৪৩জন ৭৪৩জন
0 Shares

৪টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

লেখকের সর্বশেষ মন্তব্য

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ