spirit

সাত দিন পুর্বে হঠাৎ কিভাবে জেনো মরে গেলাম। আত্মার আসলে মৃত্যু নেই।নতুন আত্মার জগত,তেমন কাজ কর্ম নেই।ঘুরে ফিরে দেখছি কোন কাজটি করা যায়। বলা যায় অলস সময় যাচ্ছে।কিছু খেতে হয়না এখানে যে কারনে খাবার জন্য কাজে করতে হয়না। বিভিন্ন স্থানে আত্মারা জটলা করে আড্ডা দিচ্ছে। হেটে হেটে ভেসে ভেসে দেখছি সব।হঠাত কানে আসলো একটি আড্ডার আত্মাদের কথাবার্তা।অন্য দিকে তাকিয়ে কান চুলকাচ্ছি আর শুনছি এদের কথা।এরা সবাই অতৃপ্ত আত্মা। জীবিত জগতে গিয়ে তাদের অতৃপ্ত আত্মাকে কিভাবে তৃপ্ত করছেন তার বর্ননা করছেন একেকজন। আরে আমিও তো অতৃপ্ত আত্মা,আমি কেন তৃপ্ত করছি না আমার আত্মাকে?চিন্তা করতে যত দেরী,মুহুর্তে চলে এলাম জীবিত জগতে। কি করা যায়? প্রথমে লিস্ট।
১। ফেইসবুকে যারা আমাকে ব্লক করেছে তাদেরকে দেখে নেয়া
২। সোনেলার কয়েকজন যারা আমাকে পিচ্চি বলেছে তাদেরকে দেখে নেয়া।

অপারেশন শুরুঃ
তিন জনকে ধরতে হবে আজ।তিনজনের তালিকা আছে তোমার জন্য রাতে……… পোষ্টে। আমার কচি হৃদয় খানা ছিন্ন ভিন্ন করে দেয়া তিনজনের উপর চরম প্রতিশোধ নিতে হবে।

লাবণী আপু অনলাইনে আমার প্রথম প্রেম ছিলেন।রাত ১২ টায় গেলাম তার বাসায়।ডিনার শেষ করে কেবল ল্যাপটপে বসে ফেইসবুকে লগইন হলেন।ম্যাসেজের ওখানে ২৭ টি লাল নোটিশ।ভালোই চালাচ্ছেন আপু। চ্যাট অন করলেন, কাষ্টমাইজ করার ফলে চার জনকে অন রাখলেন।আরে সর্বোনাশ আপু দেখি ভালোই লুতুপুতু চালাচ্ছেন চার জনের সাথে। লাভ ইউ উম্মমা কপি পেস্ট দিচ্ছেন চার জনকেই। কি বোর্ডে আঙ্গুল চলছে এমন গতিতে যে আঙ্গুল দেখা যাচ্ছেনা।
আমার কাজ শুরু করলাম,একজনের ম্যাসেজ অন্য জনকে দিয়ে দিচ্ছি। বসুন্দরার সিনে কমপ্লেক্সে মুভি দেখেছেন রাহাতের সাথে। সে অভিজ্ঞতা শেয়ার করলাম সুমন এর সাথে। সুমনের সাথে আশুলিয়ায় ডেটিং এর সুখ স্মৃতি শেয়ার আসফাক এর সাথে। এমন প্যাচ লাগিয়ে দিলাম যে সবাই বুঝে গেলো লাবণী আপু এন এক্সপার্ট হেড মিস্ট্রেস। চারজনই ব্লক করলেন আপুকে।ফোনে টেক্সট – ব্রেক আপের   :D)    \|/   ব্লক খেতে কেমন লাগে বুঝে দেখো এবার।
এরপর সুপর্নার বাসায়।জানি এই মেয়ে সারারাত চ্যাট করে।রাত চারটায় গেলাম ওর বাসায়।যা ভবেছি তাই। চলছে চ্যাট।ল্যাপ্টপের স্কিনে নাম দেখি শুভ্র। আহা এমন কথা কিছুদিন আগেও বলেছে আমাকে। জানটুস,জানু,সোনা আরো কত কি।রাতের পর রাত আমাকেও বলেছে এসব কথা। সুপর্নার ছোট ভাইর রুমে গিয়ে ল্যাপটপ অন করে লগইন হলাম আমার ফেইসবুক প্রফাইলে।শুভ্র শুভ্র সার্চ দিয়ে পেলাম।হাই শুভ্র এখন আপনি সুপর্নার সাথে চ্যাট করছেন জানি আমি।সুপর্না আমার জান ওর সাথে আমার প্রেম চলছে। লিখলাম এসব তার ইনবক্সে। প্রথমে গালাগালি করলো।এরপর আমিই বললাম, এই নিন আমার ইউজার আইডি, এই নিন আমার পাসওয়ার্ড। লগইন হয়ে দেখুন।
কৌতুহুল খুব বড় একটি বিষয়।লাভারের পিছনে গুপ্তচরের মত লেগে থাকে সব নর নারী। শুভ্র লগইন হলো।ইনবক্স এ সুপর্না আর আমরা সব মেসেজ পড়লো। মুহুর্তের মধ্যে দেখে এলাম শুভ্রর অবস্থা। এখন আবার যাই সুপর্নার কাছে। আমার আর সুপর্নার চ্যাট হিস্ট্রি আসা আরম্ভ হলো। সাথে শুভ্র বচন- দ্বিচারিণী , চরিত্রহীনা ইত্যাদি ইত্যাদি। আহালে আমার জানটুসটার মুখ, কালো হয়ে গেলো এসব দেখে। অবশেষে শুভ্র ব্লক দিলো সুপর্নাকে।  \|/

ইপসিতা আমার এঞ্জেল।তুমি কি সেই আগের মতই আছো নাকি বদলে গেছো,জানতে ইচ্ছে করে। অলস দুপরে গেলাম ইপ্সিতার বাসায়। সোফায় শুয়ে শুয়ে মোবাইলে কথা বলছে। মুহুর্তের মধ্যে দেখে নিলাম স্কিনে কার সাথে কথা চলছে। চলে গেলাম তার প্রেমিক সৈকতের কাছে।মধ্যমা দিয়ে তার কপাল স্পর্শ করলাম। ত্রিমাত্রিক মুভির মত এক মুহুর্তে দেখে নীল আমার আমার ইপসিতার পুয়াতন কাহিনি।কিছু এডাল্ট ক্লিপ জুড়ে দিলাম :p এরপর পর যেতে হয় ইপসিতার কাছে। ইপসিতার মুখ তখন কাকের মত,সোফায় উঠে বসে কথা বলছে…… না মানে … সজীব নামে তো কাউকেই চিনি না……… সব মিথ্যে কথা…… সানজিদা বলেছে তোমাকে ? ……… আসলে তেমন কোন সম্পর্ক ছিল না……… দু একদিন কিস করেছি ……… প্লিজ প্লিজ   ;(

প্রথম অভিযানের এখানেই সমাপ্তি।কিছুটা তৃপ্ত হলো আমার আত্মা   \|/
অপেক্ষা করুন সোনেলার ব্লগারগণ। এবার আপনাদের পালা  🙂

গত রাতের স্বপ্ন এটি। ইচ্ছে করে স্বপ্ন দেখতে চাই আরো।

৫২৮জন ৯৫১জন
0 Shares

৬০টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

লেখকের সর্বশেষ মন্তব্য

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ