আমাদের বাবা

সুরাইয়া নার্গিস ২১ আগস্ট ২০২০, শুক্রবার, ০৭:২৯:০৩অপরাহ্ন একান্ত অনুভূতি ২৭ মন্তব্য

আমার জানামতে আব্বু,সুচ,ব্লেড,দা, কাচি,ইনজেকশনে ভিষন ভয় পায় তাই নিজে নিজে হাত, পায়ের নখ কাটতে ভয় পায়। আব্বুর ছোটবেলায় দাদুমনি নখ কেটে দিতেন,বিয়ের পর আম্মু নখ কিটে দিতেন ☺

তারপর ছোটবেলা দেখতাম আমার বড় আপ্পি তাবাসা আব্বুর হাত,পায়ের নখ কেটে দিচ্ছে আমার ভিষন হিংসে হত।আব্বু বড় আপ্পিকে বেশি ভালোবাসে ইসস্ আমিও যদি নখ কেটে দিতে পারতাম। যদিও সবাই আমাকে বেশি আদর করতো তবু ভাবতাম আমাকে আরো বেশি ভালোবাসতেন,আদর করতো আফসোস হতো।

ছোটবেলা থেকেই সুচ,দা,কাচি,ছুরি, ব্লেড আমি ভয় পেতাম না খুব সাহসী তাই আক্ষেপটা বেশিদিন করতে হয়নি। সুযোগটা একদিন কাজে লাগালাম আব্বু তাবাসা, তাবাসা বলে ডাকছে। খোঁজে দেখলাম আপ্পি বাসায় নেই মানে পাশের বাসায় বেড়াতে গিয়েছে এটাই সুযোগ। আমি নেইল কাটার না নিয়ে নতুন ব্লেড নিয়ে গেলাম আব্বু নখ কাটতে আব্বু ভয়ে বললেন তুমি ছোট পারবে না। তাবাসা আসুন কেটে দিবে, আমি অভিমানে কান্না শুরু করে দিলাম বড় আপ্পিকে বেশি ভালোবাসা।আমার চোখের পানি সহ্য করার ক্ষমতা আব্বুর নেই রাজকন্যা বলেই হাত বাড়িয়ে দিলেন নাও তুমি আমার নক কেটে দাও।

খুশি মনে হাতের নখ কাটলাম পায়ের বৃদ্ধাঙ্গুলি কাটতে গিয়ে পায়ের নখ সহ অর্ধেক আঙ্গুল কেটে ফেললাম ভয়ে আমি চিৎকার করে কাঁদছি আম্মু তাড়াতাড়ি আস। আমি নখ কাটতে গিয়ে আব্বুর পা কেটে ফেলছি 😭। এদিকে আব্বু মা-গো বলে চিৎকার করছেন রাজকন্যা এটা তুমি কি করলে বলেই হাত থেকে ব্লেডটা ফেলে, নিজের লুঙ্গি দিয়ে আমার হাতটা চেপে ধরলেন জান্নাত (জান্নাত আম্মুর নাম) তাড়াতাড়ি আস।

আমি আরো বেশি ভয় পেলাম হয়ত আব্বুর কষ্ট হচ্ছে, কাঁদতে কাঁদতে বললাম আব্বু তুমি বেশি ব্যাথা পাচ্ছো.? আমার কথা শেষ করার আগেই আব্বু ধমক দিলেন তুমি চুপ করো। নিজের হাত কেটে ফেলছো রক্ত বের হচ্ছে সেই খবর আছে.? চেয়ে দেখি ফ্লোরে রক্ত আমার হাতের দু-আঙ্গুল কেটে ফেলছি😭আব্বু কোলে নিয়ে দৌঁড়ে ডাক্তারের কাছে গেলেন ব্যান্ডেজ,ঔষধ তারপর বাসায় নিয়ে আসলেন। কখন ঔষধ খাব তা খেয়াল রাখতেন নিজেও ঔষধ খেতেন, আমি আর কোনদিন নখ কাটতে চাইনি আম্মু আমার নখ কেটে দিতেন।

কয়েক বছর পর বড় আপ্পির বিয়ে হয়ে গেল আমিও বড় হলাম, আপ্পি আমাকে আব্বুর নখ কেটে দিবার দায়িত্ব দিয়ে গেলেন।গত ৬বছর ধরে আমি আব্বুর হাত,পাযের নক কেটে দেই এটা আমার কাছে ভিষন আনন্দের ব্যাপার।

কিছুদিন আগে ফ্রেসবুকে প্রিয় ব্লগার “নাজমুল হুদা” ছোট ভাইয়া পোষ্ট করছিলেন “কে কে বাবার হাতের নখ কেটে দাও, আমিও বাবার নক কেটে দেই অনেক সুন্দর একটা পোষ্ট এমন কিছু লেখা” ওখানে আমি কমেন্টস করছিলাম “ছোট ভাইয়া আমিও আমার আব্বুর হাত পায়ের নখ কেটে দেই, আমাদের বাসার আশে পাশে যত মুরব্বি আছেন। আমি হাত পায়ের নখ কেটে দেই মনে খুব শান্তি পাই”..জানো আব্বু গতকাল ছোট ভাইয়ার বাবা মারা গেছেন কথাটা শোনার পর থেকে আমার খুব কষ্ট লাগছে। আজ ওনার বাবা বেঁচে নেই কিন্তু আমি আমার আব্বুর হাতের নখ কেটে দিতে পারছি।আজ সকালে আব্বুর হাতের,পায়ের নখ কাটার সময় কথা গুলো বলছিলাম। কোন একদিন হয়ত আমরা বেঁচে থাকবো না সব স্মৃতি হয়ে থাকবে তাই না আব্বু।আব্বু মৃত্যু কত বড় সত্যি জন্ম নিলে একদিন মরতেই হবে। কথা গুলো বলতে বলতে আমার চোখ থেকে পারি ঝরতে লাগলো আর কিছু বলতে পারছিলাম না আব্বুও কষ্ট পেলেন চোখে পানি। রাজকন্যা কেঁদো না ওনার জন্য নামাজে দোয়া করিও আল্লাহ্ যেন ওনাকে বেহেস্তের নসীব দান করেন আমিন।

নাজমুল হুদা ভাইয়ার বাবার অসুস্থতার খবরটা শোনার পর মাঝে মাঝেই আঙ্কেলের খোঁজ নিতাম এত তাড়িতাড়ি হারিয়ে যাবে বুঝতে পারি নাই। একদিন হয়ত আমার বাবাও থাকবেন না 😭 বাবা কি সেটা বেঁচে থাকতে বুঝি না। মৃত্যুর পর কি ভাবে বাঁচব ভাবতেই কষ্ট লাগে “হে আল্লাহ্ আমার সহ পৃথিবীর সকল বাবা মাকে তুমি নেক হায়াত বাড়িয়ে দাও। যারা পরপরে চলে গেছেন তাদের জান্নাত দান করুন..

সুপ্রিয় ব্লগার ” নাজমুল হুদা” ছোট ভাইয়ার বাবার মৃত্যুতে আমরা সোনেলা পরিবার খুবই মর্মামত,সবাই খুব কষ্ট পেয়েছি। এই মৃত্যুর শোকে শান্তনা দিবার ভাষা আমাদের কারো জানা নেই, বাবা নামক বটবৃক্ষটা অমূল্য একটা সম্পদ যা হারালে আর ফিরে পাওয়া সম্ভব না। দোয়া করি আল্লাহ্ কাছে ভাইয়ার পরিবারের সবাইকে এই শোক সইবার ক্ষমতা দিন,আঙ্কেলের জীবনের সমস্থ গুনাহ্ মাফ করে তাকে জান্নাতুল ফেরদাউস দান করুন আমিন।

“রাব্বির হাম-হুমা কামা রাব্বাইয়ানী সগিরা”

২৩২জন ৬২জন
0 Shares

২৭টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ

লেখকের সর্বশেষ মন্তব্য