বনানীর আগুন দূর্ঘটনার পর আমাদের দেশে স্যোশাল মিডিয়ায় বর্তমানে সব চেয়ে আলোচিত নিউজ হচ্ছে দুটো।

১. মসজিদের ইমাম কর্তৃক সাত বছরের শিশুকে মুক্তিপণের টাকা না পেয়ে জবাই করে হত্যা,

২. ফেনীর সোনাগাজী মাদ্রাসার আলিম পরীক্ষার্থী নুসরাত জাহান রাফির উপর হামলা।

আরেকটি নিউজও ভাইরাল হয়েছে, তা হলো ” গা ঘেঁষে দাঁড়াবেন না “। আপাতত গা ঘেঁষে দাঁড়ানোর ব্যাপারে কিছু বলতে চাই না। ব্যাপারটা নিয়ে প্রচুর লেখা–লেখি এমনিতেই হয়েছে/হচ্ছে।

বলছিলাম নুসরাত জাহান রাফির কথা। মেয়েটি সোনাগাজী মাদ্রাসার আলিম পরীক্ষার্থী। একই মাদ্রাসার অধ্যক্ষ সিরাজ উদ দৌলা তাকে গত ২৭শে মার্চ ধর্ষণের চেষ্টা করায় মেয়েটি ও তার পরিবার অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে সোনাগাজী থানায় একটি মামলা করেছিলো। পুলিশ সিরাজ উদ দৌলা কে গ্রেফতার করার পর অভিযুক্তের পক্ষের লোকজন মামলা তুলে নেয়ার জন্য রাফি ও তার পরিবারকে নানাভাবে ভয়ভীতি প্রদর্শন করতো। সর্বশেষ গত শনিবার সকাল দশটায় রাফি পরীক্ষা দিতে মাদ্রাসায় এলে, তাকে মাদ্রাসা ভবনের ৪র্থ তলায় নিয়ে মারধর করা হয় এবং গায়ে আগুন ধরিয়ে দেয়া হয়। মেয়েটির শরীর ৮০℅ পুড়ে গেছে। তার জীবন এখন সংকটপূর্ণ। ঘটনাটির সাথে জড়িতদের গ্রেফতার অভিযান শুরু হয়ে গেছে, হয়তো তাদের সাজা হবে।

এই পর্যন্ত সব ঠিক মনে হলেও, আসলে ঘটনাটি আমায় অন্য রকম ভাবনায় নিয়ে গেছে। রাফিকে জিজ্ঞাসাবাদ করে জানা গেছে তার উপর চারজন হামলাকারীরা বোরখা পরিহিত ছিলো, এক জনের নাম ছিলো শম্পা আর শম্পাকে যে ডাকছিলো সেও কোনো মেয়ে ছিলো। বাকি দুজনকে সে চিনতে/ বুঝতে পারেনি।

তারমানে হামলাকারীরা নারী ছিলো !! ধর্ষণ আর ধর্ষকের পক্ষে নারীরা চলে এসেছে !! আরো দেখলাম আজ মাদ্রাসার ছাত্রীরা তাদের প্রিয় (??) অধ্যক্ষকে ছাড়িয়ে নেয়ার জন্যে মিছিলে যোগ দিয়েছে ! ভাবতে অবাক লাগছে এরা নারী, আর এরা আন্দোলন করছে এক ধর্ষককে বাঁচানোর জন্যে।

* কিছুদিন আগে আপনি সোশ্যাল মিডিয়ায় স্ট্যাটাস দিয়েছিলেন আমাদের দেশে কোনো জঙ্গি নেই , আমি বলেছিলাম জঙ্গি নেই তবে জংলীদেরও অভাব নেই। এবার আপনি কি স্ট্যাটাস দিবেন ?

৬৮৪জন ১৮৭জন
64 Shares

৫২টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

লেখকের সর্বশেষ মন্তব্য