আমাদের দেখা হয় না আর //

বন্যা লিপি ৬ জুলাই ২০২০, সোমবার, ০১:৪৭:২০পূর্বাহ্ন একান্ত অনুভূতি ২৪ মন্তব্য

আমাদের আর দেখা হয় না:আমরা আর অপেক্ষা করি না কেউ কারো জন্য। এখানে ওখানে – চেনা রাস্তার মোড়ে অথবা সেই পুরোনো চা স্টলে!

বলিনা, আমার জন্য পরিনীতা বইটা নিয়ে আসিস তো: তোর পড়া হলে;

ছুট দেইনা আর ল্যাম্পপোষ্টের আলোর নীচে। জীর্ণ শরীর নিয়ে ছেরে যাওয়া জায়গায়- জায়গা দখল করেছে নতুন ল্যাম্পপোষ্ট।

আমরা সরে গেছি আশ্চর্যরকম দূর থেকে দূরে। চৌমাথার কোনে এখনো চায়ের দোকানে কেটলির পানি টগবগ করে ফুটছে, হাতল ধরে আছে প্রজন্মের উত্তরাধিকার । অশিতীপর রোগে বিদায় নিয়েছে পুরোনো চেনা পরিচিত ঘ্রান, হাসি, আর যাবতীয় উদোম  স্মৃতির ঝাঁঝ। আমাদের পায়ের পাতা আর হাতের আঙুল এখন মনে করিয়ে দেয়- ধূসরতার দিন গোণা ।

স্টেডিয়ামের দেয়াল জুড়ে আদি প্রেমের পরিচয় খুঁজেছিলাম গেলো শীতের এক জমকালো বিকেলে।

পলেস্তারা বদলে গেছে ওখানে। দূরপাল্লার কতগুলো দামী গাড়ি আর টংয়ের চায়ের স্টলে মাঝবয়সী শকূন দেখলাম, চোখে তাদের ভাগাড়ের ক্ষুধা! ইট সুরকির রাস্তাটা সিমেন্ট বালুর নতুন পোষাক পরেছে। শকূণ গুলো নখে ধার নিয়েছে তীক্ষ্ণতর।

প্রতিদিন নাকি খুবলে তুলে খাচ্ছে ইঞ্চি ইঞ্চি জমির ফসল।
দূর থেকে দূরে সরে আছি;
আমাদের আর দেখা হয় না এসব কিছুই।
আমরা কিছু পৃষ্ঠার খোঁজে হন্যে হয়ে গালি ওগড়াই যেখানে সেখানে।
লম্বা হতাসার দীর্ঘশ্বাস ভুলে গিয়ে ত্রান বিতরন করি নাম প্রচারে।
খোলসের ভেতরে থেকে ব্যাতিক্রমিক তকমায় দুপুরের ভাতঘুম দিয়ে উঠে নিরাময় কেন্দ্রের লাইনে দাঁড়াই।

কদাচিৎ,একটা দুটো খোঁজখবর নেবার চেষ্টা করি
-কেমন আছিস তুই?

– এইতো;আছি আর কি!
– তুই?
– পরে দোস্ত! একটু বিজি আছি।

খটাস্ করে যোগাযোগ বন্ধ করে ডুবে যাই সংসারি আতঙ্কে!
আমাদের দেখা হয় না আর…….।

বেড়ে ওঠা কড়া সবুজের মাঝখানে হাতরাতে গিয়েছিলাম পুরোনো আড্ডা। ব্যাবচ্ছেদ হয়ে গেছে ঘাসের বিলিবন্টন!

আমাদের আর দেখা হয় না ! আশ্চর্যরকম দূরে সরে গেছি……

১৮৬জন ৫২জন
13 Shares

২৪টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ