আফিম (সোনেলা ম্যাগাজিন ২০২২)

সৌবর্ণ বাঁধন ২৭ জুলাই ২০২২, বুধবার, ০২:০১:৩৬পূর্বাহ্ন কবিতা ১৪ মন্তব্য

শুনেছি হয়ত ঘোরের মাঝে বিসর্জনের ঢেউ,
মনের মধ্যে ছলাত ছলাত! ভাঙ্গছে দুপার অকস্মাৎ,
শুনতে পায়না কেউ!
চায়ের কাপে হাসির চুমুক, টেবিল পুড়েছে প্রেমে,
দেয়াল ঘেঁষে সূর্যমুখীরা হাসছে থেমে থেমে,
তারপরো মাটি খুব পাথুরে, আগুনে লাভায় ভরা,
চাঁদের বুকে জমিন চাইলে দাম দিতে হয় চড়া!
ফানুসে গিয়েছে বুঝি উবে প্রসন্ন পাষাণে বিষাদ,
এখন আমি দুপুরের রোদ; বেজায় ছন্নছাড়া,
পুড়ি এবং পুড়াই সব,
জমছে গৃহপালিত ক্ষোভ! সীমান্তে যুদ্ধের ক্ষত,
এসব ঝুলিতে নিয়েই হেঁটেছি কতো,
ভারে হবেনা তারতম্য কোন!
আর্কিমিডিস ডুবিয়ে আপাত ভর হৃদয়ের হ্রদে,
পায়নি খুঁজে গহীন উদ্যানে কোন খাদ,
এখন সেখানে বসতি গড়েছে এক বিশুদ্ধ উন্মাদ,
চেপে আছে নটরাজ শিলাখন্ডের মতো আজ!

পরিযায়ী পাখি নাতিশীতোষ্ণ দেশে উড়ে যাও,
বিসর্জনের গহীন জলে অনায়াসে ডুব দাও,
স্রোতের তোড়ে কাঁপছে কংক্রিটের নগর বন্দর,
কতোক্ষণই বা টিকতে পারে
পলকা কাঠের হালকা নাও?
সন্ধ্যাবেলা সংঘের গান; অচিন ভ্রমর গায় গুঞ্জন,
মধ্যরাতে বেকায়দাতে বেরিয়ে আসে বিষম অসুর,
যুদ্ধ লাগায় দেব দেবতা! আমি তখনো নির্ঘুম!
মালভূমিতে হ্রেষাধ্বনি অমিত আভায় ক্ষণিক সুর,
বুকের ভিতর বহ্নিচিতা; তন্ত্র উড়ায় প্রেমের ধুম! 

তোমার বিসর্জনের দিনে ঘোর আপিমের ঘনঘটা, 
হয়তো তাই বেহুঁশ ছিল লাগামছাড়া অন্তরটা!
রাগ করোনা নদীর মেয়ে, কচুরীপানা যাচ্ছে বয়ে,
শীতের রাতে ছনের ঘরে জ্বালায় আগুন তুষ!
আগুনের চেয়ে জল ভালো,  
বিসর্জনের তীব্র ঝড়ে যমুনার জল কৃষ্ণকালো!
আগুন ছোঁয়া সন্ধ্যাবেলা আবার দেবীর পুনুরুত্থান,
বুকের ভিতর কল্লোলিত স্বর বলছে বিস্ময়ে-
‘ভালোবাসা লতার ডগায় থাকা জীবনের নাম!’
পরাজিত হাত মাটি ফুড়ে এসে
দিচ্ছে ইশারা-  
‘অনন্ত চক্রে ঘোরা বৃত্তের রেখা এইবার তুই থাম!’

ছবি ক্রেডিট @ নিজস্ব

৩০৩জন ৩২জন
0 Shares

১৪টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

লেখকের সর্বশেষ মন্তব্য

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ