আজ ০৫ অক্টোবর- বিশ্ব শিক্ষক দিবস। বাংলাদেশসহ গোটা বিশ্বে আজকের এই দিনটি পালিত হচ্ছে। আজ বিশ্ব শিক্ষক দিবসে আপনাদের কাছে আমার অন্যতম প্রিয় এবং শ্রদ্ধেয় কুদ্দুস স্যারের কথা বলবো।

———————

আমি বাংলাদেশের অন্যতম সেরা শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান রংপুর জিলা স্কুলের ছাত্র ছিলাম। তৃতীয় শ্রেণি থেকে এসএসসি’র এই পুরো সময়টা আমার ছাত্রজীবনের স্বর্ণকাল ছিল। কত স্মৃতিগাঁথা লেখা রয়েছে জিলা স্কুলের আঙিনার সেইসব অশ্বত্থ আর বট গাছ গুলোর প্রতিটি পাতায়! স্কুলের পিছনের পুরানো বিল্ডিংয়ে হয়তো এখনো রয়েছে আমার পায়ের ছাপ। সেই পুকুর কি এখনো আগের মতই আছে যেখানে আমরা গোসল করতাম? বিশালাকৃতির খেলার মাঠে উদ্যাম খেলাধুলা, ঝাল-মুড়িওয়ালা মান্নান মামা, ক্লাসের বেঞ্চগুলি, টিউবওয়েল, লম্বা বারান্দা, শিক্ষকদের টেবিলে কলম খেলা, বাথরুমের নিষিদ্ধ সব মজা আরো কত কি? সে সবকিছু আজও স্মৃতিতে উজ্জ্বল।

আমার আজও মনে দাগ কেটে আছে বন্ধুদের সাথে এবং শিক্ষকদের সাথে কাটানো কিছু অমূল্য সময়। শিক্ষকদের কথা আরেকদিন বলব, আজ বলি আমাদের সে সময়ের প্রধান শিক্ষক কুদ্দুস স্যারের কথা। উত্তরাঞ্চলে তার মতন কড়া শিক্ষক যার আদর্শ, মহানুভবতা, শাসন, আদর আর বুদ্ধিমত্তা এসব কিছু আজও সব ছাত্র এবং শিক্ষকদের কাছে আদর্শ ।

একদিনের কথা বলি, এসেম্বলি ফাঁকি দেওয়া আমার নিত্যদিনের স্বভাব। এ কারণে বাসা থেকে ঠিক সময় বের হয়েও এসেম্বলি’র সময় স্কুলের দেয়ালের পিছনে কিংবা ক্লাসের দরজার পাশে লুকিয়ে থাকতাম যাতে এসেম্বলিতে যেতে না হয়। কিন্তু বিধিবাম, কথায় বলে- দশ দিন চোরের একদিন গেরস্থ। ধরা পড়লাম একদিন!কুদ্দুস স্যার কেমন তীক্ষ্ণ দৃষ্টি শক্তির মানুষ তা সেদিন বুঝেছিলাম। যথারীতি সবাই অ্যাসেম্বলি শেষে ক্লাসের দিকে যাচ্ছে তখন আমি স্কুলের গেট দিয়ে প্রবেশ করলাম বীরের বেশে। সেদিন বারান্দা থেকেই আমাকে দেখেছিলেন তিনি। পিয়ন দিয়ে আমাকে তার রুমে ডেকে নিলেন। আমার তো অবস্থা খারাপ, ভাবছি আজই শেষ। আত্মারাম খিঁচে গেলো, পা ঠকঠক করে কাঁপছে। ক্লাসের ধর্ম বই থেকে শেখা সব দোয়া দরুদ পড়া শুরু করেছি তখন। স্যারের রুমের বাইরে গিয়ে দাঁড়ালাম। তার রুমে আরো তিনজন শিক্ষক ছিলেন -আপেল স্যার যিনি বর্তমান প্রধান শিক্ষক, সুবোধ স্যার এবং মান্নান স্যার। কুদ্দুস স্যার তাদের সাথে কথা শেষ করে তাদের বিদায় দিয়ে আমার দিকে তাকালেন। হয়তো অন্য শিক্ষকদের সামনে আমায় লজ্জা দিতে চাননি।
– স্যার আসবো?
– আয়।
ভিতরে প্রবেশ করলাম আমি।
-কিরে তুই অ্যাসেম্বলিতে দাঁড়াস না?
মিথ্যা বলার সাহস তার ব্যক্তিত্বের সামনে সেদিন হয়নি, আমি বলতে পারিনি। ভাবলাম হয় এসপার নয় ওসপার। দুষ্টু ছিলাম ঠিকই কিন্তু স্যারেরা আমাদের তাদের সামনে মিথ্যা বলার শিক্ষা দেননি।
– না স্যার।
তার মানে তুই প্রায়ই ফাঁকি মারিস। সামান্য এসেম্বলি যদি ফাঁকি মারিস, জীবনের জটিল সব পরীক্ষাগুলোতে তুই তো পালিয়ে বেড়াবি। তখন কি ভিক্ষা করবি রাস্তায়?
আমি চুপ হয়ে সব শুনলাম। আর যেন এ ফাঁকিবাজি কোনদিন না দেখি বা না শুনি, যা ক্লাসে যা। সেদিন লজ্জায় অপমানে ক্লাসের সবার সামনে আমার মাথা হেঁট হয়ে গিয়েছিল।

আর একবার স্কুল থেকে পালিয়ে আমরা কয়েকজন বন্ধু পিকনিক করতে গিয়েছিলাম। আমি প্রদীপ,সাব্বির,আম্মান সহ আরো কয়েকজন। সেদিনও ক্লাস টিচারের কাছে ধরা পড়েছিলাম। পরেরদিন স্কুলে এসে ভয়ে আর ক্লাস থেকে বের হইনি। ভাবলাম আজ নিশ্চিত গার্জিয়ান ডাকবে। কিন্তু না, সেদিনও আমাদের গার্জিয়ানকে ডাকা হয়নি।

কুদ্দুস স্যার আমাদের উদ্দেশে বলেছিলেন – তোদের বাবা মা অনেক কষ্ট করে এই সনামধন্য স্কুলে পড়াচ্ছেন। মনে রাখিস হাজার হাজার ছাত্রদের মধ্যে মাত্র গুটিকয়েকজন তোরা এই স্কুলে লেখাপড়া করার সুযোগ পেয়েছিস; এ সুযোগ হেলায় হারাসনা। অন্যান্য শিক্ষকরা আমাকে অনুরোধ করেছে তোদের বাবা মাকে এখানে ডেকে আনতে। কিন্তু আমি রাজি হইনি। তোরা যতক্ষন স্কুলে থাকবি ততক্ষনই আমার এখতিয়ারে থাকবি। তোদের ভালমন্দ দেখার দায়িত্ব আমাদের শিক্ষকদের। স্কুল চলাকালীন সময় তোরা যাই করবি তার দায়দায়িত্ব আমার উপরেই বর্তায়। যে ভরসায় তোদের বাবা আমার কাছে পাঠিয়েছেন, তোদের বাপকে ডেকে তাঁর সেই ভরসা আর আস্থাকে আমি ছোট হতে দিতে পারি না।
আর আমাকে বললেন, তোর লজ্জা থাকলে আর কোনদিন কোন অকাম কুকাম এর বিচার নিয়ে আমার সামনে দাঁড়াবি না; যা ক্লাসে যা।

সেটাই ছিল দুষ্টামির বিচার নিয়ে তার সামনে আমার শেষ দাঁড়ানো। আর কোনদিন আমাকে তার সামনে দাঁড়াতে হয় নি মাথা নিচু করে লজ্জা অপমান নিয়ে। তিনি জানতেন কিভাবে একজন পথভ্রষ্ট দুষ্টু ছাত্রকে লাইনে দাঁড় করাতে হয়, কিভাবে তার কুমতিকে সুমতির পথে আনতে হয়।

আমাদের স্কুলের প্রধান শিক্ষককে দেখে ভয় পায়নি এমন ছাত্র জিলা স্কুলে একজনও নেই এটা আমি হলফ করে বলতে পারি। তিনি আমাদের আদর্শ ছিলেন, কেন? কারণ, কোমলে কঠোরে মেশানো কুদ্দুস স্যার ছিলেন ছাত্রদের এবং শিক্ষকদের জন্য একজন অগ্রগামী সেনাপতি।

তিনি যেদিন অবসরে যান সেদিন তার সেই বিদায় অনুষ্ঠানে আমি গিয়েছিলাম। আমি পা ছুঁয়ে সালাম করতেই তিনি মাথায় হাত রেখে বলেছিলেন- কিরে এখনো দুষ্টুমি করিস?
আমি স্মিত হাসি দিয়ে বলেছিলাম- না স্যার।
ভালো থাকিস বাবা। সৎ পথে চলিস, বাবা মায়ের মুখ উজ্জ্বল করিস আর শিক্ষক হিসেবে আমার শাসনকে আদর হিসেবেই নিস।
আমি বলেছিলাম- দোয়া করবেন স্যার।

তিনি আজ বেঁচে নেই। তবে আজ মনে হচ্ছে- আমার সীমা ছাড়ানো দুষ্টুমির সেসব ঘটনার পর আমার বাবা মাকে ডেকে অপমান করেননি বলেই তিনি আমার আদর্শ শিক্ষক হয়ে উঠেছিলেন নিশ্চয়ই। আল্লাহ আপনাকে জান্নাত বাসী করুন। ওপারে ভালো থাকবেন স্যার।

আজ বিশ্ব শিক্ষক দিবসে সকল শিক্ষকদের প্রতি গভীর শ্রদ্ধা নিবেদন করছি।

ছবি- রংপুর জিলা স্কুল।

১৩০জন ১১জন
50 Shares

১৮টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ

লেখকের সর্বশেষ মন্তব্য