আচ্ছন্ন নদী

সাবিনা ইয়াসমিন ১২ মার্চ ২০১৯, মঙ্গলবার, ০৮:১৩:৩৫অপরাহ্ন একান্ত অনুভূতি ৪১ মন্তব্য

নদী ছিলো কোকিলের অপেক্ষায়,
অনন্তকাল পাড়ি দিয়ে সময়-ঢেউয়ের হিসেব কষেছে, সেকেন্ড–মিনিট–ঘন্টা–দিন,
দিন–মাস–বছর–যুগ।

কোকিলের বেশে এসেছিলো কাক দলবদ্ধ হয়ে,
বিরক্ত–তটস্থ হয়ে তাড়িয়েছে কখনো তাড়া দিয়ে, কখনো সাদা ভাতে।
ভাত ছিটালে কাকের অভাব হয়না জেনেছিলো নদী, কোকিল প্রতিক্ষার অবসরে।

এসেছিলো ঝুটি বাঁধা কাকাতুয়া
মনের কথা বলতে/শুনতে, ক্ষণকাল বিরতি নিয়ে সেও পালিয়েছে,
নদীর গহীনে থাকা ঘুমন্ত কুমিরের খোলা চোখ দেখে।

কাঠঠোকরার জবানিতে জানা হলো
কুহুবন আজ কোকিল শূন্য, বন–খাজনা সময়মতো দিতে না পারায় তার কাজ বেড়েছে,
কালপুরুষের মন–জানালার পাহারায় থাকতে হবে অনতিকাল।

প্রহরী কোকিল বিষণ্ন মনে ডেকে উঠে বারবার
সময় নিয়ে অসময়ে, ছড়িয়ে পড়ে সেই কুহুতান কুহুবন ছাড়িয়ে পথে– প্রান্তরে– নদীর সীমান্তে।

নদী শোনে/শুনতে পায়,
শান্তির দূত সুখের এক পায়রা বসত করে নদীর হৃৎপিণ্ডে,
ওড়ে–ঘুরে–হেটে বেড়ায় জল–জঙ্গলের-আঙিনায়,
ছোটো বড় ঢেউয়ের সাথে তালে তাল-মিলায়।

বাক বাকুম সুরের মূর্ছনায় আচ্ছন্ন হয়ে ভুলে যায় কুহুতান,
শান্তি-দূতের মোহ–মায়ায় আবিষ্ট নদী ধীরে বয় তন্দ্রাচ্ছন্নতায়;

৬৫১জন ২২৮জন
24 Shares

৪১টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ

লেখকের সর্বশেষ মন্তব্য