অর্পিতা ১৬

সঞ্জয় কুমার ৮ জুলাই ২০১৪, মঙ্গলবার, ১১:৫৯:১৮পূর্বাহ্ন গল্প, সাহিত্য ১৩ মন্তব্য

জয় একটা রিকশা নিয়ে সদরে আসল ।
রাজু: দেখুন তো দাদা ,দিদি কিছুই খেতে চাইছে না আপনি একটু বোঝান ।

ঠিক আছে তুমি নাস্তা করে আসো সকালে তো মনে হয় তোমার খাওয়া হয়নি ।

ঠিক আছে ।

অর্পিতা কেমন আছ ?

দেখতেই তো পারছ

অহ হ্যাঁ তাইতো

তুমি তো অনেক তারাতারি সুস্থ হয়ে গেছ ।

না হয়ে কি উপায় আছে ! আমি মিলন ভাইয়ের কাছে সব শুনেছি । তুমি নাকি বলেছ আমার সাথে কথা না বলা পর্যন্ত জল স্পর্শ করবে না । বিয়ের আগে এত বৌ পাগল হলে কিভাবে চলবে! লোকে কি বলবে?

না মানে ।

তুমি কি মনে কর তোমাকে না খাইয়ে আমি খাব !

তাহলে এতক্ষণ তুমি আমার জন্য না খেয়ে বসে ছিলে!!!

বিয়ের আগেই এত গৃহিণী হলে লোকে কি বলবে?
আচ্ছা বাদ দাও এখন খেয়ে নাও তারপর সব শুনব ।
অহ তোমার তো ডান হাতে ব্যান্ডেজ । দাঁড়াও আমি তোমাকে খাইয়ে দিচ্ছি ।

আগে তুমি তারপর আমি ।

নে বাবা আমি কি আর তোমার মত অসুস্থ ।

তাতে কি তুমি না খেলে আমি খাব না । তোমার কথা আমি রেখেছি এবার তুমি আমার কথা রাখ ।

ঠিক আছে ।

জয় অর্পিতাকে মুখে তুলে খাওয়াচ্ছে । এমন সময় মিলন আসল ।

বাহ এত সুন্দর একটা দৃশ্য দেখব কল্পনা করতে পারিনি । বৌদি ঐ পজিশনে থাকুন আমি একটা ছবি তুলে নিই ।

মিলন এখন কি ছবি তোলার সময় ?

চুপ কর এটা আমার আর বৌদির ব্যাপার ।
ঠিক আছে তোরা থাক আমি আসছি ।

মাঝেমাঝে মনে হয় কি জানো ?

কি ?

একসিডেন্ট করে ভালই হয়েছে ।

কেন?

তা না হলে তোমাকে এত কাছে পেতাম না । তুমি যে আমাকে এত ভালবাস সেটা বুঝতেই পারতাম না ।
এমন কথা আর বলবা না ।

ডাক্তার এসেছে সাথে রাজুও

রাজু আমি বাইরে গেলাম দরকার হলে ফোন দিও

ঠিক আছে দাদা ।

আগামী কাল অর্পিতার জন্মদিন । জয় ভাবছে জন্মদিনে ও স্পেশাল কিছু গিফট করবে ।

চলবে…………………

৩০০জন ৩০০জন
0 Shares

১৩টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ