অকাল-মরণ (ম্যাগাজিন)

ছাইরাছ হেলাল ১৮ মার্চ ২০১৭, শনিবার, ১২:২৪:৩৩পূর্বাহ্ন কবিতা ২৮ মন্তব্য

ভাবছি, যাব-না আর
জলাভূমির ব-দ্বীপে, ঘন্টা-মিনারে চোখ-ফেলে-রেখে
চোখে আঁকবোনা অগণন ফুলের দেশ, প্রথম কুড়িফোটা সৌরভে
প্রজাপতি-রং মেখে, প্রজাপতির বেশে, কিন্তু!
আকাল-মরণ শেষে বৈশাখের সকাল-রৌদ্র যে হাঁট বসিয়েছে,
জাঁকিয়ে সে হাসছে এবারে! ঠোঁট উঁচিয়ে!!

সকাল-নির্জনতায় প্রায় প্রতিদিন-ই
দেখা হতো শঙ্কাহীন-স্রোতস্বিনী-হেজাবীসকালের সাথে,
ভাবনাহীন-বৃত্তে, ডুবো-নদীর পারে, স্বপ্নে-পাওয়া জল-স্পর্শে;
সকালের হাঁটা-পথে, সময়ের সু-বিপুল তারতম্য ভেদে
অনিয়মের-নিয়মে, অগাধ বিস্ময়ের সবুজ জলের উপচে পড়া ভিড়ে,
জল ডাহুকের ডাক শুনে, জল-বৃষ্টির আদলে, ছলকে পড়া মায়া-শিশিরে;

ভেবেছিও, কখনও-সখনও,
উদ্দাম উদোম নদীতে জাল ফেলে, চমকে-থমকে দেবো,
ঝাঁকের কাঁপন এড়িয়ে হরবর করে আচানক বলে ফেলবো,
এই, শোন শোন, তাকাও,
কৈ যাও? এলেই বা কোত্থেকে?

সহসাই পূর্ণিমা তিথির গোলাপ-ভাবনায় লেগে গেল গ্রহণ,
অপচিত হু-হু বিষণ্ণ নিভৃত-দহন অনুক্ষণ, ক্ষীণভ-আলোর-কিরণ;
হয়-না যাওয়া বহুকাল সকালের ও-দিকটায়, বহুদিন;
হয়ত যাওয়া হবে, বা-না, না-মেনে বিশুদ্ধ গাণিতিক শাস্ত্র,
প্রবল দুর্বিপাকে কুশলাদি জানা গেল-না,
নম্র-লাজের সচ্ছল-সুঠাম-সুডৌল অহল্যা-হাসিটুকুও না,

বসে নীরব-জোড়াসনে, ঝিঁঝিঁ-ঝোপের আড়াল ফেলে,
নির্বাক-নিঃশব্দ-হৃদে, কামকাজ ছেড়ে-ছুঁড়ে দিব্য চোখে
স্বপ্ন-দেখি, দূরে সমুজ্জ্বল সোনালী এক বাতিঘরের;
ইথার-অবশে।

১৯১জন ১৯১জন
0 Shares

২৮টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ

লেখকের সর্বশেষ মন্তব্য

সাম্প্রতিক মন্তব্যসমূহ